বাউফলে মোবাইল নেশা নয় যেন এক মরন নেশা!

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত জুন ৩ বৃহস্পতিবার, ২০২১, ১০:০৮ অপরাহ্ণ
বাউফলে মোবাইল নেশা নয় যেন এক মরন নেশা!

মোঃ আরিফুল ইসলাম, বাউফল প্রতিনিধি,পটুয়াখালীর বাউফলে মহামারি করোনা লকডাউনে স্কুল-কলেজ বন্ধ থাকায় মাদকের নেশার মতো ক্রমশ গ্রাস করছে মোবাইলের নেশা। মোবাইল গেমস থেকে শুরু করে ফেসবুকের নেশায় এখন প্রায় প্রত্যেকেই আক্রান্ত। ছোট থেকে বড় সকলেই মোবাইল ফোন হাতে থাকলে ভুলে যায় সব কিছুই প্রায়। পারলে সারাদিন বসে থাকে মোবাইল নিয়েই।

 

এদের মধ্যে বেশির ভাগই স্কুল পড়ুয়া ছেলে-মেয়ে। তারা মাদকের মতো মোবাইল নেশায় বিভোর। যত্রতত্র শিক্ষার্থীরা রাস্তার মোড়ে, ব্রীজের উপরে,লোকজনের আড়ালে/আপডালে মোবাইল নিয়ে বসে সময় পাড় করছে। মোবাইলের এই নেশার ফলে বহু দুর্ঘটনাও ঘটছে। মোবাইলে ফেসবুক চলানো অবস্থায় রাস্তা পারাপারে সড়ক দুর্ঘটনার শিকার হচ্ছে। এছাড়াও মোবাইল ফোনের ফলে এখন মানুষ অনেক বেশি অসামাজিক ও হয়ে গেছে। ঘরে ঘরে এখন দেখা যায় কেউ কারো-র সঙ্গে কথা না বলে ফোন নিয়ে বসে আছে একা নিরালায়। এমনকি বড়দের দেখাদেখি ছোটদের মধ্যেও এই রোগ সংক্রমিত হচ্ছে দ্রুতগতিতে। ফলে, ছোট বাচ্চাদেরও এখন সারাদিন ফোন নিয়ে বসে থাকতে দেখা যায়। এমনকি ছোট বাচ্চারা বায়না ধরে মোবাইল না দিলে ভাত খাব না। কার্টুন ছেড়ে দিয়ে ভাত খাওয়াতে হচ্ছে মায়েদের।

 

নাজিরপুর ইউনিয়নের আমীমুল এহসান নামে একজন অভিভাবক বলেন, মোবাইলের নেশার কারণে পরিবারের অশান্তি দেখা দিচ্ছে। কারো প্রতি কোন ভালোবাসা নেই। মাদকের থেকে বড় নেশা এই মোবাইল নেশা। রাস্তার মোড়ে মোড়ে, নদীর পাড়ে,ঝোপ জঙ্গলে বসে কোমলমতি শিশুরা পাবজি গেমস নামক মরন নেশায় মেতে উঠছে। এই নেশা থেকে কোমলমতি শিশুদের না বাঁচালে আগামী ভবিষ্যৎ পুরোটাই অন্ধকার দেখা দিবে।

 

পৌর শহরের বাসিন্দা সাংবাদিক মো. দেলোয়ার হোসেন বলেন, স্কুল বন্ধ থাকায় ছেলে মেয়েরা লেখা পড়া না করে সকাল থেকে দুপুর, বিকেল থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত পৌরসভাসহ বিভিন্ন ইউনিয়নের বিভিন্ন পয়েন্টে মাদকের নেশার মতো মোবাইলের নেশায় পড়ে থাকে। বাবা-মায়ের সাথে খারপ আচারন করে। আমি উপজেলা প্রশাসনকে অনুরোধ জানাবো যদি ১৮ বছরের নিচে কোন ছেলে মেয়ের হাতে মোবাইল দেখা যায় তাদের কাছ থেকে মুচলেকা  নিয়ে অভিভাবকের হাতে তুলে দেয়ার জন্য জোর দাবী জানাচ্ছি।

 

মোবাইলে নেশায় জড়িয়ে পড়া সম্পর্কে বাউফল উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা প্রশান্ত কুমার সাহা বলেন, মাদকের নেশার মতো মোবাইলের নেশা খুবই ভয়াবহ। এতে প্রথমে বাধাগ্রস্থ হয় শিশুর মানসিক ও দৈহিক বিকাশ। এ ছাড়া অল্প বয়সে চোখে কম দেখা,কান ও মস্তিস্কের ক্ষতি অতি মাত্রায় বেশি দেখা দিতে পারে। মোবাইল ব্যবহারের ফলে ঘুম কম হওয়া,মাথা ব্যাথা,প্রসার বেড়ে যাওয়াসহ মৃত্যুর সম্ভবনা রয়েছে। বিশেষ করে কোন বাচ্চাদের হাতে মোবাইল দেয়া থেকে বিরত থাকা জরুরি। এ জন্য জনসচেতনতা, অভিভাবকদের বেশি দায়িত্বশীল হওয়া। এছাড়া শিশুদের মোবাইলের নেশা থেকে ফেরানোর বিকল্প নেই।

 

বাউফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার জাকির হোসেন বলেন, মোবাইলের নেশা বতর্মানে মাদকের নেশার চেয়েও ভয়াবহ আকার ধারন করেছে। মোবাইলের নেশা ছাড়ানোটা খুব একটা সহজ কাজ নয়। এই নেশা ছাড়াতে প্রয়োজন কাউন্সেলিং। একমাত্র নিয়মিত কাউন্সেলিং-এর দ্বারাই এই নেশা নিরাময় সম্ভব




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]