বাবার গড়া নিজ নামের প্রতিষ্ঠানে পড়ে ঢাবি-শেবাচিমে চান্স পেলেন ভোলার হা-মীম আরা

Barisal Crime Trace -GF
প্রকাশিত জুলাই ৬ বুধবার, ২০২২, ০৮:০৪ অপরাহ্ণ
বাবার গড়া নিজ নামের প্রতিষ্ঠানে পড়ে ঢাবি-শেবাচিমে চান্স পেলেন ভোলার হা-মীম আরা

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ একই সঙ্গে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ‘ক’ ও ‘ঘ’ ইউনিট এবং বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজে (শেবাচিম) ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছেন ভোলার লালমোহন উপজেলার হা-মীম আরা।

 

 

 

 

 

তিনি লালমোহন প্রেসক্লাব সভাপতি ও লালমোহনের হা-মীম রেসিডেন্সিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ মো. রুহুল আমিন ও জান্নাতুল সুবার হ্যাপি দম্পত্তির মেয়ে।

 

 

 

 

 

তাদের দুই ছেলে এক মেয়ের মধ্যে হা-মীম আরা সবার বড়। তার ছোট দুই ভাইয়ের মধ্যে আমির হামজা নবাব হা-মীম রেসিডেন্সিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের একাদশ শ্রেণিতে পড়ে এবং হাবিবুর রহমান রাজা একই প্রতিষ্ঠানের নবম শ্রেণিতে অধ্যয়নরত।

 

 

 

 

 

প্রথমে গত ২৪ এপ্রিল হা-মীম আরা বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেল কলেজে ব্যাচেলর অব ডেন্টাল সার্জারি (বিডিএস) বিভাগে ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়ে সেখানেই ভর্তি হন। পরে গত ৪ ও ৫ জুলাই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে (ঢাবি) একসঙ্গে দুই ইউনিটে ভর্তি পরীক্ষায় কৃতিত্বের সঙ্গে উত্তীর্ণ হন।

 

 

 

 

 

হা-মীম আরার পিতা অধ্যক্ষ মো. রুহুল আমিন বলেন, হা-মীম আরা ক্লাশ ওয়ান থেকেই তার প্রতিষ্ঠানে পড়ালেখা করেছে। তার নামেই এ প্রতিষ্ঠানটির নাম রেখেছেন লালমোহন হা-মীম রেসিডেন্সিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজ। এ কলেজ থেকে এসএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পেয়ে ট্যালেন্টপুল বৃত্তি পেয়েছিল হা-মীম। পরে এইচএসসি পরীক্ষায় জিপিএ-৫ পায় সে।

 

 

 

 

 

তার এই সফলতায় বাবা-মা খুবই আনন্দিত। নিজের নামের প্রতিষ্ঠান থেকে লেখাপড়া করে এমন সফলতা পাওয়ায় আনন্দ আরো কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিয়েছে তাদের।

 

 

 

 

 

তবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুইটি ইউনিটে ভর্তির সুযোগ পেলেও তিনি বরিশাল শের-ই বাংলা মেডিকেলেই পড়ালেখা করবেন বলে জানিয়েছে তার পরিবার। তার জন্য সবার কাছে দোয়া চেয়েছেন অধ্যক্ষ মো. রুহুল আমিন।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]