বরিশালে আইনের প্রয়োগ না থাকায় বাড়ছে শিশু শ্রমিক

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত জুন ১২ শনিবার, ২০২১, ১১:৫২ পূর্বাহ্ণ
বরিশালে আইনের প্রয়োগ না থাকায় বাড়ছে শিশু শ্রমিক

এম.কে. রানা ॥ সরকারিভাবে শিশু শ্রম নিষিদ্ধ হলেও ঝুঁকিপূর্ণ কাজে শিশুদের নিয়োগকর্তাদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ না নেয়ায় বরিশালে দিন দিন বেড়ে চলছে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা। বরিশালের বিভিন্ন কলকারখানা, বাসাবাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানসহ সব জায়গায় এখনও বেআইনিভাবে শিশুদের নিয়োগ দেয়া হয়। শিশুশ্রম বন্ধে কঠোর আইন থাকলেও তা বন্ধ করা যাচ্ছে না।

দারিদ্র, অশিক্ষা আর পেটের দায়ে কখনো অটোরিক্সার চালকের আসনে, কখনো ভাঙারী দোকানে, কখনো বাসের হেলপার আবার কখনো কখনো হোটেল-রেস্তোরায় কাজ করতে দেখা যায় দশ-বারো কিংবা চৌদ্দ বছর বয়সী শিশু-কিশোরদের। শুধু তাই নয়, অহরহ ঝুঁকিপূর্ণ কাজ যেমন- বিভিন্ন ওয়ার্কশপে, নির্মাণ কাজ, হোটেল-রেস্তোরা, ভাঙারী দোকান, বিড়ি কারখানা, জুতার কারখানা এবং বাস-ট্রাকে আশঙ্কাজনক হারে দিনদিন বাড়ছে শিশু শ্রমিকের সংখ্যা।

এছাড়া দেশের বিভিন্নস্থানে অনিয়ন্ত্রিত পতিতাবৃত্তির কারণে পথ শিশু, টোকাই এর সংখ্যা বেড়েই চলছে।

বর্তমানে বৈশি^ক মহামারী করোনায় দারিদ্রসীমার নীচে বসবাসকারী পরিবারের শিশুরাও ঝুঁকিপূর্ণ কাজে নিয়োজিত হচ্ছে। তবে সঠিকভাবে কেউ-ই বলতে পারছেন না বরিশালে ঝুঁকিপূর্ণ বা শিশু শ্রমিক কতজন আছে। অবশ্য কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন বরিশাল অফিস সূত্রে জানা যায়, এ যাবত প্রায় ৮শ’র মতো শিশু শ্রমিক তারা শনাক্ত করেছেন। যাদের মধ্যে ৫শ’ ৪ জন শিশু শ্রমিককে উদ্ধুদ্ধকরণের মাধ্যমে নিরসন করতে সক্ষম হয়েছেন বলে দাবী করেন তারা।

অপরদিকে সচেতনমহল বলছেন, মানবিক কারণেই নারী ও শিশু শ্রমিকদের প্রতি নজর দিতে হবে। না হয় সরকারের মধ্যম আয়ের দেশের স্বপ্ন এবং মানব উন্নয়ন সূচকের অগ্রগতি অধরাই থেকে যাবে। বিভিন্ন সংগঠন শিশুদের নিয়ে কাজ করলেও শিশু শ্রম নিরসনে কোন উদ্যোগ নিয়েছে কিনা জানা যায়নি। গণমাধ্যমেও এ নিয়ে বিস্তর লেখালেখি হলেও টনক নড়ছে না সংশ্লিষ্টদের।

সরেজমিনে দেখা যায়, নগরীর বিভিন্ন রুটের গণপরিবহন ও মালবাহী ট্রাকে হেলপার হিসেবে কাজ করছে অসংখ্য শিশু। বিভিন্ন পরিবহন, নির্মাণ কাজ, ওয়ার্কশপ কিংবা হোটেল রেস্তোরায় কম পারিশ্রমিকে সহজে পাওয়া যায় বলে মালিক কিংবা শ্রমিক সর্দারদের প্রথম পছন্দ শিশু শ্রমিক।

সাম্প্রতিক সময়ে বরিশাল নগরীতে ব্যাটারী চালিত রিক্সা, অটোরিক্সার পরিমান দিন দিন বৃদ্ধি পাওয়ায় ১২ থেকে ১৪ বছর বয়সী শিশুদেরকে অটোরিক্সা এবং রিক্সা চালাতে দেখা যায়। তাছাড়া নগরীর অলিগলিতে অটোরিক্সা মেরামত এবং তৈরী করার জন্য গড়ে উঠেছে অসংখ্য গ্যারেজ ও ওয়ার্কশপ। যেখানে গেলে সহজেই চোখে পড়বে ঝুঁকিপূর্ণ কাজে শিশুদের অংশগ্রহণ কতটা বেড়েছে।

জাতিসংঘ প্রণীত শিশু অধিকার সনদে ১৮ বছরের কম বয়সী প্রত্যেককে শিশু বলা হয়েছে। বাংলাদেশের বিভিন্ন আইনে ১৫ বছরের কম বয়সী প্রত্যেককে শিশু হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। তাই ১৪ বছরের মধ্যে সকলেই এ দেশের শিশু। জাতিসংঘের শিশু সনদ এখন একটি আন্তর্জাতিক আইন। এতে বলা হযেছে, শিশুর বেঁচে থাকা তাদের জন্মগত অধিকার।

বাংলাদেশে শিশুদের অধিকার রক্ষা ও তাদের বিকাশের জন্য রয়েছে নানা আইন। কিন্তু তার পরেও বাংলাদেশে লঙ্ঘিত হচ্ছে শিশু অধিকার। সমাজ থেকে শিশু-কিশোরদের যেসব সুযোগ-সুবিধা ভোগ করার কথা তা পদে পদে বাধাগ্রস্ত হচ্ছে। শিশুনীতিকে পাশ কাটিয়েই শিশুদের ভারী গৃহশ্রমসহ বেআইনি কাজে যুক্ত করা হচ্ছে।

বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর (বিবিএস) শিশুশ্রম জরিপে বলা হয়েছে, দেশে কোনো না কোনোভাবে শ্রমের সাথে যুক্ত রয়েছে এমন শিশুর সংখ্যা ৩৪ লাখ ৫০ হাজার। এর মধ্যে ১২ লাখ ৮০ হাজার শিশু ঝুঁকিপূর্ণ শ্রমে নিয়োজিত রয়েছে।

এ ছাড়া শিশুরা আরো কিছু বিচিত্র কাজেও নিয়োজিত। এর মধ্যে রয়েছে হকারি, ডাস্টবিনে ময়লা কুড়ানো, কুলি, রিকশা শ্রমিক, যৌনব্যবসা, ফুল বিক্রেতা, মাদক বাহক ও বিক্রেতা প্রভৃতি। আর এসব শিশু শ্রমিকের প্রায় ৫০ ভাগই তাদের পরিবারের আয়ের প্রধান উৎস।

এদিকে ২০০৬ সালের ১১ অক্টোবর প্রণীত বাংলাদেশ শ্রম আইন অনুসারে, যে কোন কাজে নিয়োজিত শ্রমিকের বয়স ১৪ বছরের নিচে হওয়া যাবে না। কিন্তু বাস্তব চিত্র বলছে ভিন্ন কথা।

সরকারি-বেসরকারি পর্যায়ে গত ২০১১ সালে এসব শিশুদের সংখ্যা নিয়ে জরিপ করা এবং তাদের অবস্থা পরিবর্তনে বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলা হলেও এখন পর্যন্ত দৃশ্যত কোন ফল পাওয়া যায়নি। আর যাদের নিয়ে এত উদ্যোগ, তারাও এসব বিষয়ে কিছু জানে না। শ্রম আইনের ৩৯ এর (১) এবং (২) ধারায় বলা আছে- সরকার কর্তৃক ঘোষিত ঝুঁকিপূর্ণ কাজে কোন কিশোরকে নিয়োগ করা যাবে না।’

তবে বিভিন্ন সংস্থা ঝুঁকিপূর্ণ কাজ হিসেবে মোটর ওয়ার্কশপ, ওয়েল্ডিং, ব্যাটারি ফ্যাক্টরি, গ্যাসের কারখানা, রিকশা চালানো, মাদক বাহক, রাস্তাঘাটে পান, বিড়ি-সিগারেট তৈরী ও বিক্রয়, বাস-ট্রাকের হেলপার, নির্মাণ শ্রমিক, ইট ভাঙা, গৃহ শিশুশ্রম, ইত্যাদি খাতকে চিহ্নিত করেছে।

কিন্তু জীবিকার তাগিদে এসব পেশায় নিয়োজিত হওয়া ছাড়া অন্য কোন উপায় নেই বলে জানান শিশু শ্রমিকরা।

নগরীর কাউনিয়া এলাকায় কারিকর বিড়ি কারখানায় সরেজমিনে গিয়ে কথা হয়, শিশু শ্রমিক সোনিয়ার সাথে। সে জানায়, কাউনিয়ার একটি স্কুলে ৪র্থ শ্রেনীতে পড়ে সে তবে স্কুলের নাম বলতে রাজী হয়নি সে। স্কুল শেষে কারখানায় কাজ করে। এক হাজার বিড়ি তৈরী করতে ১২ টাকা মজুরি পায় সে। সে জানায়, তার বাবা রিক্সাচালক। অভাবের সংসার তাই পড়ালেখার পাশাপাশি বিড়ি কারখানায় কাজ করে।

একই কারখানায় কাজ করার নারী শ্রমিক লুৎফা তার শিশু সন্তানকে নিয়ে এসেছেন কাজ করতে। লুৎফার স্বামী অমৃত ফুড প্রোডাক্টস-এ দৈনিক ২শ’ টাকা মজুরী ভিত্তিতে কাজ করে। তাতে সংসার চলেনা এবং সন্তানদের লেখাপড়া করাতে পারেন না। তাই প্রায় ১৫ বছর যাবত তিনি এ কারখানায় কাজ করছেন।

একই কারখানার কাজ করে ৬৫ বছরের বৃদ্ধ আঃ খালেক। তিনি জানান, দীর্ঘ ৪০ বছর যাবত বিড়ি কারখানায় কাজ করেন তিনি। এতে তার শ^াস কষ্টের রোগ হয়েছে। অভাবে পড়েই তিনি এ পেশায় এসেছেন বলে জানান। এছাড়া সরেজমিন পরিদর্শনকালে সাংবাদিকদের উপস্থিতি টের পেয়ে বেশ কিছু শিশু শ্রমিক পালিয়ে যায়। কেউ কেউ আবার চাকরি বা কাজ হারানোর কথাও বলেছে।

 

হৃদয় নামে ১৪ বছর বয়সী এক রিক্সা চালকের সাথে কথা হয়। সে জানায়, তার বাবা অন্যত্র বিয়ে করে চলে যাওয়ায় দুই ভাই বোন আর মাকে নিয়ে সংসার চালাতেই রিক্সার সিটে উঠেছে সে।

 

 

 

নগরীর ভাটারখাল এলাকার মটর মেকানিকের দোকানের কর্মচারী রহিম নামে এক শিশু শ্রমিক জানান, তারা ৫ ভাই দুই বোন। বাবা রিক্সাচালক। তাই এখানে কাজ করে যা পায় তা দিয়ে সংসারে সাহায্য করে সে।

 

শুধুমাত্র সোনিয়া বা রহিমই নয় নগরীতে প্রায় সহস্রাধিক শিশু শ্রমিক নগরীর বিভিন্ন ওয়ার্কশপ, হোটেল ও গ্যারেজে কাজ করছে।

 

জাতিসংঘের শিশু অধিকার সনদে ১৯ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে, শিশুদের যে কোনো ধরনের অনাচারের কবল থেকে রক্ষা করার দায়িত্ব রাষ্ট্রের। শিশুদের নিরাপত্তা ও বেঁচে থাকার অধিকার জন্মগত। তারপরও এসব শিশুরা থেকে যাচ্ছে রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতার বাইরে।

বরিশালে অভিভাবকহীন, হারিয়ে যাওয়া, এতিম-মিসকিন শিশুদের জন্য শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেন্দ্র এবং সরকারি শিশু পরিবার বালিকা নামে মোট তিনটি পুনর্বাসন কেদ্রে মোট ৪০০ আসন থাকলেও সেখানে মাদকাসক্ত ছিন্নমূল শিশুদের পুনর্বাসনের ব্যবস্থা নেই।

সমাজসেবা অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক আল মামুন তালুকদার বলেন, মাদকাসক্ত ছিন্নমূল শিশুদের জন্য তেমন কিছু করার নেই। কারণ সমাজসেবা অধিদফতরের আওতায় এই ধরনের কোন প্রতিষ্ঠান নেই।

শিশু পুনর্বাসন কেদ্রের আসন সংকটের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, বরিশালে শেখ রাসেল শিশু প্রশিক্ষণ ও পুনর্বাসন কেদ্রে বর্তমানে সর্বমোট ১৮৫ জন বালক ও বালিকাকে উল্লেখযোগ্য সেবা প্রদান করা হচ্ছে।

জাতীয় শিশুশ্রম জরিপে দেখা গেছে, শিশুশ্রম বন্ধে বিভিন্ন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা, সামাজিক সংগঠন সভা, সমাবেশ, মানববন্ধন করলেও আজও শিশুশ্রম বন্ধ হয়নি। শিশুদের কাজে লাগিয়ে নিজেদের স্বার্থ হাসিল করে একশ্রেণির স্বার্থান্বেষী ব্যবসায়ী ও কর্তাব্যক্তিরা।

এরা অল্প পারিশ্রমিক দিয়েই একজন শিশুশ্রমিককে দিয়ে তাদের প্রয়োজনীয় কাজ করাতে পারেন। ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করতে গিয়ে বেশির ভাগ শিশুই মাদকাসক্ত হয়ে পড়ে। জড়িয়ে পড়ে বিভিন্ন অপরাধমূলক কর্মকা-ে।

বরিশাল সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব প্রবীন সাংবাদিক এ্যাড. এস.এম ইকবাল বলেন, শিশুদের শ্রমে নিয়োগ বে-আইনী এবং নিন্দনীয় কাজ। শিশুশ্রম নিয়ন্ত্রণে সরকারি আইনের প্রয়োগ না থাকায় বরিশালে শিশুশ্রম বৃদ্ধি পাচ্ছে। আইনের সঠিক প্রয়োগ করা উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদপ্তর বরিশালে ডেপুটি ইন্সপেক্টর জেনারেল হিমন কুমার সাহা বলেন, ঝুঁকিপূর্ণ কাজে বা শিশু শ্রম বন্ধে তারা বিভিন্ন শ্রমিক সংগঠন ও মালিক পক্ষের সাথে একাধিকবার বৈঠক করেছেন।

তাদেরকে এ ব্যাপারে নিরুৎসাহিত করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি এ প্রতিবেদককে বলেন, তারা এ পর্যন্ত বরিশাল নগরীতে প্রায় ৮শ’র মতো শিশু শ্রমিক শনাক্ত করেছেন। যাদের মধ্য থেকে উদ্ধুদ্ধকরণের মাধ্যমে বিড়ি কারখানার ৪শ’ ১০ জন, লেদ ওয়ার্কশপের ১২ জন, অটোমোবাইল ওয়ার্কশপে ৩৭জন এবং বিভিন্ন বেকারীর ৪৫জন শিশু শ্রমিক নিরসন করতে সক্ষম হয়েছেন তারা।

এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, শিশু শ্রম নিরুৎসাহিত করতে তাদের পক্ষ থেকে বিভিন্ন সময় সচেতনতামূলক উদ্ধুদ্ধকরণ সভা করা হয়।

তিনি আরো বলেন, শ্রমিক কল্যাণ ফাউন্ডেশণের মাধ্যমে বরিশাল অফিস থেকে এ পর্যন্ত ৬২টি শ্রমিক পরিবারকে ১২ লক্ষ ৪৫ হাজার টাকার চেক বিতরণ করা হয়েছে। “শিশু শ্রম বন্ধে আমরা যথেষ্ট আন্তরিক এবং সরকারেরও কঠোর নির্দেশনা রয়েছে যা আমাদের সকলের সম্মিলিত প্রচেষ্টায় বাস্তবায়ন করা সম্ভব বলেন তিনি”।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]