বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু উদ্বোধন কাল


ebdn প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ৩, ২০২২, ৮:৪৪ অপরাহ্ণ /
বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু উদ্বোধন কাল

নিজস্ব প্রতিবেদক : পিরোজপুরের কঁচা নদীর ওপর নির্মিত বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব অষ্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু উদ্বোধন কাল রবিবার। পিরোজপুর সদরের কঁচা নদীর ওপর নির্মিত অষ্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতুর বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের নামে নামকরণ করা হয়েছে।

আগামীকাল ৪ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টায় গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সেতুটির উদ্বোধন করবেন। সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে পিরোজপুর সদর উপজেলার কুমিরমারা প্রান্তে ও কাউখালী উপজেলার বেকুটিয়া প্রান্তে দুটি সুবিশাল প্যান্ডেল তৈরী করা হয়েছে। সড়ক ধারে লাগানো প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে ব্যানার ও ফেস্টুন।

 

পিরোজপুরের জেলা প্রশাসক মোহাম্মাদ জাহেদুর রহমান বলেন, আশাকরছি পিরোজপুরের কুমিরমারা প্রান্তে দশ হাজার আর কাউখালীর বেকুটিয়া প্রান্তে দশ হাজার মানুষ উপস্থিত হয়ে সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উপভোগ করবেন। এজন্য পিরোজপুরের কুমিরমারা প্রান্তে ৭টি ও কাউখালীর বেকুটিয়া প্রান্তে ৫টি এল ই ডি স্থাপন করা হয়েছে।

 

জানা গেছে, ২০১৮ সালের ২০ অক্টোবর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে সেতুটির নির্মাণকাজের উদ্বোধন করেন। ৯৯৮ মিটার দৈর্ঘ্যের ও ১৩ দশমিক ৪০ মিটার প্রস্থের সেতুতে ১০টি পিয়ার ও ৯টি স্প্যান রয়েছে।

 

 

৮৮৯ কোটি টাকা ব্যয়ে চীনের চায়না রেলওয়ে ১৭ ব্যুরো গ্রুপ লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠান সেতুটি নির্মাণ করেছে। এর মধ্যে ৬৫৪ কোটি ৭৯ লাখ টাকা চীন সরকার এবং বাকি অর্থ বাংলাদেশ সরকার দিয়েছে। গেল ৭ আগস্ট ঢাকায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে বৈঠকে চীনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়াং ই সেতুর হস্তান্তর সনদ চুক্তিতে সই করেন।

 

পিরোজপুর সদর উপজেলার কুমিরমারা এরাকার বাসিন্দা আমিনুল ইসলাম জানান, সেতুটি উদ্বোধন শেষে চালুরপর বরিশালের সঙ্গে খুলনার সড়ক যোগাযোগে কোনো ফেরি থাকবে না। পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার বাসিন্দা নেসার উদ্দিন টিপু জানান, কলাপাড়া উপজেলার পায়রা সমুদ্রবন্দরের সঙ্গে মোংলা সমুদ্রবন্দরের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগের ব্যাপক উন্নতি হবে।

 

সেতুর উদ্বোধনী স্থান পরিদর্শন শেষে পিরোজপুর-১ আসনের সংসদ সদস্য মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেন, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব অষ্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে সকল প্রস্তুুতি সম্পন্ন হয়েছে। আমরা আশাকরছি একটা চমৎকার আনন্দঘন পরিবেশে মানুষ সেতুর উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উপভোগ করত পারবে। কচাসেতু উদ্বোধনের পর আনন্দের দুয়ার খুলে যাবে।

 

শ ম রেজাউল করিম বলেন, উন্নয়নের পূর্বশর্ত উন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা। পিরোজপুরের কৃষিজ সহ অপরাপর অনেক সামগ্রী আছে যেটা শিল্পে, অর্থনৈতিক উন্নয়নে, বৈদেশিক মুদ্রা অর্জনে অনেক গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখতে পারে। কিন্তু আমাদের যোগাযোগ ব্যবস্থাছিল বিপন্ন। মাওয়াঘাটে গিয়ে ঘন্টারপর ঘন্টা না দিনেরপর দিন বসে থাকতে হতো। পিরোজপুর জেলাকে বিচ্ছিন্ন করে রেখেছিল কচানদী। আমাদের এই দুটি অভাবনীয় উন্নয়ন প্রকল্প এই অঞ্চলের মানুষকে উন্নয়ন ব্যবস্থায় পৌছে যাওয়ার জন্য গুরুত্বপূর্ণ ভ’মিকা পালন করছে।

 

প্রকল্প ব্যবস্থাপক নির্বাহী প্রকৌশলী মাসুদ মাহামুদ বলেন, বরিশাল-ঝালকাঠী-পিরোজপুর- খুলনা সড়কের পিরোজপুর সদর উপজেলার কুমিরমারা ও কাউখালী উপজেলার বেকুটিয়া এলাকায় কঁচা নদীর ওপর নির্মিত এ সেতুর নামকরণ করা হয়েছে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব অষ্টম বাংলাদেশ-চীন মৈত্রী সেতু।

 

পিরোজপুর সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী শেখ নাবিল হোসেন জানান, ৪ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ সেতুর উদ্বোধন করবেন। এ দিন রাত ১২টা ১ মিনিটে সেতুটি যান চলাচলের জন্য খুলে দেয়া হবে।