ববি শিক্ষার্থীর অভিনব প্রতারণা! বেরিয়ে এলো আরো চাঞ্চল্যকর তথ্য

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত জুন ১২ শনিবার, ২০২১, ০৬:৪৬ অপরাহ্ণ
ববি শিক্ষার্থীর অভিনব প্রতারণা! বেরিয়ে এলো আরো চাঞ্চল্যকর তথ্য

বরিশালক্রাইমট্রেস ডেস্কঃ বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের কাছে অভিযুক্ত ওই শিক্ষার্থী সব সময় নিজেকে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড-২০২০ প্রাপ্ত সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি দাবি করলেও বাস্তবে ওই সংগঠন জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড পায়নি।

বিনা অনুমতিতে অন্য সংগঠনের ক্রেস্ট ও ছবি ব্যবহার করে ডিজিটাল জালিয়াতির অভিযোগে অভিযুক্ত সেই বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (ববি) শিক্ষার্থী শাহবাজ মিঞা শোভনের বিরুদ্ধে এবার আরো চাঞ্চল্যকর তথ্য পাওয়া গেছে। অভিযুক্ত শিক্ষার্থী কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল (সিএসই) বিভাগে অধ্যয়নরত। 

গত ৬ জুন একটি পত্রিকায় ‘ববি শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে ডিজিটাল জালিয়াতির অভিযোগ’ শিরোনামে সংবাদ প্রকাশের পর বিষয়টি সকলের সামনে আসে এবং একে একে সকলে মুখ খুলতে শুরু করেছেন। এছাড়া তার বিরুদ্ধে মধ্যরাতে শিক্ষার্থী হামলার মতো গুরুতর ঘটনার একটি অভিযোগ বিচারাধীন অবস্থায় রয়েছে। 

বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের কাছে অভিযুক্ত ওই শিক্ষার্থী সবসময় নিজেকে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড-২০২০ প্রাপ্ত সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি দাবি করলেও বাস্তবে ওই সংগঠন জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড পায়নি। বর্তমানেও তিনি জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত বলে সর্বমহলে প্রচার করলেও বাস্তবতা ভিন্ন। 

১৭ নভেম্বর ২০২০ প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় ‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড-২০২০’ এর বিজয়ী হিসেবে ৩০টি সংগঠনের নাম ঘোষণা করে যেখানে ঐ শিক্ষার্থীর সংগঠন জাগ্রত তারুণ্যের নাম নেই। এছাড়া অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্তির ক্ষেত্রে তিনি যে সকল কর্মকাণ্ডের ছবি দিয়েছেন তা নিয়েও আছে ধোঁয়াশা। 

এর আগে গত ১৬ নভেম্বর ২০২০ তারিখ ইয়াং বাংলা কর্তৃক প্রায় ৬০০টি আবেদনকারী সংগঠন থেকে ৪৭ জন ফাইনালিস্টের সংগঠনের নাম ঘোষণা করে এবং সেখান থেকেই পরবর্তীতে বিভিন্ন ক্যাটাগরি ও সাব ক্যাটাগরিতে ৩০টি সংগঠন কে বিজয়ী ঘোষণা করা হয়। ফাইনালিস্টের তালিকায় ৪৪ তম অবস্থানে ছিলো জাগ্রত তারুণ্য। ফলে তিনি বিজয়ীদের নাম ঘোষণার ভার্চুয়াল অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের সুযোগ পান। সেই ছবি ব্যবহার করে ঐ শিক্ষার্থী সর্বমহলে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত বলে প্রচার করছেন। 

এ বিষয়ে সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) এর সমন্বয়ক তন্ময় আহমেদ বলেন, ‘টপ ফিফটির মধ্যে থাকলেই যে অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত সেটা বলা যাবে না। তবে তারা কোনো না কোনোভাবেই ইয়াং বাংলার সঙ্গে কানেক্টেড যার জন্য বিভিন্ন সময় প্রোগ্রামে ডাকা হয়। তার মানে এই না যে তারা অ্যাওয়ার্ডপ্রাপ্ত। যদি ফাইনালে অংশগ্রহণ করে বিজয়ী না হয়েও কেউ দাবি করে থাকে অ্যাওয়ার্ড প্রাপ্ত তবে সেটা অবশ্যই ভুল।’ 

এ বিষয়ে বাংলাদেশ মডেল ইয়ুথ পার্লামেন্ট (প্রতীকী যুব সংসদ) প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারপার্সন মো. আমিনুল ইসলাম (ফিরোজ মোস্তফা) বলেন, “জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড এর জন্য ২০২০ সালে ৩০টি সংগঠনকে জয়বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড বিজয়ী করে এবং ৪৭টি সংগঠনকে অ্যাওয়ার্ডের জন্য টপ ফাইনালিস্ট নির্বাচিত করা হয়। আমার জানামতে জাগ্রত তারুণ্য টপ ফাইনালিস্ট এ ৪৪ নম্বরে ছিল। জাগ্রত তারুণ্যকে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ডে অংশ নিতে আমি সব ধরনের পরামর্শ দিয়েছিলাম। তাদের যে কোন ইতিবাচক কাজে আমরা অবশ্যই খুশি। কিন্তু তাই বলে তারা নেতিবাচক কোনো কাজের সাথে যুক্ত হলে আমরা যারা যুব সংগঠন করি তারা কেউ সাপোর্ট করবো না। শোভন ও শাহেদ দুই ভাইকে আমি ব্যক্তিগতভাবে চিনি তারা কেন এমনটি করছে তা আপনার কাছ থেকে শুনে আমি বিব্রত বোধ করছি। কারন আমাদের নেটওয়ার্ক ইয়ুথ নেট ফর ক্লাইমেট জাস্টিস  ২০১৭ সালে জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড অর্জন করে। 

এ বিষয়ে অভিযুক্ত শাহবাজ মিঞা শোভনের সাথে কথা হলে তিনি সংবাদকর্মীকে মানহানি মামলা করার হুমকি দেন।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]