বাউফলে সরকারি টিউবওয়েল ব্যক্তিগত ভাবে ব্যবহার, স্থানীয়রা অসহায়


Barisal Crime Trace -FF প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ১০, ২০২২, ১০:০২ অপরাহ্ণ /
বাউফলে সরকারি টিউবওয়েল ব্যক্তিগত ভাবে ব্যবহার, স্থানীয়রা অসহায়

ক্রাইম ট্রেস ডেস্ক : পটুয়াখালীর বাউফলে সরকারী অর্থায়নে টিউবয়েল বসিয়ে নিজস্ব কাজে ব্যবহার করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। সরকার গ্রাম বাসীকে সুপেয় পানি ব্যবহারের জন্য ওই টিউবয়েলটি স্থাপন করে দিলেও বিষয়টি গত কয়েক বছর ধরে গ্রামবাসীর কাছে গোপন রেখেছে অভিযুক্ত পরিবারটি (যে বাড়িতে স্থাপন করা হয়েছে)। তারা গ্রামবাসী কে বলে এসেছে যে সরকার নয় নিজস্ব অর্থায়নে টিউবয়েলটি বসানো হয়েছে। গ্রামবাসী যেন কোন ভাবেই বিষয়টি জানতে না পারে সেজন্য সরকারী ভাবে প্রকল্পের নামসহ লেখা অন্যান্য অংশটুকু মাটি টিয়ে ঢেকে রেখেছিলেন তারা।

এমনকি টিউবয়েলের আশে পাশে টিনের বেড়া দিয়ে নিজস্ব ব্যবহারের মত আটকিয়ে রেখেছিলেন ও ই পরিবারটি। গত কয়েক দিন পূর্বে বিষয়টি জানতে পারে গ্রামবাসী। এর পরই এ নিয়ে গ্রামবাসীর মধ্যে উত্তেজনা বিরাজ করছে। বাউফল উপজেলার মদনপুরা ইউনিয়নের ৬নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা দরগাবাড়ি সংলগ্ন মতলেব গাজীর বাড়িতে এ ঘটনা ঘটেছে। তার ছেলে হাসান গাজী হাইকোর্টের সহকারী প্রোগ্রামার। এলাকাবাসীর অভিযোগ ছেলের বুদ্ধি পরামর্শেই বাবা মতলেব গাজী টিউবয়েল নিয়ে এমন কান্ড ঘটিয়েছেন। তারা ইউনিয়ন পরিষদ ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে এর প্রতিকার চেয়েছেন।

সরেজমিনে শনিবার সকাল ৯টার দিকে গিয়ে দেখা যায়, মাটি দিয়ে চাপা দেয়া রয়েছে টিউবয়েলের নাম ফলকটি। মাটিগুলো সরিয়ে দেখা গেছে টিউবয়েলের সানে লেখা আছে এলজিএসপি-৩, অর্থবছর ২০১৮-১৯, প্রকল্পের নাম ৬ নং ওয়ার্ডের মতলেব গাজীর বাড়িতে গভীর নলকূপ স্থাপন।

টিউবয়েলের সাথে আবার বিদ্যুৎ চালিত মটার লাগানো এবং চারিদিকে টিন দিয়ে সাথে সুপারি গাছের খোল দিয়ে বেড়া দেয়া। এসময় আঃ খালেক, আঃ সালাম, শহিদুল শরিফ, আল-আমিন সহ একাধিক স্থানীয় নারী পুরুষ অভিযোগ করে বলেন, ৩/৪ বছর হয় টিউবওয়েলটি বাপ-ছেলে মিলে তাদের বাড়িতে বসিয়েছে। ওই সময় আমরা জিঞ্জাসা করেছিলাম তখন তারা বলেছিল ৭০/৮০ হাজার টাকা ব্যয় করে নিজস্ব অর্থায়নে নিজস্ব ভাবে ব্যবহার করার জন্য টিউবওয়েলটি এনেছে। আমরা মাঝেমধ্যে খাবার পানির জন্য টিউবওয়েলে পানি নিতে আসলে বিভিন্ন ভাবে হুমকি ধামকি সহ গালিগালাজ করতো। পরে আর কেউ যেতনা পানি আনতে। দুরে একটি টিউবওয়েল বসানো সেখান থেকে পানি আনতো সবাই। স্থানীয়রা আরও বলেন,আমরা কয়েকদিন আগে বিষয়টি সাংবাদিকদের মাধ্যমে জেনেছি।

সাংবাদিকের কাছ থেকে আমরা এখন জানতে পারলাম যে এটা সরকারি টিউবওয়েল এবং সকল মানুষের জন্য উন্মুক্ত। আমরা এখন চেয়ারম্যান মেম্বার থেকে শুরু করে উপজেলা প্রশাসনের কাছে অনুরোধ জানাচ্ছি টিউবওয়েলটি স্থানীয়দের জন্য দ্রুত উন্মুক্ত করে দেয়া হোক এবং আমাদেরকে বিভিন্ন ভাবে এই টিউবওয়েলের জন্য হুমকি ধামকি সহ গালিগালাজ করেছে তার বিচারচাই। এ প্রসঙ্গে সাবেক মহিলা মেম্বারের স্বামী খোকন বলেন, টিউবওয়েলটি সরকারি। আমাদের সময়ে টিউবওয়েলটি বসানো হয়েছিল। যা সবার জন্য উন্মুক্ত। কিন্তু পরে শুনেছি যে তারা তাদের নিজস্ব ভাবে মটার মেশিন বসিয়ে বেড়া দিয়ে ব্যবহার করছে এবং স্থানীয় কাউকে ব্যবহার করতে দিচ্ছে না। এব্যাপারে জানতে অভিযুক্ত মতলেব গাজীর ছেলে হাচান গাজীকে ফোন দিলে প্রতিবেদককে বলেন,আমি এখন টাকা দিয়ে পরিষদ থেকে টিউবয়েল কিনে এনেছি। তাই শুধু আমরার পরিবার এটি ব্যবহার করছে।

৬ নং ওয়ার্ডের বতর্মান মেম্বার ইউনুছ আলী বলেন, এটা সরকারি টিউবওয়েল কিন্তু তারা নিজস্ব ভাবে ব্যবহার করছে। আমি একাধিকবার বলেছি উন্মুক্ত করার জন্য কিন্তু তারা করেনি। তবে এব্যাপারে চেয়ারম্যানের সাথে আলাপ করা হবে। চেয়ারম্যান গোলাম মোস্তফা বলেন, এ ব্যাপারে দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া হবে। বাউফল উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মোহাম্মদ আল-আমিন বলেন, সরকারী টিউবয়েল একক ভাবে ব্যবহার করা যাবে না। স্থানীয়রা এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ দিলে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।