ওজন কমাতে আপেল সিডার ভিনেগার ব্যবহারে যে ভুল করবেন না


Barisal Crime Trace -GF প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ১৮, ২০২২, ১২:২১ অপরাহ্ণ /
ওজন কমাতে আপেল সিডার ভিনেগার ব্যবহারে যে ভুল করবেন না

লাইফস্টাইল ডেস্ক : আপেল সিডার ভিনেগার কি সত্যিই ওজন কমায়? উত্তর হলো, হ্যাঁ। বেশ কয়েকটি গবেষণায় দেখা গেছে, এসিভি (আপেল সিডার ভিনেগার) খাবার খাওয়ার পরে গ্লুকোজ বেড়ে যাওয়া ঠেকায়। গ্লুকোজ কমে গেলে শরীরকে আগের মতো ইনসুলিন তৈরি করতে হয় না।

 

আর কম ইনসুলিনের কারণে শরীরে আরও চর্বি ভেঙে যায়, ফলে ওজন কমতে শুরু করে। আপেল সিডার ভিনেগার ইনসুলিন সংবেদনশীলতা উন্নত করে। এ কারণেই পেটের গভীরে চর্বি জমা হওয়ার ঝুঁকিও কমে।

আবার এসিভি’র ক্ষুধা কমাতেও সাহায্য করে। তাই বেশি খাওয়ার প্রবণতওি কমে। এজন্য প্রতিবার খাওয়ার অন্তত আধা ঘণ্টা আগে এজন্য পান করুন আপেল সিডার ভিনেগার। এটি আপনাকে দীর্ঘ সময়ের জন্য পূর্ণ বোধ রাখতে সহায়তা করে।

 

এসিভি’র যদিও অনেক গুণ, তবে স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞ বা পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিয়ে তবেই এই পানীয় পান করার পরামর্শ দেওয়া গয়। শুধু এসিভি পান করলেই যে ওজন কমবে তা কিন্তু নয়, এর পাশাপাশি শরীরচর্চাও নিশ্চিত করতে হবে।

 

তবে যারা নিয়মিত ওজন কমানোর জন্য এসিভি ব্যবহার করে আসছেন তারা এই কয়েকটি ভুল কখনো করবেন না। এতে বিপদে পড়তে পারেন, জেনে নিন কী করবেন আর কী করবেন না-

পাতলা করুন

এসিভি অত্যন্ত অ্যাসিডিক। তাই কখনো এটি সরাসরি পান করবেন না। তাহলে আপনার দাঁতের এনামেলের ক্ষতি হতে পারে। একই সঙ্গে পেট খারাপ হতে পারে। ১ টেবিল চামচ আপেল সিডার ভিনেগার ১ কাপ পানিতে মিশিয়ে পান করুন।

সালাদে ব্যবহার করবেন না

অত্যধিক এসিভি পান করা কিন্তু স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর হতে পারে। এজন্য সরাসরি এটি সালাদে ব্যবহার করবেন না। এক্ষেত্রে অলিভ অয়েল দিয়ে সালাদ ড্রেসিং করে তাতে সামান্য এসিভি মেশাতে পারেন।

খাওয়ার পরপরই পান করবেন না

খাবার খাওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই কখনো এসিভি পান করবেন না। এটি আপনার হজমে সমস্যা তৈরি করতে পারে। খাওয়ার ২০-৩০ মিনিট পর চাইলে পান করতে পারেন। তবে খাবার খাওয়ার আগে এসিভি পান করা সবচেয়ে ভালো।

বেশি পান করবেন না

ওজন কমানোর ক্ষেত্রে এসিভি উপকারী হওয়ায় অনেকেই ভাবেন বেশি পান করলে হয়তো দ্রুত ওয়েট লস হবে। তবে এ ধারণা সম্পূর্ণ ভুল।

অতিরিক্ত এসিভি শরীরের জন্য বিপজ্জনক হতে পারে। দিনে ২ টেবিল চামচের বেশি পান করবেন না এসিভি, আর অবশ্যই এতে পানি মেশাতে ভুলবেন না।

অনেকেই হয়তো ঘুমানোর আগে এসিভি পান করেন, তবে এটি ঠিক নয়। ঘুমানোর আগে এসিভি পান করলে গলা ও খাদ্যনালির ক্ষতি হতে পারে। তবে ঘুমনোর আগে পান করলেও আধা ঘণ্টা পর ঘুমাতে যান। সবচেয়ে ভালো হয় ডিনারের আগে পান করা।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া