আলোকিত হলো বরিশাল মহানগরী, জ্বলে উঠল সড়ক বাতি


Barisal Crime Trace -FF প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ২২, ২০২২, ৭:৫৭ অপরাহ্ণ /
আলোকিত হলো বরিশাল মহানগরী, জ্বলে উঠল সড়ক বাতি

স্টাফ রিপোর্টার, বরিশাল : পশ্চিম জোন বিদ্যুৎ বিতরন কোম্পানী-ওজোপাডিকো’র সাথে দেনা পাওনার দন্ধে দুদিন পরে বৃহস্পতিবার সন্ধায় বরিশাল মহানগরীর রাস্তার বাতি জ্বলেছে। ফলে দুই রাতের ভুতুরে পরিবেশের অবশান হয়েছে। নিরাপত্তাহীন নগরবাসীর মধ্যে স্বস্তি ফিরেছে। বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার রাত ৯টায় নগরীর বরিশাল ক্লাবে বিভাগীয় কমিশনারের মধ্যস্ততায় একটি সমঝোতা সভা অনুষ্ঠানেরও কথা রয়েছে। সভায় যোগ দিতে ওজোপাডিকো’র প্রধান প্রকৌশলী রাতে খুলনা থেকে বরিশালে পৌছেছেন।

বরিশাল সিটি করপোরেশনের স্ট্রিট লাইট ও পানির পাম্প সহ বিভিন্ন স্থাপনার বকেয়া বিদ্যুৎ বিল বাবদ প্রায় ৬০ কোটি টাকা পরিষোধে মন্ত্রনলয়ের নির্দেশে গত ৮ আগষ্ট নোটিস দেয় ওজোডিকো। পরে নগর ভবন থেকে প্রায় ৭৮ লাখ টাকা পরিষোধ করা হলেও অবশিষ্ট অর্থ পরিশোধে কোন ধরনের পদক্ষেপ গ্রহন না করায় মঙ্গলবার দুপুরে ওজোপাডিকো নগরীর ৪৮টি ষ্ট্রিট লইট সংযোগের ১৫টি বিচ্ছিন্ন করে দেয়। কিন্ত নগর ভভন থেকে নগরীর সব রাস্তার বাতি বন্ধ রাখা হয়।

তবে বিষয়টি নিয়ে নগর ভবন ও ওজোপাডিকো’র তরফ থেকে পরস্পর বিরোধী বক্তব্য পাওয়া গেছে। বুধবার রাতে সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ তার বাস বাসভবনে সাংবাদিকদের ব্রিফিংকালে উদ্ভুত পরিস্থিতির জন্য ওজোপাডিকো’র দায়িত্বশীলদের একগুয়েমীকে দায়ী করেন। বকেয়া থেকে প্রায় ৮০ লাখ টাকা পরিশোধের পরেও সিটি করপোরেশনের রাস্তার বাতির সংযোগ বিচ্ছিন্ন করাকে জনস্বার্থে বিরোধী বলেও দাবী করে অবিলম্বে তা পূণর্বহালের দাবী জানায় নগর ভবনের দায়িত্বশীল মহল। এ ব্যাপারে বিদ্যুৎ মন্ত্রনালয়ে যোগোযোগের কথাও জানান তিনি। বিষয়টিকে অমানবিক ও জনস্বার্থ বিরোধী বলেও মনে করছে নগর ভবন ।

তবে এব্যাপারে ওজোপাডিকো’র তত্ববধায়ক প্রকৌশলীর সাথে আলাপ করা হলে তিনি জানান, বিদ্যুৎ ও জ্বালানী মন্ত্রনালয়ের নির্দেশে গত ৮ আগষ্ট বরিশাল সিটি করেপারেশনের কাছে বকেয়া প্রায় ৫৯ কোটি টাকা পরিষোধে নোটিশ দেয়া হয়েছিল। নোটিশ প্রাপ্তির পরে নগর ভবন থেকে প্রায় ৭৮ লাখ টাকা পরিষোধ করা হয়েছে। বিষয়টি উর্ধতন কতৃপক্ষকে অবহিতও করা হয়েছে। বকেয়া আদায়ে সরকারের কঠোর অবস্থানের প্রেক্ষিতে ও নির্দেশেই সিটি করপোরেশনের স্ট্রিট লাইটের প্রায় ৪৮টি সংযোগের মধ্যে মাত্র ১৫টি সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়েছে। কিন্তু মঙ্গলবার সন্ধা থেকে সিটি করপোরেশন নগরীর সব রাস্তার বাতি বন্ধ রেখেছে বলেও দাবী করেন ওজোপাডিকো’র কর্মকর্তাগন। এর বাইরে ৪৮টি পানির পাম্পের সংযোগ ছাড়াও সিটি করপোরেশনের রাস্তার বাতির অন্য কোন সংযোগ এবং অফিস সহ বিভিন্ন স্থাপনার সংযোগ বিচ্ছিন্ন করা হয়নি বলেও জানায় ওজোপাডিকো।

ওজোপাডিকো’র মতে, প্রতিমাসে বরিশাল সিটি করপোরেশন রাস্তার বাতি ও পানির পাম্প সহ বিভিন্ন সংযোগের বিপরিতে প্রায় ৪৫ লাখ টাকার বিদ্যুৎ ব্যাবহার করে থাকে। তবে গত প্রায় ৫ বছরে নগর ভবন থেকে ওজোপডিকো’র হোল্ডিং ট্যাক্স ও বিভিন্ন দাবী সমন্বয় সহ প্রায় পৌনে ২ কোটি টাকার মত পরিষোধ করা হয়েছে। ফলে বকেয়ার পরিমান প্রতিমাসেই বেড়ে এখন প্রায় ৬০ কোটির কাছে পৌছেছে।