তজুমদ্দিনে বিয়ের প্রলোভনে কিশোরীকে ধর্ষণ, থানায় লিখিত অভিযোগ


Barisal Crime Trace -FF প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ২২, ২০২২, ৮:৩৬ অপরাহ্ণ /
তজুমদ্দিনে বিয়ের প্রলোভনে কিশোরীকে ধর্ষণ, থানায় লিখিত অভিযোগ

স্টাফ রিপোর্টার, বোরহানউদ্দিন : ভোলার তজুমদ্দিন উপজেলার উত্তর চাপড়ী ৬ নং ওয়ার্ডের ছালাউদ্দিনের মেয়ে ১৮ বছরের কিশোরীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে। একই উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের মফিজ মাঝির ছেলে দ্বীন ইসলাম (১৯) এর বিরুদ্ধে এ ধর্ষণের অভিযোগ করেন ওই ধর্ষিতার বাবা ছালাউদ্দিন। বুধবার দুপুরে এ অভিযোগ করেন তিনি।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, ধর্ষক দীন ইসলাম তাদের বাড়ীর পাশে আত্মিয়র বাসায় বেড়াতে আসেন। তার মেয়েকে একা পেয়ে প্রেমের প্রস্তাব দিত ধর্ষক দ্বীন ইসলাম। বিবাহ করিবে বলিয়া বিভিন্ন প্রলোভন দেখাইতে থাকে। তার কথা বিশ্বাস করিয়া তার প্রেমের প্রস্তাবে রাজি হয় তার মেয়ে। তাদের মধ্যে দীর্ঘ ২ বছর প্রেমের সম্পর্ক চলে। গত ০২-০৯-২০২২ ইং তারিখে তার মেয়েকে বোরহানউদ্দিন উপজেলার কুঞ্জের হাট বাজারে নেয় দ্বীন ইসলাম।

সেখান থেকে তজুমদ্দিন উপজেলার সোনাপুর ইউনিয়নের ৮ নং ওয়ার্ডের দ্বীন ইসলামের এক আত্মিয়র বাড়িতে নেয় তার মেয়েকে। সেখানে তার মেয়েকে বিভিন্ন প্রলোভন ও ভয়ভীতি দেখাইয়া তাহার ইচ্ছার বিরুদ্ধে তাহাকে ধর্ষণ করে দীন ইসলাম। গত ০৩ -০৯-২০২২ ইং তারিখে তাহার মেয়েকে দীন ইসলামের বাড়িতে নিয়ে যায় ধর্ষক দীন ইসলাম। সেখানে আমার মেয়েকে দেখে দীন ইসলামের আত্মিয় স্বজন ডাক চিৎকার দিলে আশেপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে এসে হাজির হয়।

স্থানিয় শাহাবুদ্দিন মেম্বারকে খবর দেয় তারা। পরে আমার মেয়েকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করা হয়েছে বলে বিষয়টি প্রমাণিত হয়। তাই স্থানিয় মেম্বার উপস্থিত লোকজনের সামনে ধর্ষক দীন ইসলামের ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করে। আমার মেয়ে স্থানিয় শালিশ না মানায় তাকে পিটিয়ে গুরুতর আহত করে দীন ইসলামসহ তার পরিবার। গুরুতর আহত অবস্থায় আমার মেয়েকে হত্যার হুমকি দিয়ে রিক্সাযোগে আমাদের বাড়িতে পাঠায় তারা।

তজুমদ্দিন থানায় লিখিত অভিযোগ করলেও মেয়েকে ধর্ষণের বিচার পায়নি তিনি। অন্যদিকে ধর্ষক দীন ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তাকে খুঁজে পাওয়া যায়নি। তবে স্থানিয়রা জানান,ঘটনার পর থেকেই এলাকা থেকে পালাতক রয়েছে ধর্ষক দীন ইসলাম। স্থানিয় মেম্বার শাহাবুদ্দিনের কাছে জানতে চাইলে তিনি বলেন,এ ঘটনার বিষয়ে সাংবাদিকদের কাছে কোন তথ্য দিবেন না তিনি।

তবে ধর্ষিতার বিষয়ে আপত্তিকর মন্তব্য করেন তিনি। এ ঘটনায় ধর্ষিতার বাবা মোঃ ছালাউদ্দিন বাদী হয়ে তজুমদ্দিন থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। তজুমদ্দিন থানার অফিসার ইনচার্জ মোঃ মুরাদ হোসেন জানান,ছেলে ও মেয়ের বাড়ি তজুমদ্দিন উপজেলায়।তবে বোরহানউদ্দিন উপজেলার কুঞ্জেরহাট বাজারে একটি হোটেলে ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।তাই তাদেরকে বোরহানউদ্দিন থানায় অভিযোগ করার জন্য বলেছি।