ভোলায় পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় আটক ৫


Barisal Crime Trace -FF প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ২৫, ২০২২, ১১:০৩ পূর্বাহ্ণ /
ভোলায় পুলিশের ওপর হামলার ঘটনায় আটক ৫

স্টাফ রিপোর্টার, ভোলা : ভোলায় স্ত্রীকে ইভটিজিংয়ের প্রতিবাদ করায় পুলিশ কনস্টেবল এনামুল ব্যাপারীর (২৪) ওপর হামলার ঘটনায় পাঁচজনকে আটক করেছে ভোলার থানা পুলিশ। শনিবার বিকেলে সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ফরাদ সরদার সংবাদ সম্মেলনে বিস্তারিত তুলে ধরেন।

গ্রেফতারকৃতরা হলেন- মো: ইব্রাহিম (১৬), মো: রাজিব (১৬), মো: রাকিব হোসেন (২১), মো: তারেক পাঠান (১৯) ও মো: তোহান আহম্মেদ (২৩)। সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, ভোলা জেলার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সাইফুল ইসলাম, বিপিএম, পিপিএম-এর দিক-নির্দেশনায় বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে তাদের গ্রেফতার করা হয়।

তিনি আরো জানান, গত শুক্রবার সন্ধ্যায় ভোলা পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডস্থ জেলা পরিষদের উত্তর-পশ্চিম পাশের পার্কের ভেতরের বক ফোয়ারার কাছে পুলিশ সদস্য মো: এনামুল বেপারী তার স্ত্রীকে নিয়ে বেড়াতে যান। তখন দুষ্কৃতিকারীরা ভিকটিমের স্ত্রীকে উত্যক্ত করাসহ অশালীন কথাবার্তা বললে তিনি এর প্রতিবাদ করেন। তখন তারা এনামুলকে অকথ্যভাষায় গালাগালিসহ মারতে উদ্ধ্যত হয়।

ভিকটিম এনামুল বাধা দেন এবং নিজেকে ভোলা জেলা পুলিশের সদস্য বলে পরিচয় দিলে দুষ্কৃতিকারীরা ‘পুলিশ হইছোস তো কি হইছে’ এই বাক্য বলে আরো ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে ও তার স্ত্রীকে চারদিক থেকে ঘিরে ধরে এলোপাতাড়ি কিল, ঘুষি, লাথি মেরে শরীরের বিভিন্নস্থানে জখম করে। তখন দুষ্কৃতিকারীরা ভিকটিমকে হত্যার উদ্দেশ্যে তাদের হাতে থাকা ধারালো দেশীয় অস্ত্র দিয়ে তার গলা, কানের নিচে, পেটের বাম পাশে ও পিঠেসহ শরীরের বিভিন্নস্থানে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে।

তিনি আরো জানান, এনামুলের স্ত্রী উর্মি আক্তার তার স্বামীকে দুষ্কৃতিকারীদের হাত থেকে বাঁচাতে গেলে বিভিন্ন স্পর্শ কাতর স্থানে হাত দিয়ে যৌন-নিপীড়নসহ টানা হেচড়া করে জখম করেন। এ সময় ভিকটিমের স্ত্রীর গলায় থাকা এক ভরি ওজনের স্বর্ণের চেইন, যার মূল্য (অনুমান ৮৩ হাজার) টাকা দুষ্কৃতিকারীরা নিয়ে যায়।

তখন ভিকটিমসহ তার স্ত্রীর চিৎকারে আশপাশের লোকজন ঘটনাস্থলে গেলে দুষ্কৃতিকারীরা প্রাণ নাশের হুমকি ও ভয়ভীতি দেখিয়ে দৌড়ে পালিয়ে যায়। উপস্থিত স্থানীয় লোকজন পুলিশ সদস্য জেনে থানা পুলিশকে অবহিত করেন। পরে থানা পুলিশ ভিকটিমকে ভোলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃতরা ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেন। তাদের দেয়া তথ্য পর্যবেক্ষণ করে ঘটনার সাথে জড়িত অন্য সদস্যদেরও গ্রেফতারের অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলে জানায় পুলিশ।