আগৈলঝাড়ায় লক্ষ্মী দশহরার মেলায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য সেতু বন্ধন


Barisal Crime Trace -GF প্রকাশের সময় : অক্টোবর ১৩, ২০২২, ৮:৩১ অপরাহ্ণ /
আগৈলঝাড়ায় লক্ষ্মী দশহরার মেলায় সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির অনন্য সেতু বন্ধন

আগৈলঝাড়া প্রতিনিধি : দীর্ঘ ৩৪ বছরের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির সেতু বন্ধনের অনন্য দৃষ্টান্তর এতিহ্য রেখে বরিশালের আগৈলঝাড়ায় লক্ষ্মী পূজা পরবর্তি ঐতিহ্যবাহী লক্ষ্মী দশহরা ও মেলা বুধবার বিকেলে সরকারী শহীদ আব্দুর রব সেরনিয়াবাত ডিগ্রী কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত হয়েছে।

উপজেলা কেন্দ্রীয় পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সুনীল কুমার বাড়ৈ ও সাধারণ সম্পাদক বিপুল দাস জানান, ১৯৮৮ সাল থেকে প্রতি বছর এই লক্ষ্মী দশহরার মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আসছে। ধনের দেবী লক্ষ্মী পূজার এক দিন পরে প্রতি বছর এ মেলা অনুষ্ঠিত হয়ে আসলে ডিগ্রী পরীক্ষার কারণে এবছর মেলার তারিখ পরিবর্তন করেছেন আয়োজকরা।

ধর্মীয় দৃষ্টিকোন থেকে ঐতিহ্যগত কারণে লক্ষ্মী দশহরা ও মেলা অনুষ্ঠিত হলেও মূলতঃ আগৈলঝাড়া উপজেলাসহ আশপাশের কয়েক উপজেলার সকল বয়সী, সকল ধর্মের লোকজনের কাছে এই মেলাটি উৎসবে পরিনত হয়েছে। করোনার কারণে গত দুই বছর লক্ষèী দশহারার মেলা অনুষ্ঠিত না হওয়ায় ৩৪ তম দশহরার মেলাটি লোকে লোকারণ্য হয়ে সকল ধর্মের মানুষের কাছে অসম্প্রদায়িক চেতনার সংস্কৃতিতে পরিণত হয়েছে।

সকাল থেকেই মেলার প্রধান আকর্ষণ লক্ষèী প্রতীমা নিয়ে ভক্তরা অস্থায়ী সু-সজ্জিত মন্দির নির্মাণ করে ওই মন্দিরে সামনে বাদ্য-বাজনা আর উলুধ্বনীর সাথে চলে আড়তি ও নাচ-গান। অন্যদিকে মেলায় ফার্নিচারের মালামালসহ ঘর গৃহস্থালীর কাজে ব্যবহার্য সকল প্রকার প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র নিয়ে পশরা সাজিয়ে বসে দোকানীরা। গভীর রাত পর্যন্ত শিশু, নারী-পুরুষ ক্রেতা আর দর্শনার্থীর সমাগম ছিল মেলায়।

সন্ধ্যায় কলেজ মাঠের মঞ্চে আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি সুনীল কুমার বাড়ৈর সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রইচ সেরনয়াবাত, উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সাখাওয়াত হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক আবু সালেহ মো. লিটন, পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও বাকাল ইউপি চেয়ারম্যান বিপুল দাস, ভাইস চেয়ারম্যান মলিনা রানী রায়, পুজা উদযাপন পরিষদের যুগ্ম সম্পাদক অনিমেষ মন্ডলসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ। এসময় ইউপি চেয়ারম্যান গোলাম মেস্তফা সরদার, ইলিয়াস তালুকদার, শফিকুল হোসেন টিটু, ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক জাকির পাইকসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দরা উপস্থিত ছিলেন।

থানা অফিসার ইন চার্জ মো. গোলাম ছরোয়ারের নেতৃত্বে ওসি (তদন্ত) মো. মাজহারুল ইসলামের তত্বাবধানে আইন শৃংখলা বাহিনীর সদস্যদের কঠোর নজরদারির মধ্যে মেলায় আগতরা ক্রয় করেন তাদের নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রসহ কাঠের তৈরি আসবাবপত্র, সৌখিন দ্রব্যাদি ও বাহারী খেলনা।

পূজারী ও ভক্তরা উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে লক্ষ্মী প্রতীমা নিয়ে প্রতিযোগীতায় অংশগ্রহণ করে বিভিন্ন বাদ্য-বাজনা বাজিয়ে মাতিয়ে তোলেন পুরো মেলা প্রাঙ্গন।

মেলায় সু-সজ্জিত প্রতীমার প্রতীযোগীতা, ঢাকী, বাঁশী, নৃত্য, ধর্মীয় গান ও সাংস্কৃতিক প্রতিযোগীতায় অংশ গ্রহণকারীদের মধ্যে প্রতিযোগীতার ভিত্তিতে ছাড়াও সকল প্রতিযোগীকে সান্তনা পুরস্কার প্রদান করেন অতিথিরা।