আগৈলঝাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর নতুন ঘর পাচ্ছেন আরও ৭৫ পরিবার


Barisal Crime Trace -GF প্রকাশের সময় : অক্টোবর ১৯, ২০২২, ৬:৪৬ অপরাহ্ণ /
আগৈলঝাড়ায় প্রধানমন্ত্রীর নতুন ঘর পাচ্ছেন আরও ৭৫ পরিবার

নিজস্ব প্রতিবেদক : বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলাকে গৃহহীন ঘোষণার লক্ষে ভূমিহীন ও গৃহহীন ১৪৭ পরিবারের পরে চতুর্থ পর্যায়ে এবার প্রধানমন্ত্রীর নতুন পাকা ঘর পাচ্ছেন আরও ৭৫টি অসহায় পরিবার। ৭৫টি পরিবারের মধ্যে ৩৫টি পরিবারের বসতঘর নির্মাণের জন্য বুধবার বিকেলে সরকারের পক্ষে গৃহ নির্মাণ ও টাস্কফার্স কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সাখাওয়াত হোসেন গ্রহীতা হিসেবে দলিল সম্পন্ন করেছেন।

 

 

 

দলিল সম্পাদনের সময়ে ইউএনও ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যার বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুর রইচ সেরনিয়াবাত, উপজেরা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার ও গৃহ নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সদস্য সচিব মো. মোশারফ হোসেন, উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি সুনীল কুমার বাড়ৈ।

 

 

উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার মো. মোশারফ হোসেন বরিশালক্রােইমট্রেসডটকম’কে জানান, “আশ্রয়ণের অধিকার, শেখ হাসিনার উপহার’’ এই শ্লোগান নিয়ে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্ম শতবার্ষিকী উপলক্ষে প্রধানমন্ত্রীর আশ্রয়ণ প্রকল্প-২ এর আওতায় ‘ভূমিহীন ও গৃহহীন’ পরিবারের জন্য গৃহনির্মাণ কাজ শুরু করেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। ওই প্রকল্পের আওতায় উপজেলার বাকাল ইউনিয়নের বাকাল মৌজায় ৪২লাখ ৫৫হাজার ২শ ৭টাকা বরাদ্দে ৭০শতক জমি ক্রয় করা হয়েছে। ওই ৭০ শতক জমিতে চতুর্থ পর্যায়ে ৩৫টি পরিবারের জন্য পাকা বাড়ি নির্মাণ করা হবে। এ লক্ষে সরকারের পক্ষে দলিল সম্পন্ন করা হয়েছে। প্রতিটি গৃহ নির্মাণে সরকারী ব্যয় বরাদ্দ ধরা হয়েছে ২লাখ ৮৪হাজার ৫শ টাকা।

 

 

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. সাখাওয়াত হোসেন বরিশালক্রােইমট্রেসডটকম’কে জানান, সরকারীভাবে ৩৫টি গৃহ নির্মাণের জন্য ব্যয় বরাদ্দ সাপেক্ষ ৭০ শতক জমি ক্রয় করা হয়েছে। এছাড়াও উপজেলা গৈলা ইউনিয়নের টেমার মৌজায় সরকারের খাস খতিয়ানভুক্ত অবৈধ দখলদারদের কাছ থেকে ৫৮শতক জমি উদ্ধার করা হয়েছে। ওই ৫৮শতক নীচু জমিতে ঘর নির্মাণের উপযোগী করতে মাটি ভরাটের জন্য ৩৩দশমিক ১৭৩ মেট্টিক টন চাল বরাদ্দ পাওয়া গেছে। প্রতিটি ঘরের জন্য ২লাখ ৮৪হাজার ৫৬শ টাকা বরাদ্দ হিসেবে ২কোটি ১৩লাখ ৩৭হাজার ৫শ টাকা সরকারী বরাদ্দ পাওয়া গেছে। খুব শিঘ্রই বাকাল ইউনিয়নে ৩৫টি পাকা ঘর নির্মান কাজ শুরু করা হবে বলেও জানান তিনি।

 

অন্যদিকে মাটি ভরাটের পরে টেমার গ্রামে ঘর নির্মাণের কাজ শুরু করবেন বলে জানান ইউএনও মো. সাখাওয়াত হোসেন। এর আগে উপজেলায় ১৪৭টি ভূমিহীন ও গৃহহীন পরিবার মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর প্রকল্পের আওতায় নতুন পাকা বাড়ি পেয়ে সেই বাড়িতে পরিবার সদস্যদের নিয়ে আধুনিকভাবে জীবন যাপন করছেন।