ইসির অবস্থানে সাবেকদের সমর্থন


Barisal Crime Trace -GF প্রকাশের সময় : অক্টোবর ২০, ২০২২, ৩:০০ অপরাহ্ণ /
ইসির অবস্থানে সাবেকদের সমর্থন

বিশেষ প্রতিবেদক : অনিয়মের কারণে মাঝপথে গাইবান্ধা-৫ আসন উপনির্বাচন বন্ধ করার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন সাবেক সিইসি, নির্বাচন কমিশনার ও ইসি সচিবরা। এ নির্বাচনের অনিয়মের সঙ্গে জড়িতদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা নিয়ে কমিশনের শক্ত অবস্থানের বার্তা দেওয়ার পরামর্শও দেন তারা। বলেছেন, দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে বর্তমান নির্বাচন কমিশন ভোট বন্ধ নিয়ে প্রশ্নের মুখে পড়বে।

 

এদিকে আগামী দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহারের পক্ষে-বিপক্ষে কথা বলেছেন সাবেক ইসিরা। এ ছাড়া রাজনৈতিক সরকারের অধীনে নির্বাচনে ডিসি-এসপিরা সরকারের কথাই শুনবেন, নির্বাচন কমিশনের নয়। তাই সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য মাঠপ্রশাসনের ওপর নিয়ন্ত্রণ রাখা এবং সংসদ নির্বাচনের আগেই ডিসি-এসপিদের সঙ্গে দূরত্ব দূর করার পরামর্শ দিয়েছেন তারা। অন্যদিকে জাতীয় পরিচয়পত্রের (এনআইডি) সঙ্গে ইভিএম ও ভোটার তালিকার ডাটাবেজ সম্পর্কিত। তাই এনআইডি কার্যক্রম অন্য সংস্থার হাতে গেলে ম্যানিপুলেট হতে পারে; এ ক্ষেত্রে ভোটার তালিকার শুদ্ধতা নিয়ে প্রশ্ন উঠবে, রাজনৈতিকভাবে এটি ব্যবহার হবে; ইসি সুষ্ঠু নির্বাচনে বাধার মুখে পড়বে এবং নির্বাচন কমিশনের স্বাধীনতা ক্ষুণœ হবে বলে মনে করছেন সাবেক সিইসি, ইসি ও সচিবরা।

 

 

গতকাল রাজধানীর আগারগাঁওয়ে নির্বাচন ভবনে সাবেক সিইসি, নির্বাচন কমিশনার ও সচিবদের পরামর্শ অভিজ্ঞতা শোনেন বর্তমান নির্বাচন কমিশনের সদস্যরা। তিন ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক শেষে সিইসি কাজী হাবিবুল আউয়াল বলেন, ‘গাইবান্ধায় আমরা যে অ্যাকশনটা নিয়েছি, উনারা বলেছেন এটা সঠিক হয়েছে। আইনগতভাবে ও সাংবিধানেকভাবে ঠিক হয়েছে।

 

 

এদিকে এনআইডি সেবা ইসি থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগে স্থানান্তরের বিরোধিতা করেছেন সাবেকরা। এ বিষয়ে সিইসি বলেন, ‘এনআইডিটা এখানেই থাকা প্রয়োজন-এক বাক্যে সবাই এ কথাটা বলেছেন। উনাদের যে নলেজ রয়েছে আমার সেটা নেই।’ তিনি জানান, ইভিএম নিয়েও পক্ষে-বিপক্ষে কথা হয়েছে। অধিকাংশই পক্ষে বলেছেন। এটা নিয়ে জনমনে একটা নেগেটিভ পারসেপশন রয়েছে। এ পারসেপশনটা দূর করতে হবে। সেই সঙ্গে জাতীয় নির্বাচনের দিকে নজর দেওয়ার বিষয়টিও তুলে ধরেন আলোচকরা।

 

১২ অক্টোবর সিসি ক্যামেরায় ব্যাপক অনিয়ম ধরা পড়ার পর নির্বাচন কমিশন ভোটের মাঝপথে বন্ধ করে দেয় উপনির্বাচন। গতকাল সাবেকদের বৈঠকে কমিশন নিজেদের পক্ষ থেকে কোনো বক্তব্য না দিলেও গাইবান্ধা নির্বাচন বন্ধের সার্বিক বিষয়টি তুলে ধরা হয়। সিইসির মতে, এটা ক্রিটিক্যাল ছিল। প্রথমবারের মতো বড় ধরনের কোনো পদক্ষেপ নির্বাচন কমিশন নিয়েছে এবং এটা যথেষ্ট সেনসেশন ক্রিয়েট করেছে সব মহলে। এটা নিয়ে পক্ষে-বিপক্ষে বক্তব্য হয়েছে।

 

গাইবান্ধায় দায়ীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নিলে আপনাদের উদ্দেশ্য প্রশ্নবিদ্ধ হবে- সাবেক একজন সহকর্মীর এমন পরামর্শের  বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে সিইসি বলেন, ‘অপেক্ষা করেন। আমরা তদন্ত কমিটি করেছি; রিপোর্টটা আসুক। তারপর আপনারা দেখেন আমরা কোনো পদক্ষেপ নিই কি না। ওয়েট অ্যান্ড সি। কাজেই একটু অপেক্ষা করতে হবে।

 

এ সভায় সাবেক সিইসি আবদুর রউফ, কাজী রকিবউদ্দীন আহমেদ, কে এম নূরুল হুদা; সাবেক নির্বাচন কমিশনার এম সাখাওয়াত হোসেন, মো. শাহনেওয়াজ, রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম; সাবেক ইসি সচিব এম এম রেজা, ড. মোহাম্মদ সাদিক, সিরাজুল ইসলাম, মোহাম্মদ আবদুল্লাহ, হেলালউদ্দীন আহমেদ এবং ইসির সাবেক অতিরিক্ত সচিব জেসমিন টুলী ও মোখলেছুর রহমান অংশ নেন। এদিন মোট ২৮ জনকে আমন্ত্রণ জানালেও উপস্থিত হয়েছেন ১৪ জন। প্রধান নির্বাচন কমিশনার কাজী হাবিবুল আউয়াল, নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা, আনিছুর রহমান ও মো. আলমগীর উপস্থিত ছিলেন বৈঠকে। অপর নির্বাচন কমিশনার আহসান হাবিব খান দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে রয়েছেন।

 

এনআইডি ইসিতে রাখার পক্ষে সবাই, ইভিএমের পক্ষে-বিপক্ষে মত : অনিয়মের কারণে গাইবান্ধা-৫ উপনির্বাচন বন্ধের সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছেন সাবেক নির্বাচন কমিশনাররা। বর্তমান কমিশনের সিদ্ধান্তকে সঠিক উল্লেখ করে তারা বলেন, কমিশন যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে ঠিকই নিয়েছে। আইনের মধ্যে থেকেই তারা এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে। জাতীয় পরিচয়পত্র (এনআইডি) সেবা নির্বাচন কমিশন থেকে সরকারের হাতে স্থানান্তরের বিরোধিতা করেছেন সাবেক সিইসি, ইসি ও সচিবরা।

 

সরকার এনআইডি সেবা ইসি থেকে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সুরক্ষা সেবা বিভাগে স্থানান্তরের সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এর সর্বশেষ পদক্ষেপ হিসেবে জাতীয় পরিচয়পত্র আইন সংশোধনের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। ইতিমধ্যে আইনের খসড়া মন্ত্রিসভায় অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

 

এনআইডি সরকারের হাতে স্থানান্তর প্রশ্নে সাবেক সিইসি আবদুর রউফ সাংবাদিকদের বলেন, ‘জাতীয় পরিচয়পত্রের তথ্য বিভিন্ন অফিসে থাকতে পারে। এতে অসুবিধা নেই। কিন্তু নির্বাচন কমিশন যেহেতু এর প্যারেন্ট, মূলটা তারাই ইনিশিয়েট করবে। এটা তাদের কাছে না থাকলে ভোটকেন্দ্রে গিয়ে যদি দেখেন এনআইডিতে একটি ভোটার লিস্টে অন্যটা, তখন আরেকটা গ-গোল লাগবে। আমার কথা হলো বেইজটা ইসির হাতে থাকবে। অন্যদের লাগলে সেটা নেবে।

 

সাবেক এই সিইসি বলেন, ‘যখন ভোটাররা ভোট দিতে পারেন না, একজনের ভোট আরেকজন দেন, তখন নির্বাচন কমিশন বসে থাকবে কেন। স্বাধীন নির্বাচন কমিশনের এই অধিকার আছে। তাদের চোখের সামনে ধরা পড়ছে। ভোট দিতে পারছে না। কারচুপি হচ্ছে। তারা নির্বাচন বন্ধ করে দিয়েছে। আমরা বলেছি দরকার হলে বারে বারে বন্ধ করবেন। জাতিকে উদ্ধার করার চেষ্টা করেন।’ ইভিএম প্রশ্নে তিনি বলেন, কমিশন চেষ্টা করতে থাকুক। মানুষ যদি শিক্ষিত হয় তাহলে হবে।

 

সাবেক সিইসি কাজী রকিব উদ্দীন আহমেদ ইভিএম প্রসঙ্গে জনগণকে সচেতন করা ও ব্যাপক প্রচার করার পরামর্শ দিয়েছেন। তিনি বলেন, ভোটার তালিকা থেকেই এনআইডি এসেছে। এটা এখানে থাকা উচিত। এনআইডি ইসির কাছে না থাকলে লোকজন ভোটার হতে চাইবে না। মানুষের ভোটার হওয়ার অতটা আগ্রহ নেই। এখন এনআইডির জন্যই আগ্রহ বেশি। এই অ্যাডভানটেজটা এখান থেকে সরানো উচিত নয়। এতে গ-গোল হতে পারে।

 

সাবেক সিইসি কে এম নূরুল হুদা বলেন, গাইবান্ধার বিষয়ে ইসি তথ্য-উপাত্তের ভিত্তিতে সঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তার এই ক্ষমতা আছে। সাবেক এই সিইসি বলেন, ‘যেসব জায়গায় ইভিএমে ভোট হয়েছে, সেখানে ৬০-৮০ শতাংশ পর্যন্ত ভোট পড়েছে। সুষ্ঠু নির্বাচন হয়েছে। আমাদের এখানে ভোটের পরিবেশ ভালো থাকে না। কেন্দ্র দখল হয়। ভোট ডাকাতি হয়। এখানে ১০০ পার্সেন্ট ভোট হয়। কাজেই এখানে ব্যালটে নির্বাচনের চেয়ে ইভিএম ব্যবহারের মাধ্যমে নির্বাচনী সংস্কৃতি পরিবর্তন করতে হবে।

 

তিনি বলেন, এনআইডি নির্বাচন কমিশনের তৈরি একটি জিনিস। এটা নির্বাচন কমিশনের হাতে থাকলে সরকারের কোনো অসুবিধা হয় না। এনআইডির সঙ্গে জাতীয় নির্বাচন, ভোটার তালিকার পুরোপুরি সম্পর্ক রয়েছে। এটাকে মাঝখান থেকে নিয়ে গেলে নির্বাচন কমিশনের কাজ করতে অসুবিধা হবে।

 

সাবেক নির্বাচন কমিশনার ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) সূক্ষ্ম কারচুপি সম্ভব, ব্যালটে যেটা সম্ভব নয়। কারণ কেন্দ্র দখল করতে গেলে হইচই হয়। সাখাওয়াত হোসেন বলেন, ‘সিসি ক্যামেরা নিয়ে বিতর্ক আছে। সেটা ভালো হোক মন্দ হোক, ইভিএম যেখানে ব্যবহার হচ্ছে, ব্যবহার করুন। ব্যালট পেপার নিয়ে গেলেও সেটা ফাইন্ড আউট করা সম্ভব। কিন্তু ইভিএমে সূক্ষ্ম কারচুপি সম্ভব। বাইরে কোনো হইচই নাই, কিছু নাই, অথচ ভেতরে কী হচ্ছে, গাইবান্ধায় যেটা আমরা দেখলাম। অন্য সিস্টেমে হলে (ব্যালট পেপারে কারচুপি) বাইরেও হইচই হতো। সেটা আরও ভালো করে দেখতে পারতেন। কারণ কেন্দ্র ক্যাপচার করতে তো লোকবল লাগবে।’ আগামী সংসদ নির্বাচনে ইভিএমের বরাদ্দ দিয়ে সিসি ক্যামেরার ব্যবহার বাড়ানোর পরামর্শ দেন তিনি।

 

তিনি বলেন, ‘গাইবান্ধা-৫ উপনির্বাচনে যে পদক্ষেপ নিয়েছে কমিশন, আমি তাদের স্বাগত জানিয়েছি। এ পর্যন্ত ঠিক আছে। পরের ধাপগুলোতে যেন স্লিপ না করেন। যদি করেন, তাহলে জাতির কাছে অন্য রকম একটা মেসেজ যাবে, যে আপনারা এইটুকু দেখানোর জন্য করলেন। বাকিটুকু করলেন না।

 

তিনি বলেন, ‘এনআইডি সরকার কেন নিতে চাইছে সেটা পরিষ্কার নয়। এতগুলো বছরে একটা সিস্টেম ডেভেলপমেন্ট করেছে। এটা যদি আলাদা হয় ভবিষ্যতে ভোটার তালিকা নিয়ে কথা উঠবে। প্রশ্ন আসবে কোনটি ঠিক। ভোটার তালিকা ঠিক, না এনআইডি ঠিক? আপনি এনআইডির নাম পরিবর্তন করলেন, বয়স পরিবর্তন করলেন, তখন ভোটার লিস্টের কী হবে? আল্টিমেটলি এটা নিয়ে একটি গ-গোল হবে।’

মাঠপ্রশাসনের নিয়ন্ত্রণ জরুরি : সুষ্ঠু নির্বাচন অনুষ্ঠানে মাঠপ্রশানের সঙ্গে দূরত্ব কমানোর পরামর্শ দিয়েছেন সাবেকরা। এ ছাড়া সংসদ নির্বাচনে রিটার্নিং অফিসারের দায়িত্ব ডিসি ছাড়া অন্য কাউকে দিলে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া কঠিন হবে। তাই মাঠপ্রশাসনের নিয়ন্ত্রণের পরামর্শ দিয়েছেন তারা।

 

বৈঠকে উপস্থিত একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, সাবেক সিইসি, ইসি ও সচিবরা মাঠপ্রশাসন নিয়ে কথা বলেছেন। এর মধ্যে বৈঠকে সাবেক সিইসি আবদুর রউফ সভায় বলেছেন, ডিসি-এসপিরা রাজনৈতিবিদদের সহযোগী। রাজনৈতিক সরকারের অধীনে ভোট হলে ডিসি-এসপিদের হাতজোড় করলেও তারা সরকারের কথাই শুনবেন, ইসির কথা শুনবেন না। সাবেক সিইসি নূরুল হুদা বলেন, ডিসি-এসপিদের সঙ্গে দূরত্ব দূর করতে হবে। সাবেক ইসি এম সাখাওয়াত হোসেন বলেন, এনআইডি অন্য দফতরে গেলে ভোটার তালিকার শুদ্ধতা নিয়ে সমস্যা হবে। রাজনৈতিকভাবে এটা ব্যবহার হবে। নির্বাচনী অনিয়মে জড়িতদের শাস্তির আওতায় আনতে হবে। সাবেক ইসি মো. শাহনেওয়াজ বলেন, এনআইডি ইসি থেকে চলে গেলে ইভিএমে ভোট গ্রহণে সমস্যা হবে। সম্প্রতি ইসির সঙ্গে একটি বৈঠকে ডিসিরা যে আচরণ করেছেন তা কাম্য নয়।

 

সাবেক ইসি রফিকুল ইসলাম বলেছেন, ইভিএম ও ভোটার তালিকা দুটিই এনআইডি ডাটাবেজের সঙ্গে সম্পর্কিত। এটি অন্যের কাছে চলে গেছে ইসি সুষ্ঠু নির্বাচনে বাধার মুখে পড়বে। সাবেক ইসি কবিতা খানম বলেন, মাঠের সমন্বয় না থাকলে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়।

 

সূত্র জানিয়েছে, বৈঠকে সাবেক সচিব এম এম রেজা বলেন, রাজনীতিতে মেরুকরণ ঘটেছে। বরিশালে জেলা পরিষদ নির্বাচনে একজন জনপ্রতিনিধি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার সঙ্গে যে আচরণ করেছেন তা নিয়ে ইসির পদক্ষেপ নেওয়া উচিত। সাবেক সচিব ড. মোহাম্মদ সাদিক বলেন, রিটার্নিং কর্মকর্তাসহ সবাই ইসির দলের সদস্য। এখানে কোনো দূরত্ব কাম্য নয়। কর্মকর্তাদের ওপর ইসির আস্থা রাখতে হবে। সাবেক সচিব সিরাজুল ইসলাম বলেন, সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য নির্বাচনের আগে থেকেই কাজ করতে হবে। গাইবান্ধায় যারা দায়িত্বে অবহেলা করেছে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে হবে। সাবেক সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ বলেন, মাঠপ্রশাসনের সঙ্গে ইসির দূরত্ব কমাতে হবে। জাতীয় সংসদে ডিসিদের বদলে আর কাউকে রিটার্নিং কর্মকর্তা করা হলে পরিস্থিতি সামাল দেওয়া কঠিন হবে।