বরিশালে বিএনপি নেতার স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা


Barisal Crime Trace -GF প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২২, ২০২২, ৪:৩৮ অপরাহ্ণ /
বরিশালে বিএনপি নেতার স্ত্রীকে কুপিয়ে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক : বরিশালের বাবুগঞ্জে মারুফা বেগম (৩০) নামের এক গৃহবধূকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। এ সময় তার স্বামী মিলন খানকেও কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। তাকে উদ্ধার করে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

 

 

 

সোমবার (২১ নভেম্বর) দিনগত রাত দেড়টার দিকে উপজেলার দেহেরগতির ইউনিয়নের রাকুদিয়া গ্রামে এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

 

নিহত মারুফা বেগম দেহেরগতির ইউনিয়নের রাকুদিয়া গ্রামের মিলন খানের স্ত্রী। তাদের দুই ছেলে সন্তান রয়েছে।

 

 

 

মিলন খান পেশায় একজন ব্যবসায়ী হলেও বিএনপির রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। তিনি বিএনপির দেহেরগতির ইউনিয়নের সদস্য সচিব।

 

 

মিলন খানের প্রতিবেশী মো. মাসুম মাঝি ও খোকন খান বলেন, রাত দুইটার দিকে মিলন খানের দুই ছেলে তাদের বাড়িতে এসে ডাকাডাকি করে। তারা বলে, বাড়িতে ডাকাত পড়েছে। আমরা দ্রুত ওই বাড়িতে যাই। গিয়ে দেখতে পাই, মিলন খানের একতলা পাকাভবনের পেছনের দরজা খোলা। পুরো বাসাটির আসবাবপত্র ও বিভিন্ন মালমাল এলোমেলো।

 

 

 

একটি কক্ষের ভেতরে খাটের পাশে মিলনকে বেঁধে রাখা হয়েছে। তার দুই হাত ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করা হয়েছে। পাশে মেঝেতে মিলন খানের স্ত্রী মারুফা বেগমের রক্তাক্ত দেহ পড়ে আছে। তার মাথা, ঘাড়, গাল হ শরীরের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের বেশ কয়েকটি আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। এরপর পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।

 

মিলন খানের ভাই সবুজ খান জানান, রাত দেড়টার দিকে অস্ত্রধারী একদল ডাকাত কলাপসিবল গেটের তালা ভেঙে তার ভাই মিলন খানের বাড়িতে ঢোকে। এরপর তারা নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার ও বিভিন্ন দামি মালামাল লুট করে নিয়ে যাওয়া চেষ্টা করেন। মিলনের স্ত্রী মারুফা বেগম টের পেয়ে বাঁধা দিলে তাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে মাথায় আঘাত করা হয়। পাশাপাশি শরীরের বিভিন্ন স্থানে কুপিয়ে জখম করা হয়। এতে তার মৃত্যু হয়। তার চিৎকারে মিলন এগিয়ে এলে তাকেও ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে জখম করে বেঁধে রাখা হয়। এরপর নগদ টাকা, স্বর্ণালঙ্কার ও বিভিন্ন দামি মালামাল নিয়ে পালিয়ে যান তারা।

 

 

বাবুগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. মাহবুবুর রহমান বরিশালক্রাইমট্রেসডটকম’কে বলেন, মিলন খান ও তার লোকজনরা মিলে মারুফা বেগমকে হত্যা করে ডাকাতির নাটক সাজিয়েছেন বলে ধারণা করা হচ্ছে। মিলন খান আগে আরেকটি বিয়ে করেছিলেন। সেই স্ত্রীকে নিয়ে দাম্পত্য কলহ চলছিল। সেই কলহের কারণে এ হত্যাকাণ্ড ঘটতে পারে।

 

 

ওসি আরও বলেন, নিহত মারুফা বেগমের মা রাশিদা বেগম ও ভাই রাশেদুল ইসলামের অভিযোগের বিষয়টিও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। মিলন বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে।