বাউফলে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু, স্বামী পলাতক


Barisal Crime Trace -FF প্রকাশের সময় : ডিসেম্বর ১, ২০২২, ৯:২৭ অপরাহ্ণ /
বাউফলে গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু, স্বামী পলাতক

আরিফুল ইসলাম, বাউফল : পটুয়াখালীর বাউফলে মোসা. হালিমা বেগম (২৫) নামের এক গৃহবধূর রহস্যজনক মৃত্যু হয়েছে। মেয়ের পরিবারের অভিযোগ স্বামী রাকিব মুন্সির(২৭) নির্যাতনে মৃত্যু হয়েছে তার। ঘটনার পর রাকিব (স্বামী) গা-ঢাকা দিয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার সকাল ৮টার দিকে উপজেলার চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ড চরওয়াডেল গ্রামে ওই ঘটনা ঘটে। সকাল সারে ৯টার দিকে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে থানায় নিয়ে যায়।

স্থানীয় বাসিন্দা ও স্বজনদের সূত্রে জানা গেছে, আট বছর আগে চন্দ্রদ্বীপ ইউনিয়নের চরওয়াডেল গ্রামের মো. রত্তন মুন্সির ছেলে রাকিব মুন্সির সঙ্গে বিয়ে হয় একই ইউনিয়নের চরমিয়াজান গ্রামের বাসিন্দা মো. কুদ্দুস মুন্সির মেয়ে মোসা. হালিমা বেগমের।

তাঁদের সংসারে পাঁচ বছরের মো. রায়হান ও দেড় বছরের মোসা. রাফিয়া নামে দুই সন্তান রয়েছেন। হালিমার বাবা কুদ্দুস মুন্সি অভিযোগ বিয়ের পর থেকেই তাঁর মেয়েকে নির্যাতন করতেন স্বামী রাকিব মুন্সি। এ কারণেই হালিমার ডান কানে স্বর্নের দুল আছে, বাঁ কানে দুল নাই। তাঁর মেয়েকে নির্যাতন করে মেরে ফেলে রাকিব পালিয়ে গেছে।

হালিমা বেগমের ছোট বোন মোসা. জান্নাত বলেন, আজকে বৃহস্পতিবার সকাল আটটার দিকে মুঠোফোনে তাঁর ভগ্নিপতি রাকিব জানায় তোমার হালিমা আপায় অসুস্থ, হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। একটু পরে খবর পাই মারা গেছে। উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে গিয়ে তাঁর বোনের মরদেহ পড়ে থাকতে দেখেন। পাশে তাঁর শাশুড়ি মোসা. রেনু বেগম (৫০) বসে পান খাচ্ছিলেন।

উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের চিকিৎসা কর্মকর্তা মো. মিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘আজ সকাল পৌনে নয়টার দিকে হালিমা বেগমকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। এর আগেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে।’ মৃত হালিমার শাশুড়ি মোসা. রেনু বেগম বলেন,‘আমরা আলাদা থাকি। কি হইছে, বলতে পারি না। শুনছি রাত্রে স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়া হইছে।’
স্বামী পলাতক থাকায় তাঁর বক্তব্য পাওয়া যায়নি।

বাউফল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আল মামুন বলেন, ‘রাকিব মুন্সি পলাতক রয়েছেন। তবে পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে গ্যাস ট্যাবলেট (ধানের পোকা নিধনের ওষুধ) খেয়ে তাঁর মৃত্যু হয়েছে। হালিমার পরিবারের পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে নির্যাতন করে মেরে ফেলা হয়েছে। এ ঘটনায় অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। লাশের ময়না তদন্তের জন্য পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানোর প্রস্তুতি চলছে।