বরিশালে গণপূর্ত অফিসে দুই ঠিকাদারের হাতাহাতি !

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত এপ্রিল ১১ রবিবার, ২০২১, ০৮:৪৩ অপরাহ্ণ
বরিশালে গণপূর্ত অফিসে দুই ঠিকাদারের হাতাহাতি !

নিজস্ব প্রতিবেদক:: মডেল মসজিদ ও বরিশাল আদালতের ভবন নির্মাণ কাজের প্রায় আড়াই কোটি টাকার চেক নিয়ে দুই ঠিকাদারের মধ্যে হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে।

 

রোববার বেলা ১২টার দিকে বরিশাল গণপূর্ত অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলীর কার্যালয়ে এ ঘটনা ঘটে।

 

পলি ইঞ্জিনিয়ারিং-এর স্বত্তাধিকারী আকবরুজ্জামানের সাথে অংশীদারি ঠিকাদার মেহেদী হাসান সুমনের মধ্যে এই হাতাহাতির ঘটনা ঘটেছে।

 

জানা গেছে, ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান পলি ইঞ্জিনিয়ারিং-এর স্বত্তাধিকারী আকবরুজ্জামানের প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে দীর্ঘদিন গণপূর্ত দপ্তরের কাজ করে আসছিলেন ঠিকাদার মেহেদী হাসান সুমন।

 

সম্প্রতি দু’জনের মধ্যে বিরোধ সৃষ্টি হলে সম্পন্ন হওয়া কাজের চেক নিয়ে দুই পক্ষে বিরোধ দেখা দেয়।

 

এর জেরে রোববার বেলা ১২টার দিকে বরিশাল গণপূর্ত দপ্তরে ঠিকাদার আকবরুজ্জামান বহিরাগতদের নিয়ে চেক নিতে আসলে বাঁধা দেয় সুমন।

 

ঠিকাদার মেহেদী হাসান সুমন বলেন, ২০১৪ সাল থেকে আকবরুজ্জামানের সাথে তিনি অংশিদারের ভিত্তিতে ঠিকাদারী কাজ করতেন।

 

তার লাইসেন্সে ২৩টি ঠিকাদারী কাজ করেছেন। সম্প্রতি দু’জনের মধ্যে দ্বন্দ্ব সৃষ্টি হলে প্রভাবশালীদের মাধ্যমে নির্বাহী প্রকৌশলীকে একাধিকবার ফোন দিয়ে আড়াই কোটি টাকা সমমূল্যের চেক নেওয়ার চেষ্টা করেন।

 

রোববার বহিরাগতদের সঙ্গে এনে ওই চেক নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করেন আকবরুজ্জামান। এসময় তিনি বাধা দিয়ে অর্থিক হিসেব-নিকেশ মেটাতে বলেন। কিন্তু তা কর্ণপাত করেন নি।

 

পলি ইঞ্জিনিয়ারিং এর ম্যানেজার মিজানুর রহমান বলেন, তার কোম্পানীর প্রধান আকবরুজ্জামান স্যারের সাথে গণপূর্তে যান।

 

এসময় মোট আড়াই কোটি টাকা সমমানের ৪টি চেক গ্রহণের জন্য আকবরুজ্জামান স্যারের সাথে নির্বাহী প্রকৌশলীর কথা হয়।

 

এর একপর্যায়ে সেখানে ঠিকাদার সুমন এসে বাঁধা দেয়। তার লোকজন আমাকে ধাক্কা দেয় এবং ভয়ভীতি দেখায়।

 

এব্যাপারে বরিশাল গণপূর্ত বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী জেরাল্ড অলিভার গুডা বলেছেন, দুই পক্ষের মধ্যে অংশিদারিত্ব নিয়ে ঝামেলা হয়েছে।

 

তার দপ্তরে একটি সভা চলাকালে তিনি হট্টোগোল শুনতে পান। এঘটনা পুলিশকে জানালে তারা বহিরাগতদের বের করে দেয়।

 

আকবরুজ্জামান ৪টি চেক নিতে এসেছিলেন। ওই চেকের জন্যই কিছুদিন আগে সুমনও এসেছিলেন।

 

এ কারনে দুইজনকে সমঝোতা করে আসার জন্য চেকগুলো স্থগিত রেখেছিলেন। কিন্তু ক্ষমতা দেখিয়ে যদি কোন পক্ষ চেক নিতে চায় তা হতে দেওয়া যাবে না বলে জানান নির্বাহী প্রকৌশলী।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]