শীতেও বিদ্যুৎ সংকটে মনপুরার ৯০০ গ্রাহক


Barisal Crime Trace -FF প্রকাশের সময় : জানুয়ারি ২৫, ২০২৩, ২:৪০ অপরাহ্ণ /
শীতেও বিদ্যুৎ সংকটে মনপুরার ৯০০ গ্রাহক

ভোলা প্রতিনিধি : শীতের মধ্যেও চরম বিদ্যুৎ সংকটে ভোলার মনপুরার ৯ শতাধিক গ্রাহক। দীর্ঘদিন ধরে গ্রাহকরা রাতে ৮ ঘণ্টা বিদ্যুৎ পেলেও যান্ত্রিক ত্রুটির কারণে ৫ ঘণ্টা করে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হচ্ছে। অভিযোগ উঠেছে, সঞ্চালন লাইন ও গ্রাহক বাড়লেও বাড়েনি উৎপাদন। জোড়াতালি দিয়ে চালানো হচ্ছে পুরনো মেশিনগুলো। তবে যান্ত্রিক ত্রুটি সারানোর বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন বলে জানায় কর্তৃপক্ষ।

মনপুরার হাজিরহাটে স্থাপিত ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি, ওজোপাডিকোর এই উপকেন্দ্র থেকে উপজেলা সদরের ৬ কিলোমিটার এলাকার ৯০০ গ্রাহককে বিদ্যুৎ সরবরাহ করা হয়। জেনারেটরের মাধ্যমে উৎপাদিত বিদ্যুৎ প্রতিদিন সন্ধ্যা থেকে ৮ ঘণ্টা সরবরাহ করা হয় গ্রাহকদের। এ জন্য উপকেন্দ্রে ৫০০ কেভির ২টি, ৬৩০ কেভির ১টি ও ১ মেগাওয়াটের একটা জেনারেটর স্থাপন করা হয়েছে।

কাগজপত্রে ৪টি জেনারেটরে দেড় মেগাওয়াটের বেশি ক্ষমতা দেখানো হলেও বাস্তবে এর অর্ধেকও উৎপাদন হচ্ছে না। এদিকে একমাস আগে ৬৩০ কেভি জেনারেটরের যান্ত্রিক ত্রুটির কথা বলে সাময়িক বিদ্যুৎ সরবরাহ কমানোর ঘোষণা দেয় কর্তৃপক্ষ। ঘোষণার পর ৮ ঘণ্টার পরিবর্তে ৫ ঘণ্টা করে বিদ্যুৎ সরবরাহ করায় চরম সংকটে সাধারণ গ্রাহকরা।

এদিকে প্রয়োজনীয় বিদ্যুতের অভাবে ক্ষতির মুখে পড়েছে ৩৫০ বাণিজ্যিক গ্রাহক। এ অবস্থার উত্তরণের জন্য উপজেলা সদরের ব্যবসায়ীরা মানববন্ধন করে ২৪ ঘণ্টা বিদ্যুৎ সরবরাহের দাবি জানান ব্যবসায়ীরা।

মনপুরার মানুষ চরম বিদ্যুৎ সংকটে ভুগলেও দীর্ঘদিন ধরে কর্মস্থলে অনুপস্থিত মনপুরায় ওজোপাডিকোর আবাসিক প্রকৌশলী মো. আ. সালাম। তিনি মোবাইল ফোনে জানান, ত্রুটি দেখা দেয়ায় মেশিনটি মেরামতে টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন আছে। মনপুরা বিদ্যুৎ সরবরাহ কেন্দ্রের ইঞ্জিনচালক, ক্যাশিয়ার, লাইনম্যানসহ ৫টি পদ দীর্ঘদিন ধরে শূন্য।