ব্রাজিলে বন্যায় নিহত ৩১, বাস্তুচ্যুত ২৩০০


Barisal Crime Trace -FF প্রকাশের সময় : সেপ্টেম্বর ৭, ২০২৩, ১:০১ অপরাহ্ণ /
ব্রাজিলে বন্যায় নিহত ৩১, বাস্তুচ্যুত ২৩০০

অনলাইন ডেস্ক : ব্রাজিলের দক্ষিণাঞ্চলে ঘূর্ণিঝড় ও বন্যায় নিহত হয়েছেন ৩১ জন। বাড়িঘর ভেসে যাওয়ায় বাস্তুচ্যুত হয়েছেন প্রায় দুই হাজার তিন শ’ মানুষ। বন্যার পানিতে রাস্তা তলিয়ে যাওয়ায় আটকা পড়েছে মোটরসাইকেলসহ বেশকিছু যানবাহন।

স্থানীয় সময় বুধবার দেশটির কর্তৃপক্ষ বন্যা পরিস্থিতি নিয়ে এসব তথ্য জানিয়েছেন। গভর্নর এডুয়ার্ডো লেইট বলেন, সোমবার রাত থেকে ৬০টিরও বেশি শহর ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এর মধ্যে রিও গ্র্যান্ডে দো সুল রাজ্যে ঝড়টি ছিল সবচেয়ে মারাত্মক।

লেইট রাজ্যের সামাজিক মাধ্যমের অ্যাকাউন্টে পোস্ট করা একটি ভিডিওতে বলেন, ‘আমরা এইমাত্র যে ফ্লাই-ওভারটি করেছি, তা একেবারে সাধারণ ইভেন্টের বাইরের মাত্রা দেখায়। এটি কেবল নদীর তীরবর্তী সম্প্রদায়গুলোকে ক্ষতিগ্রস্ত করেনি বরং পুরো শহরগুলোকে সম্পূর্ণরূপে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে।’

মঙ্গলবার উদ্ধারকারী দলের করা ভিডিও এবং অনলাইন নিউজ সাইট জি১ প্রকাশিত ছবি ও ভিডিওতে কিছু পরিবারকে তাদের বাড়ির উপর থেকে সাহায্যের জন্য অনুরোধ করতে দেখা গেছে। কারণ নদীগুলোর পানি তীরকে প্লাবিত করেছে। প্রশস্ত সড়কগুলো পানিতে তলিয়ে নদীর আকারে পরিণত হওয়ায় কিছু এলাকা সম্পূর্ণভাবে বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়।

বুধবার লেইট বলেন, মৃতের সংখ্যা ৩১ জনে পৌঁছেছে। এছাড়া কমপক্ষে দুই হাজার তিন শ’ মানুষ গৃহহীন হয়েছে বলে জানিয়েছে রাজ্যের জরুরি কর্তৃপক্ষ। আরো তিন হাজার মানুষকে সাময়িকভাবে তাদের ঘর ছেড়ে নিরাপদ আশ্রয়ে যেতে হয়েছে।

প্রায় ৫০ হাজার বাসিন্দার শহর মুকুমের একটি বাড়ি থেকে ১৫টি লাশ উদ্ধার করেছে উদ্ধারকারী দল। ঝড়টি থেমে যাওয়ার পর বাসিন্দারা নদীর ধারে একটি ধ্বংসপ্রাপ্ত অবস্থা দেখতে পান। যেখানে বেশিরভাগ ভবন মাটির সাথে মিশে গেছে। ছবিগুলোতে দেখা যায় বৈদ্যুতিক লাইনে একটি ভেড়া ঝুলছে। পানি কতটা বৃদ্ধি পেয়েছিল তারই ইঙ্গিত এটি।

ধ্বংসস্তূপের উপরে দাঁড়িয়ে মুকুমের বাসিন্দা মার্কোস আন্তোনিও গোমেস বলেন, ‘পানি খুব দ্রুত পৌঁছেছিল, তা ঘণ্টায় দুই মিটার (সাড়ে ৬ ফুট) বেগে বাড়ছিল। আমাদের কিছুই অবশিষ্ট নেই। এমনকি কাপড়ও নেই।’

মানুষ কতদিন আটকে থাকতে পারে তার ইঙ্গিত দিয়ে মুকাম সিটি হল মঙ্গলবার বাসিন্দাদের আগামী তিন দিনের (৭২ ঘণ্টা) জন্য তাদের চাহিদা মেটাতে প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের সরবরাহ খুঁজতে পরামর্শ দিয়েছে।

অন্যান্য শহরগুলো উদ্ধার প্রচেষ্টায় নৌকা দিয়ে সহায়তা করার জন্য তাদের নাগরিকদের আহ্বান জানিয়েছে। ৫৫ বছর বয়সী ব্যবসায়ী গোমস বলেন, ১৫ বছরের মধ্যে এটি চতুর্থবারের মতো বন্যায় তার বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।

তিনি বলেছিলেন যে এটি এখন পর্যন্ত সবচেয়ে খারাপ ছিল এবং তিনি ভবিষ্যতে আরো বন্যার আশঙ্কা করছেন। গোমেস আরো বলেন, এখানে আমাদের বাঁচার কোনো উপায় নেই। আবারো বন্যা হবে.. আমাদের (এই জায়গাটি) পরিত্যাগ করতে হবে।’

অনলাইন নিউজ সাইট জি১ জানিয়েছে, ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে অনেকেই বৈদ্যুতিক শক থেকে মারা গেছেন বা যানবাহনে আটকা পড়েছেন। উদ্ধার কার্যক্রম চালানোর সময় ভেসে যাওয়ায় এক মহিলার মৃত্যু হয়েছে।

অনুসন্ধান এবং উদ্ধারকারী দলগুলো রাজ্যের রাজধানী পোর্তো অ্যালেগ্রে থেকে প্রায় ১৫০ কিলোমিটার (৩০ মাইল) উত্তর-পশ্চিমে টাকুয়ারি উপত্যকায় গুরুত্ব দিয়ে বেশিরভাগ আঘাত এবং ক্ষয়ক্ষতি রেকর্ড করেছে। তবে সেই প্রচেষ্টাগুলো বুধবার সকালে আরো পশ্চিমে প্রসারিত হয়েছিল। এছাড়া রিও পারডো উপত্যকায় হেলিকপ্টার পাঠানো হয়েছিল।

আরো ভারী বৃষ্টিপাত রাজ্যের কেন্দ্র থেকে দক্ষিণ অঞ্চলে আঘাত হানবে বলে আশঙ্কা করা হয়েছিল। সম্ভবত সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ অঞ্চলগুলোকে বাঁচিয়ে রাখবে। বুধবার কর্তৃপক্ষ জাকুই, কাই এবং টাকুয়ারি নদীর জন্য তিনটি বন্যা সতর্কতা জারি রেখেছে।

রিও গ্রান্ডে ডো সুল জুন মাসে আরেকটি ঘূর্ণিঝড় আঘাত হেনেছিল। এতে মৃত্যু হয়েছিল ১৬ জনের। আর ধ্বংসযজ্ঞেরে শিকার হয়েছিল ৪০টি শহর। যার মধ্যে অনেকগুলো ছিল পোর্তো আলেগ্রির আশপাশে।

সূত্র : ইউএনবি