এমপি আনার হত্যায় আওয়ামী লীগ নেতা বাবু আটক


Mahadi Hasan প্রকাশের সময় : জুন ৭, ২০২৪, ৪:৩২ অপরাহ্ণ /
এমপি আনার হত্যায় আওয়ামী লীগ নেতা বাবু আটক

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল: ঝিনাইদহ জেলা আওয়ামী লীগের ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ সম্পাদক কাজী কামাল আহমেদ বাবু ওরফে গ্যাস বাবুকে আটক করেছে গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি)। বৃহস্পতিবার (৬ জু্ন) রাতের কোনো একসময় ঝিনাইদহ শহরের আদর্শপাড়া এলাকা থেকে তাকে নিয়ে যায় ঢাকা থেকে আসা ডিবির একটি দল। তবে ঠিক কী কারণে তাকে নিয়ে যাওয়া হয়েছে তা জানাতে পারেননি তার পরিবারের সদস্য ও জেলা পুলিশের কর্মকর্তারা।

ধারণা করা হচ্ছে, ঝিনাইদহ-৪ আসনের সংসদ সদস্য (এমপি) আনোয়ারুল আজিম আনার হত্যার ঘটনায় জড়িত সন্দেহে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য তাকে নিয়ে যাওয়া হতে পারে। তবে বাবুর পরিবারের সদস্যরা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি। বাবুর স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, এমপি আনার হত্যার মূল পরিকল্পনাকারী আক্তারুজ্জামান শাহীন তার মামাতো ভাই।

কামাল আহমেদের বাড়ি ঝিনাইদহ শহরের আদর্শপাড়া বীরশ্রেষ্ঠ হামিদুর রহমান স্টেডিয়ামের পাশে। তার স্ত্রী কলেজ শিক্ষিকা কাজী শিরিনা আফরোজ বলেন, ‘আমার স্বামীকে গতকাল ডিবি পুলিশ নিয়ে গেছে। তারা ঢাকা থেকে এসেছিল। তাদের কাছে জিজ্ঞাসা করেছিলাম কেন নিয়ে যাচ্ছেন। তারা শুধু বলেছে, তার সঙ্গে কিছু কথা আছে। এর বেশি কিছু জানি না।’ এ কথা বলে তিনি পাশে এক আত্মীয়ের বাসায় ঢুকে পড়েন।

শহরের কচাতলা এলাকায় কাজী কামাল আহমেদ বাবুর বোনের বাসা। ওই বাসায় গেলে কথা হয় তার বড় বোন জেসমিনের সঙ্গে। তিনি বলেন, ‘আমরা ৯ ভাই-বোন। আমি বড়। গতকাল বাবুকে কেন নিয়ে গেছে জানি না। সকালে বিষয়টি জানতে পেরেছি।’ এক প্রশ্নের জবাবে জেসমিন বলেন, ‘শাহীন আমাদের মামাতো ভাই। সে খুব ভালো মানুষ ছিল।’ এ কথা বলেই তিনিও বাড়ির ভেতরে ঢুকে গেট বন্ধ করে দেন।

এ বিষয়ে ঝিনাইদহের পুলিশ সুপার আজিম-উল-আহসান বলেন, ‘ঢাকা ডিবির একটা টিম এসেছিল। তারা কাজী কামাল আহমেদ বাবুকে নিয়ে গেছেন। তবে কোন মামলা, কী ঘটনা এসব বিষয়ে তারা কিছুই বলেননি। শুধু আমাদের জানিয়েছেন, জিজ্ঞাসাবাদের জন্য নিয়ে যাচ্ছি। আটক করা হয়েছে কি না এমন তথ্যও তারা বলেননি।’

নিহত এমপি আনোয়ারুল আজিম আনারের মেয়ে মুমতারিন ফেরদৌস ডরিন বলেন, ‘এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না। আমার কাছে জিজ্ঞাসা করে কোনো লাভ নেই।’ আক্তারুজ্জামান শাহীনের ভাই ও কোটচাঁদপুর পৌরসভার মেয়র সহিদুজ্জামান সেলিম বলেন, ‘আমরা বাবুর মামাতো ভাই।

তবে খুব আপন সম্পর্কের না।’ জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আছাদুজ্জামান আছাদ বলেন, যেহেতু এটা তদন্তাধীন বিষয়, তাই আইনশৃঙ্খলা বাহিনী থেকে নির্দিষ্ট কোনো তথ্য না এলে কোনো মন্তব্য করা যাচ্ছে না।’