ভোটকেন্দ্রে ঢুকতে না দেওয়ায় পুলিশকে বললেন ‘ আমি আ.লীগের সভাপতি’


Mahadi Hasan প্রকাশের সময় : জুন ৯, ২০২৪, ৮:১০ অপরাহ্ণ /
ভোটকেন্দ্রে ঢুকতে না দেওয়ায় পুলিশকে বললেন ‘ আমি আ.লীগের সভাপতি’

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল: পটুয়াখালীতে ভোটকেন্দ্রে ঢুকতে না দেওয়ায় দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তার প্রতি চড়াও হলেন এক আওয়ামী লীগ নেতা। এ সময় নিজের ক্ষমতা দেখাতে তিনি নিজেকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতির পরিচয় দিয়ে বলেন ‘টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী থানার ওসি জসিম আমার নিজের সালা (শ্যালক)’।

রোববার (৯ জুন) স্থগিত হওয়া পটুয়াখালী সদর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলাকালীন দুপুর ২টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। অভিযুক্ত আওয়ামী লীগ নেতার নাম মো. ইউসুফ আলী খান। তিনি সদর উপজেলার লোহালিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ও মোটরসাইকেল প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী অ্যাড. গোলাম সরোয়ারের সমর্থক। এ সময় তার হাতে মোটরসাইকেল প্রতীকের লিফলেটও দেখা যায়।

জানা যায়, রোববার সকাল ৮টা থেকে জেলার সদর, মির্জাগঞ্জ ও দুমকী উপজেলা পরিষদে শান্তিপূর্ণভাবে ভোটগ্রহণ চলছিল। তবে দুপুর ২টার দিকে সদর উপজেলার লোহালিয়া ইউনিয়নের মধ্য লোহালিয়া মিয়া বাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোটকেন্দ্রে আসেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইউসুফ আলী খান।

এ সময় ভোটকেন্দ্রের ইনচার্জ পুলিশের সহকারী উপপরিদর্শক মিজানুর রহমান ভোটার কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি ভোটার নয়, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি। ভোটার ব্যতীত কাউকে ঢুকতে না দেওয়ার নির্দেশ আছে বলে পুলিশ কর্মকর্তা তাকে জানান।

তখন ক্ষিপ্ত হয়ে তিনি বলেন, আমি ২০ বছর ধরে আওয়ামী লীগের সভাপতি, টাঙ্গাইলের ধনবাড়ী থানার ওসি জসিম আমার নিজের সালা (শ্যালক)’ পরে তিনি প্রভাবশালী একাধিক কর্মকর্তার পরিচয় দিয়ে প্রভাব বিস্তার করে কেন্দ্রে ঢোকার চেষ্টা করেন। পরে সাংবাদিকসহ অন্যান্য পুলিশ সদস্য ও প্রিজাইডিং অফিসার এলে তিনি চলে যান।

লোহালিয়া ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি ইউসুফ আলী খান বলেন, আমি ভোট দেওয়ার জন্য আসিনি, আমার এজেন্ট কী অবস্থায় আছে তা দেখার জন্য এসেছি। এ বিষয়ে জানতে চাইলে দায়িত্বরত মধ্য লোহালিয়া মিয়া বাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্র ইনচার্জ সহকারী উপপরিদর্শক মিজানুর রহমান বলেন, তিনি এই কেন্দ্রের ভোটার নয় তাই তাকে ঢুকতে দেইনি। তবে তিনি আওয়ামী লীগ নেতা ও একাধিক কর্মকর্তার নাম বলে ঢোকার চেষ্টা করেন। তখন আমি প্রিজাইডিং অফিসারকে জানালে তিনি চলে যান।