বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে দুই চিকিৎসকের হাতাহাতি


Mahadi Hasan প্রকাশের সময় : জুলাই ৯, ২০২৪, ৬:৫৮ অপরাহ্ণ /
বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে দুই চিকিৎসকের হাতাহাতি

নিজস্ব প্রতিবেদক, বরিশাল: বরিশাল শের-ই-বাংলা চিকিৎসা মহাবিদ্যালয় (শেবাচিম) হাসপাতালে দুই চিকিৎসক কর্মকর্তার প্রকাশ্যে হাতাহাতিতে লিপ্ত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। আজ মঙ্গলবার বেলা সাড়ে ১২টায় হাসপাতালের দরপত্র সংক্রান্ত একটি সভায় বাগ্‌বিতণ্ডার একপর্যায়ে তারা হাতাহাতিতে লিপ্ত হন। ওই সভায় হাসপাতালের পরিচালক ডা. সাইফুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

হাতাহাতিতে লিপ্ত হওয়া দুই চিকিৎসক হলেন, হাসপাতালের উপ পরিচালক ডা. রেজওয়ানুর আলম (অর্থ ও ভাণ্ডার) ও কলেজের উপাধ্যক্ষ অর্থপেডিক্স বিভাগের প্রধান ডা. জিএম নাজিমুল হক।

এ ঘটনায় ডা. নাজিমুলের লিখিত অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে ডা. রেজওয়ানুরকে কারণ দর্শানোর (শোকজ) নোটিশ দেওয়া হয়েছে। হাসপাতাল পরিচালক ডা. সাইফুল ইসলাম স্বাক্ষরিত ওই নোটিশে আগামী তিন কর্মদিবসের মধ্যে রেজওয়ানুলকে জবাব দিতে বলা হয়েছে।

একাধিক সূত্রে জানা গেছে, হাসপাতাল স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাপনা কমিটির সভাপতির কক্ষে দরপত্র সংক্রান্ত একটি সভা হয়। সভার একপর্যায়ে হাসপাতালে দায়িত্ব পালন নিয়ে বাগ্‌বিতণ্ডায় লিপ্ত হন ডা. রেজওয়ানুর ও ডা. নাজিমুল।

তখন উপপরিচালক রেজয়ানুর অভিযোগ করেন, কলেজের অধ্যাপক চিকিৎসকরা হাসপাতালের দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করেন না। তারা হাসপাতালের ওয়ার্ড নিয়মিত রাউণ্ড দেন না। এনিয়ে কথাকাটাকাটির এক পর্যায়ে ডা. নাজিমুল ও ডা. রেজওয়ানুর হাতাহাতিতে জড়ান। এ সময় সভায় উপস্থিত অন্যরা তাদের নিবৃত্ত করেন।

পরে ডা. নাজিমুল কলেজ অধ্যক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগে জানান, নিচস্তরের পদধারী হয়েও সভায় তার সঙ্গে অসদাচরণ করেছেন ডা. রেজওয়ানুল। অভিযোগের প্রেক্ষিতে ডা. রেজওয়ানুরের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে কলেজ অধ্যক্ষ ডা. মো. ফয়জুল বাশার হাসপাতাল পরিচালককে লিখিত চিঠি দেন। তবে ঘটনার পর পরই অধ্যক্ষ সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, তেমন কিছু হয়নি। দুজনের মধ্যে ভুল বোঝাবুঝি মাত্র।

ডা. রেজওয়ানুর সাংবাদিকদের কাছে অধ্যাপক চিকিৎসকদের বিরুদ্ধে তাঁর অভিযোগ সত্য জানিয়ে বলেন, সভায় তিনি ওইসব অভিযোগ করায় উপাধ্যক্ষ ডা. নাজিমুল তার ওপর চড়াও হন।