সোনারগাঁও টেক্সটাইল শ্রমিকরা আশ্বাসে কাজে ফিরলো

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত আগস্ট ১৮ বুধবার, ২০২১, ১০:৪৭ অপরাহ্ণ
সোনারগাঁও টেক্সটাইল শ্রমিকরা আশ্বাসে কাজে ফিরলো

নিজস্ব প্রতিবেদক |। নগরীর রূপাতলী সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিলে আন্দোলনরত শ্রমিকদের দাবি আদায়ে মালিকপক্ষ আলোচনায় বসার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

আলোচনার মাধ্যমে শ্রমিকদের দাবি-দাওয়া পূরণ করার চেষ্টা করা হবে বলে জানা গেছে। এই আশ্বাসে আন্দোলন স্থগিত করার ঘোষণা দিয়েছেন আন্দোলনকারীরা।

 

বুধবার (১৮ আগস্ট) সকালে ১০ টায় সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিলের অভ্যন্তরে ইউনিট ৩ তে শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ এর নেতৃত্বে শ্রমিকরা কর্মবিরতী পালন ও আন্দোলন করে।

এ সময় আন্দোলনে একাত্বতা প্রকাশ করে তাদের সাথে যুক্ত হয় বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) বরিশাল জেলা শাখার নেতৃবৃন্দ।

আন্দোলনে শ্রমিক নেতা নুরুল হক হাওলাদার বলেন, সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিলের শ্রমিকদের ১১ মাসের বেতন বকেয়া ছিল।

গত ২৫ মার্চ মিলটি ফের চালুর সময় এক মাসের এবং ওই মাসের শেষ সপ্তাহে আরও এক মাসের বেতন পরিশোধ করা হয়।

অবশিষ্ট ৯ মাসের বেতন প্রতি মাসের মূল বেতনের সঙ্গে পর্যায়ক্রমে পরিশোধের আশ্বাস দিয়েছিল মালিকপক্ষ। কিন্তু তারা প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করে আর বেতন পরিশোধ করেনি।

এছাড়া শ্রমিকদের আট ঘণ্টার বদলে ১২ ঘণ্টা কাজ করানো হচ্ছে। তিনি আরও বলেন,আমরা মালিক পক্ষের কাছে ৬ দফা দাবি জানিয়েছি। আশা করি এ মাসের শেষে মালিক পক্ষ আমাদের সাথে বসবে।

এ সময় আমরা দাবিগুলো তুলে ধরবো। দাবিগুলো না মানা হলে আগামী সেপ্টেম্বর মাসের ১ তারিখ থেকে আমারা আবার নতুন কোন সিদ্ধান্ত নিব।

এ সম্পর্কে জানতে চাইলে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের বরিশাল জেলা শাখার সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী বলেন, দীর্ঘ ১১ মাস আন্দোলনের পরে সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিল খুলেছে।

মালিকপক্ষ শ্রমিকদের বকেয়া ৯ মাসের বেতন পরিশোধের কথা থাকলেও এখনও তা করেনি।

এছাড়া শ্রমিকরা আট ঘণ্টা কাজ করা ও মজুরি স্কেল অনুযায়ী বেতন প্রদানসহ কয়েক দফা দাবিতে আন্দোলন পালন করছে।

মালিকদের পক্ষ থেকে আগস্ট মাসের মধ্যে দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস দেওয়া হয়েছে। এর পরিপেক্ষিতে শ্রমিকরা সাময়িক ভাবে আন্দোলন স্থগিত করছে।

বরিশাল কোতয়ালী মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. নুরুল ইসলাম বলেন, টাকা ২ ঘন্টার মতো শ্রমিকরা আন্দোলনরত ছিল। আমারা শ্রমিক ও মালিক পক্ষের সাথে কথা বলেছি।

মালিকপক্ষ শ্রমিকদের দাবি গুলো মেনে নিয়েছেন। কিন্তু এ দাবিগুলো কবে নাগাদ পূরন হবে এটি এখন একটি আলোচনার বিষয়। আমরা পুলিশ প্রশাসন, জেলা প্রশাসন ও শ্রম অধিদপ্তর এর প্রতিনিধিরা আলোচনার মাধ্যমে ফাইনালি একটি ফয়সালা করব বলে আশা করছি।

এ সম্পর্কে সোনারগাঁও টেক্সটাইল মিলের প্রজেক্ট এজিএম খায়রুল আলম জানান, আন্দোলনের বিষয়টি আমি ঢাকা মালিক পক্ষের কাছে জানালে তারা একটি লিখিত আদেশ দিয়েছেন। সেই আদেশের পরিপেক্ষিতে আমরা ব্যবস্থা নিব। এছাড়া স্থানীয় যে সকল সমস্যা আছে তা আমরা সমাধানে করার চেষ্টা করবো।

উল্লেখ্য,সোনারগাঁও টেক্সটাইল শ্রমিক কর্মচারী সংগ্রাম পরিষদ গত শুক্রবার (১৩ আগস্ট) নগরীতে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ) কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করে ১৮ আগস্ট থেকে অনির্দিষ্টকালের জন্য কর্মবিরতির ঘোষণা।

এ সময় তারা আট ঘণ্টা কাজ করা ও মজুরি স্কেল অনুযায়ী বেতন প্রদান, কল্যাণ তহবিলের চূড়ান্ত হিসাব প্রদান, অব্যাহতি দেওয়া শ্রমিক কর্মচারীদের যাবতীয় পাওনা পরিশোধ, প্রতি মাসের প্রথম সপ্তাহের মধ্যে বেতন ও প্রতি বছরে জানুয়ারিতে বার্ষিক ইনক্রিমেন্ট প্রদান এবং মিল শ্রমিকদের ইউনিয়ন রেজিস্ট্রেশন প্রদান সহ বিভিন্ন দাবি জানান।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]