আগৈলঝাড়ায় নার্সের অবহেলায় অক্সিজেন না পেয়ে মারা গেল করোনা রোগী!

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত আগস্ট ২৫ বুধবার, ২০২১, ০৬:৩৮ অপরাহ্ণ
আগৈলঝাড়ায় নার্সের অবহেলায় অক্সিজেন না পেয়ে মারা গেল করোনা রোগী!

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বরিশালের আগৈলঝাড়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে সেন্ট্রাল অক্সিজেন উদ্বোধন করার তিন দিন পরে কর্তব্যরত নার্সরা করোনায় আক্রান্ত মুমূর্ষ রোগীকে অক্সিজেন না থাকার কথা জানিয়ে অক্সিজেন না দেয়ায় হাসপাতালেই মারা গেলেন করোনা আক্রান্ত মজিবর রহমান মোল্লা।

উপজেলার গৈলা ইউনিয়নের পূর্ব সুজনকাঠি গ্রামের বাসিন্দা ও বাজারের ব্যবসায়ি মজিবর রহমান মোল্লা (৬৫)র স্বজনেরা জানান, গত রবিবার করোনা উপসর্গ নিয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা পরীক্ষায় মজিবরের করোনা ধরা পরে। ওই দিন তাকে হাসপাতালের করোনা ইউনিটে ভর্তি করা হয়।

বুধবার গভীর রাতে মজিবরের অক্সিজেন লেভেল কমে গেলে চিকিৎসক তাকে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে নেয়ার পরামর্শ দেয়। বুধবার সকালে মজিবরকে বরিশাল নেয়ার কথা ছিল।

এদিকে গত ২১ আগস্ট আবুল খায়ের গ্রুপের উদ্যোগে বিনা মূল্যে সেন্ট্রাল অক্সিজেন সেবা উদ্বোধন করা হলেও মঙ্গলবার রাতে হাসপাতালে ডিউটিরত দুই নার্স মজিবরের স্বজনদের কাছে অক্সিজেন নেই জানিয়ে মজিবরের অক্সিজেন খুলে দেয়। মুমূর্ষ মজিবর অক্সিজেন না পেয়ে গুরুতর অসুস্থ হয়ে পরলে পরিবারের লোকজন বাইরে থেকে একটি অক্সিজেন সিলিন্ডারের ব্যবস্থা করে গভীর রাতে হাসপাতালে প্রবেশ করতে চাইলে হাসপাতালের নাইট গার্ড মামুন তাদের হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন সেবা চালু বলে জানায়।

হাসপাতালের নার্সরা মজিবরের পরিবারকে অক্সিজেন নেই জানালে তারা বাইরে থেকে অক্সিজেন সিলিন্ডার সরবরাহর কথা জানায় গার্ড মামুনকে। বিষয়টি নাইট গার্ড মামুন রোগীর স্বজনদের সাথে নিয়ে ডিউটিরত নার্সদের কাছে গিয়ে জানতে চাইলে নার্সরা মামুনের সাথেও খারাপ আচরণ করে বাইরে থেকে আনা অখিক্সজেনও দিতে দেয় নি। নার্সদের অবহেলায় অক্সিজেন সেবা না পেয়ে শেষ পর্যন্ত বুধবার ভোর রাতে মজিবর মারা যায়।

এদিকে আবুল খায়ের গ্রুপের সৌজন্যে গত ২১ আগষ্ট উপজেরা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে করোনা রোগীসহ মুমূর্ষ রোগীর সেবায় বিনামূল্যে সেন্ট্রাল অক্সিজেন উদ্বোধণ করে স্বাস্থ্য বিভাগের পরিচারক ডা. বাসুদেব কুমার দাসসহ অতিথিরা। সেন্টাল অকিসজেন উদ্বোধনের দিন দিনের মাথায় অক্সজেণ না পেয়ে রোগী মৃত্যুর ঘটনায় ক্ষোভে ফুঁসছে মৃতর স্বজনরাসহ স্থানীয়রা।

এর আগে সোমবার হাসপাতালের করোনা প্রতিরোধে ভ্যাকসিন বুথে রাজিহার গ্রামের এক ব্যক্তিকে একই দিন প্রথম ডোজের দুটি টিকা একসাথে পুশ করেছিলো হাসাতালের নার্সরা। ওই ব্যক্তি জানিয়েছেন, তাকে একবার টিকা দেয়ার পরে তিনি ওই চেয়ারে বসা অবস্থায় আরেকজন নার্স তাকে দ্বিতীয়বার করোনার টিকা দিতে গেলে তিনি টিকা নিয়েছেন বলে নার্সকে জানালেও ওই নার্স তার কথা না অগ্রাহ্য করে চেয়ারে বসা অবস্থায়ই তাকে দ্বিতীয়বার টিকা পুশ করেন। এ বিষয়ে ওই ব্যক্তি ইউএইসএএফপিও ডা. বখতিয়াল আল মামুনকে লিখিত অভিযোগ করেছেন। বর্তমানে তিনি চরম আশংকার মধ্যে রয়েছেন।

হাসপাতালের ইউএইসএএফপিও ডা. বখতিয়াল আল মামুন জানান, অক্সিজেনের বিষয়টি হাসপাতালের আবাসিক মেডিকেল অফিসারের মাধ্যমে তদন্ত কমিটি গঠন করা হবে। তদন্ত রিপোর্ট পাবার পরে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে। একই দিনে এক ব্যাক্তিকে দুবার টিকা পুশ করার বিষয়ে লিখিত অভিযোগ পাবার সত্যতা স্বীকার করে ডা. বখতিয়ার আল মামুন আরও বলেন, ওই ঘটনায় নার্সকে শোকজ করা হয়েছে এমনকি তাকে দ্বায়িত্ব থেকেও অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

বিভাগীয় স্বাস্থ্য পরিচালক ডা. বাসুদেব কুমার দাস মন্ত্রী মহোদয়ের সাথে একটি জরুরী মিটিং এ থাকায় তিনি বক্তব্য দিতে পারেন নি।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]