গোল্ডেন আপেলখ্যাত বরিশালের আমড়ায় শিল্পীর কারুকাজ

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত আগস্ট ২৬ বৃহস্পতিবার, ২০২১, ০৬:৫৪ অপরাহ্ণ
গোল্ডেন আপেলখ্যাত বরিশালের আমড়ায় শিল্পীর কারুকাজ

হাফিজ শিকদার ॥ আসেন ভাই আসেন, একটা খাইয়া যান। একবার খাইলে আরেকবার খাইতে মন চাইব। ছিইল্লা-কাইট্টা লবণ লাগাইয়া দিমু, মাত্র ৫ টাকা। এভাবেই হাক-ডাক দিয়ে মৌসুমী ফল ব্যবসায়ীরা আমড়া বিক্রি করছেন বরিশাল নগরীর বিভিন্ন জনগুরুত্বপূর্ণ এলাকায়। তাদের হাক-ডাকে কিছুটা বিরক্ত হলেও সাজানো গোছানো কাঠিতে বসানো আমড়া নিয়ে যখন আশেপাশে ছুটাছুটি করে তখন জিব্বায় জল রাখা দায়। ফলগুলোকে ওরা বিশেষভাবে কেটে পরিবেশন করে। দেখতে দারুণ! এক বিশেষ আকর্ষণ। মনে হবে, এ যেন শিল্পীর কারুকাজ। গোল্ডেন আপেলখ্যাত বরিশালের আমড়া খেতে অনেক সুস্বাদু। তাই এর চাহিদা সমগ্র দেশব্যাপী। তবে এ অঞ্চলের উৎপাদিত আমড়া গুদামজাতকরণের কোন ব্যবস্থা না থাকায় মৌসুম শেষ হলেই অপেক্ষা করতে হয় আবার একটি বছর। বরিশাল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফরের উপপরিচালক হৃদয়েশ^র দত্ত জানিয়েছেন, শুধুমাত্র আমড়া-ই নয়, এ অঞ্চলের উৎপাদিত পঁচনশীল ফল যাতে নষ্ট হয়ে না এজন্য প্রান্তিক পর্যায়ে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র রক্ষণাবেক্ষণাগার তৈরীর জন্য মন্ত্রণালয়ে প্রকল্প প্রস্তাবনা পাঠানো হয়েছে।

আমড়া বাঙালির অতি প্রিয় একটি ফলের নাম। বিশেষ করে বরিশালের আমড়ার খ্যাতি রয়েছে সমগ্র দেশব্যাপী। এ অঞ্চলের আমড়ায় টক-মিষ্টির মিশ্রণে ভিন্ন এক স্বাদ পাওয়া যায়। কচি অবস্থায় টক। পরিপক্ক হলে খেতে বেশ লাগে। পাকা ফল খুবই মিষ্টি। আমড়ার সিংহভাগ কাঁচা খাওয়া হলেও ভর্তা, আচার, চাটনি আর পরিপক্ক ফল দিয়ে তৈরি করা যায় জুস, জেলি এবং মোরব্বার মতো লোভনীয় খাবার। গ্রামাঞ্চলের কেউ কেউ গোশতের সাথে আমড়া রেঁধে খান। ডালের সাথেও খাওয়া যায়। আমড়ার শাঁস সাদা। পাকলে হলুদ রঙ ধারণ করে। যে কারণে একে গোল্ডেন আপেল বলে। মাঘ-ফাল্গুনে আমড়ার মুকুল আসে। এর পরে ফল। কচি অবস্থায় ফলের বিচি নরম থাকে। পরিপক্ক হলে আঁটি বেশ শক্ত হয়।-অগ্রহায়ণে ফল পাকে। পাকা ফলের গন্ধ চমৎকার। দক্ষিণাঞ্চলের মাটি ও পানির জন্য এর ফলন ও গুণগতমান অনেক ভাল। প্রসিদ্ধ হিসেবে সবাই বরিশালের আমড়া বললেও বিভাগের পিরোজপুরের স্বরূপকাঠিকে (নেছারাবাদ) আমড়ার রাজধানী বলা যায়। কারণ, ওখানকার ফলন হয় সবচেয়ে বেশি। ঝালকাঠি, বরিশাল, ভোলা এবং বরগুনায়ও আমড়া ভালো ফলন হয়। এছাড়া দিন দিন আমড়ার উৎপাদন বৃদ্ধি ও উচ্চমূল্য পাওয়ায় এ অঞ্চলের অনেক মানুষই আমড়া চাষের দিকে ঝুঁকছেন।

বরিশাল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, ভালো ফলনের জন্য আমড়ার উচ্চফলনশীল জাত রয়েছে। এগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট উদ্ভাবিত বারি আমড়া-১ এবং বারি আমড়া-২। বারি আমড়া-১ বারোমাসি। গাছ বামনাকৃতির হয়। তাই বাড়ির ছাদেও লাগানো যায়। বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় একটি জাত উদ্ভাবন করেছে। নাম এফটিআইপি বাউ আমড়া-১।

বরিশাল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের অতিরিক্ত উপপরিচালক (শস্য) সাবিনা ইয়াসমিন জানান, এ অঞ্চলে আমড়ার আবাদী জমির পরিমান ৩৮০ হেক্টর। আর গত বছর এ অঞ্চলে ৩৮০০ মেঃটন আমড়া উৎপাদিত হয়েছে। চলতি মৌসুমে আরো বেশি ফলন হবে বলে তিনি আশা প্রকাশ করেন।

বরিশাল কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের অতিরিক্ত উপপরিচালক হৃদয়েশ^র দত্ত জানান, এ অঞ্চলে উৎপাদিত পঁচনশীল শস্য যাতে সঠিকভাবে রক্ষণাবেক্ষণ করা যায় এবং প্রক্রিয়াজাতকরণ করা যায় এজন্য একটি প্রকল্প প্রস্তাবনা মন্ত্রণালয়ে দেয়া আছে। তবে বৃহদাকারে নয় প্রান্তিক পর্যায়ে ক্ষুদ্র ক্ষুদ্র প্রকল্প প্রস্তাব করা হয়েছে। যা অনুমোদন পেলে এ অঞ্চলের কোন ফসলই আর নস্ট হবে না। তিনি বলেন, যেহেতু আমড়া এখন উচ্চমূল্যের একটি ফসল তাই অধিদফতরের মাঠকর্মীদের মাধ্যমে চাষীদের পাশাপাশি জনপ্রতিনিধিদেরও আমড়া চাষে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে আমড়ার পুষ্টিগুণ: আমড়ায় পুষ্টিগুণে টইটম্বুর। ভিটামিন-সি’র পাশাপাশি রয়েছে প্রচুর পরিমাণ লৌহ। তাদের মতে, এর প্রতি ১০০ গ্রাম ফলে (আহারোপযোগী) শর্করা ১৫ গ্রাম, আমিষ ১ দশমিক ১ গ্রাম, চর্বি ০ দশমিক ১ গ্রাম, খনিজ পদার্থ ০ দশমিক ৬ গ্রাম, ক্যালসিয়াম ৫৫ মিলিগ্রাম, লৌহ ৩ দশমিক ৯ মিলিগ্রাম, ক্যারোটিন ৮০০ মিলিগ্রাম, ভিটামিন-‘বি১থ ১০ দশমিক ২৮ মিলিগ্রাম, ভিটামিন-‘বি২ ০ দশমিক ০৪ মিলিগ্রাম, ভিটামিন-‘সিথ ৯২ মিলিগ্রাম এবং খাদ্যশক্তি রয়েছে ৬৬ কিলোক্যালরি।

ভেষজগুণ : আমড়ায় আছে যথেষ্ট ভেষজগুণ। কফ ও পিত্ত নিবারণের পাশাপাশি মুখে রুচি আনা এবং কন্ঠস্বর পরিষ্কারে এর ভূমিকা রয়েছে। জ¦র, সর্দি, কাশি, এমনকি ইনফ্লুয়েঞ্জার জীবাণুকে প্রতিরোধ করে। দাঁতের মাড়ি শক্ত রাখে। দাঁতের গোড়া থেকে রক্ত ও পুঁজপড়া বাঁধা দেয়। স্ট্রোক এবং হৃদরোগ নিয়ন্ত্রণ করে। পেকটিনজাতীয় আঁশ থাকায় বদহজম, পেট ফাঁপা, কোষ্ঠকাঠিন্যে দূরীকরণে সহায়তা করে। মুখের রুচি বাড়ায়। অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকায় আমড়া ক্যান্সার প্রতিরোধক। ভাইরাল ইনফেকশনের বিরুদ্ধে কাজ করে। রক্ত আমাশয় হলে আধা কাপ পানিতে ৩/৪ গ্রাম আমড়ার কষ, সেই সাথে ১ চা-চামচ গাছের রস এবং একটু চিনি মিশিয়ে খেতে হবে। ব্রণ, ফুস্কুড়ি কমাতে এবং ত্বক মোলায়েম ও উজ্জ¦ল রাখতে এর অবদান বেশ। আমড়ার পাতা, ছাল, শিকড় এবং বীজে ঔষষিগুণ আছে। পাতার তৈরি ‘চাথ জ¦র ও শরীরের ব্যথা দূর হয়। চা বানানোর জন্য পাতাগুলো ভালোভাবে ধুয়ে রোদে শুকানোর পর গুঁড়োকরে ব্যবহার করতে হবে। গাছের ছাল ছত্রাকজনিত সংক্রমণ প্রতিহত করার উপাদান রয়েছে। ফলের বীজ উচ্চরক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করে। এর শিকড় প্রজননজনিত রোগ নিরাময়ে অবদান রয়েছে। ভেষজবিদদের মতে, আমড়ায় গর্ভপাত হওয়ার উপাদান থাকায় গর্ভবতী নারীদের এ ফল খাওয়া নিষেধ। ডায়াবেটিস রোগীরা কাঁচা আমড়া খেতে পারবেন। তবে পাকা ফল নয়।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]