নারীরা কি কবর জিয়ারত করতে পারবেন?

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ৪ শনিবার, ২০২১, ০৫:৫০ অপরাহ্ণ
নারীরা কি কবর জিয়ারত করতে পারবেন?

ধর্ম ডেস্কঃ কবর জিয়ারত মানুষকে পরকালের কথা স্মরণ করিয়ে দেয়। দুনিয়ার অপরাধ কর্মকাণ্ড থেকে মুক্ত রাখে। এ কারণেই কবর জিয়ারত করা সুন্নাত। এ সুন্নাত আমল কি শুধু পুরুষের জন্য? নারীরা কি বাবা-মা, স্বামী-সন্তান, আত্মীয়-স্বজনের কবর জিয়ারত করতে পারবে না? এ সম্পর্কে ইসলামের দিকনির্দেশনাই বা কী?

দুনিয়ার খ্যাতি, সম্পদের প্রতিযোগিতা কিংবা ক্ষমতার মোহ কমাতে কবর জিয়ারতের বিকল্প নেই। এ কারণেই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তাঁর উম্মতকে কবর জিয়ারত করতে বলেছেন। এটি একটি সুন্নাতি আমল।

তবে এক সময় নারীদের কবর জিয়ারতে নিষেধাজ্ঞা থাকলেও পরবর্তীতে তা তুলে নেওয়া হয়েছে মর্মে হাদিসে বর্ণিত হয়েছে। ইসলামের প্রথম যুগে নারীদের জন্য কবর জিয়ারত করা নিষেধ ছিল। পরে নারীদের কবর জিয়ারতের অনুমতি দেওয়া হয়। বিধায় তারাও কবর জিয়ারত করতে পারবেন।

একাধিক হাদিস থেকে তা প্রমাণিত-
১. হজরত আলি রাদিয়াল্লাহু আনহু বর্ণনা করেছেন, হজরত ফাতেমা রাদিয়াল্লাহু আনহা প্রতি জুমআবার তাঁর চাচা হজরত হামজা রাদিয়াল্লাহু আনহুর কবর জিয়ারত করতেন। তিনি সেখানে নামাজ পড়তেন, কান্নাকাটি করতেন।’ (মুস্তাদরাকে হাকেম)

২. উম্মাহাতুল মুমিনিন হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহাও কবর জিয়ারত করতেন। হজরত আব্দুল্লাহ ইবনে আবি মুলাইকা বলেন, একদিন হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা কবরস্থান থেকে আসলেন। আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম, আপনি কোথা থেকে আসলেন? তিনি বললেন, আমি আমার ভাই আব্দুর রহমান ইবনে আবু বকরের কবরের কাছ থেকে আসলাম।

আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কি কবর জিয়ারত করতে নিষেধ করেননি?
তিনি উত্তরে বললেন, ‘হ্যাঁ’, রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম কবর জিয়ারত করতে নিষেধ করেছিলেন। কিন্তু পরবর্তীতে কবর জিয়ারতের আদেশ করেছিলেন।’ (মুস্তাদরাকে হাকেম, বায়হাকি)

৩. হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা প্রিয় নবি মুহাম্মাদুর রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, হজরত আবু বকর সিদ্দিক ও হজরত ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু কবর জিয়ারত করতেন।

নারীর কবর জিয়ারতে নিষেধাজ্ঞা জারি করেছিলেন স্বয়ং বিশ্বনবি। নারীর কবর জিয়ারতের নিষেধাজ্ঞার সুন্দর ব্যাখ্যা দিয়েছেন ইমাম তিরমিজি রাহমাতুল্লাহি আলাইহি। তিনি বলেছেন যে ইসলামিক স্কলারদের মতে, যে হাদিসে কবর জিয়ারতকারী নারীদের অভিশাপ করা হয়েছিল; সেটি ছিল ইসলামের প্রথম যুগের হাদিস। তখন কবর জিয়ারত ইসলামে নিষিদ্ধ ছিল। পরবর্তীতে যখন নিষেধাজ্ঞা উঠিয়ে নিয়ে কবর জিয়ারতের অনুমতি দেওয়া হয়েছে তখন সে অনুমতি পুরুষ-নারী নির্বিশেষে সবার জন্যই দেওয়া হয়েছে।

নারীর কবর জিয়ারতের অনুমতি দেওয়ার পরই রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের মেয়ে ফাতেমা ও স্ত্রী হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহু নিজেদের আপনজনদের কবর জিয়ারত করেছেন মমে হাদিস থেকে প্রমাণ পাওয়া যায়।

নারীর কবর জিয়ারতের শর্ত

তবে নারীর কবর জিয়ারতে রয়েছে শর্ত। কবর জিয়ারত করতে গিয়ে বেপর্দা হওয়া যাবে না। পর্দা রক্ষা করে সম্ভব হলেই কেবল নারীরা আজনজনদের কবর জিয়ারত করতে পারবেন। তাই নারীদের জন্য কবরস্থানের পরিবেশের প্রতি লক্ষ রাখতে হবে। কবরস্থানে কান্নাকাটি বিলাপ বা যে কোনো ধরনের শোরগোল করা যাবে না।

মনে রাখতে হবে

আপনজনের কবরের সঙ্গে যদি কোনো গায়রে মাহরামের কবর থাকে। যাদের সঙ্গে সম্পর্কের দিক থেকে বিয়ে বৈধ। এসব পরিপ্রেক্ষিতে জীবিত অবস্থায় যেভাবে তাদের সঙ্গে পর্দার বিধান ছিল ঠিক সেভাবে কবর জিয়ারতের ক্ষেত্রেও সতর ও পর্দার কথা স্মরণ করে কবর জিয়ারত করতে হবে।

হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা কীভাবে কবর জিয়ারত করতেন?

হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা ছিলেন রাসুলুল্লাহ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের স্ত্রী এবং হজরত আবু বকর রাদিয়াল্লাহু আনহুর মেয়ে। কিন্তু হজরত ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহু ছিল তার জন্য গায়রে মাহরাম। তিনি কিভাবে এ তিন জনের কবর জিয়ারত করতেন?

মুসনাদে আহমদ ও হাসিয়াতু জামিয়ালি মাসানিদ ওয়াল সুনানে এসেছে, আম্মাজান হজরত আয়েশা রাদিয়াল্লাহু আনহা বলেন, ‘যখন রওজা শরিফে আল্লাহর রাসুল ও আবু বকর সিদ্দিক রাদিয়াল্লাহু আনহুর কবর ছিল তখন আমি স্বাভাবিকভাবেই কবরের কাছে যেতাম। যখন হজরত ওমর রাদিয়াল্লাহু আনহুকে দাফন করা হয; (তিনি ছিলেন গায়রে মাহরাম) তখন আমি ভালোভাবে কাপড় পরে পর্দাসহ জিয়ারত করতাম।

নারীর কবর জিয়ারতের বিশেষ সতর্কতা

পর্দা ও পবিত্রতার সব শর্ত রক্ষা করে নারীরা আপনজনের (মাহরাম) কবরের কাছে যেতে পারবেন। তবে, তাদের জন্য পুরুষের মতো কবর জিয়ারতের সাধারণ নিয়ম প্রযোজ্য নয়। কারণ ইসলামের শত্রুরা নারীর কবর জিয়ারতকে অমর্যাদা হিসেবে দেখাতে চেষ্টা করে।

আর যারা ইসলামি শরিয়তের অনুসরণ ও অনুকরণ করে চলেন, তারা বেগানা পুরুষের কবরের পাশেও পর্দা রক্ষা করেন। অবশ্য একাকি কিংবা পারিবারিক কবরস্থানে যাওয়া বা কাছ থেকে দেখা, তাদের জন্য দোয়া করা নারীর জন্য নিষেধ নয়।

আপনজনদের কবরস্থানে যাওয়ার বা দোয়া করার অনুমতি থাকলেও নারীদের জন্য জানাজার নামাজে শরিক হওয়ার কোনো বিধান ইসলামি শরিয়তে নেই। আবার আলাদাভাবে জানাজা নামাজ বা মূল জামাআতে কোথাও তারা জানাজা পড়তে পারবেন না। নারীদের জন্য জানাজা ওয়াজিবও নয়। তবে তারা মৃতব্যক্তির জন্য দোয়া, দরূদ, কোরআন তেলাওয়াত, দান-সদকা ইত্যাদি করতে পারবেন। ( জামেউল ফাতাওয়া, ইসলামি ফিক্হ ও ফাতাওয়া বিশ্বকোষ)

সুতরাং মুমিন মুসলমান নারীর উচিত, পর্দা ও পবিত্রতার সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়া। কোনো ধরনের ফেতনা ও পর্দার লঙ্ঘন না হওয়ার সম্ভাবনা না থাকলে আপন-জনদের কবর জেয়ারত করতে যাওয়া। পর্দার খেলাপ হয় এমন অনুগামী হয়ে পুরুষদের সংশ্রব ও সংমিশ্রণ এড়িয়ে চলা। কবরের পাশে উচ্চ স্বরে বিলাপ বা শোরগোল থেকে মুক্ত থাকা। পর্দা ও পবিত্রতার খেলাপ হবে মনে করলে নারীদের কবর জিয়ারত করতে না যাওয়াই উত্তম।

আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহর সব নারীকে ইসলামের দিকনির্দেশনার ওপর যথাযথ আমল করার তাওফিক দান করুন। ইসলামের জন্য কল্যাণকর বিষয়ের প্রতি গুরুত্ব দেওয়ার তাওফিক দান করুন। আমিন।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]