হিমাদ্রিসদৃশ্য অটল প্রতিজ্ঞার নাম শেখ হাসিনা! 

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত সেপ্টেম্বর ২৮ মঙ্গলবার, ২০২১, ১০:৪৯ পূর্বাহ্ণ
হিমাদ্রিসদৃশ্য অটল প্রতিজ্ঞার নাম শেখ হাসিনা! 
সোহেল সানি : “মুজিবের মানসিক ও নৈতিক দৃষ্টিভঙ্গি এবং গুণাবলী,পরিমাণে কিছুটা কম হলেও,তাঁর কন্যা শেখ হাসিনার ব্যক্তিত্বে প্রতিভাত হয় (“For the spirit of Mujib is there, though diminished, in the personality of his daughter, Sheikh Hasina, who leads the party (Awami League) now”- The Gurardian, London, 11 July 1981) শেখ হাসিনা স্বদেশে ফেরেন ১৯৮১ সালের ১৭ মে। আর সেই বছরেরই ১১ জুলাই গার্ডিয়ান এ মন্তব্য করেছিল।
বিগত চল্লিশ বছরের রাজনৈতিক জীবন গার্ডিয়ানের মন্তব্যকেই যথার্থ করে তুলেছেন আওয়ামী লীগ প্রধান শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধুর আদর্শের প্রকৃত উত্তরাধিকারিত্বই তাঁর নেতৃত্ব বহন করছে। রাজনীতি ও রাজনীতির নানা বিষয়কে শেখ হাসিনার কাছে গুরুত্বপূর্ণ করে তোলার ক্ষেত্রে পিতা শেখ মুজিবের প্রত্যক্ষ ভুমিকা ছিলো না। কিন্তু প্রচ্ছন্নভাবে তাঁর কন্যার চোখে স্বাধীনতা ও সক্রিয়তাবাদের একটা আদর্শ হিসেবে নিজেকে দাঁড় করিয়ে ছিলেন। সেকারণেই শেখ হাসিনা তাঁর সাধারণ প্রবণতায় নিজেকে রূপান্তরিত করতেন স্বাধীনতা সংগ্রামের কর্মী হিসেবে। তাঁকে দেখা যেতো রাজপথের সাহসী মিছিলে পিতার মুক্তির দাবিতে। ছাত্রলীগের কর্মীরূপে কিংবা ইডেন কলেজ ছাত্রী সংসদের ভিপি হিসাবে। শেখ হাসিনার লক্ষ্যনীয় চারিত্রিক দৃঢ়তা বলে দেয় যে, একাত্তরের মুক্তিযুদ্ধকালীন তিনি অন্তঃসত্ত্বা না হলে নারী মুক্তিযোদ্ধা দলে নিশ্চয়ই  নাম লেখাতেন।
শেখ হাসিনার একটা মূহুর্তের জন্য ভুলে যাননি যে, তাঁর জন্ম এমন একটি পরিবারে -যে পরিবারের কর্তাব্যক্তি ” বাংলাদেশ নামক একটি স্বাধীন দেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। পিতার স্নেহাবেশে সমকালীন রাজনৈতিক ধারা, আওয়ামী লীগের গৌরবোজ্জ্বল যৌবনের সংগ্রামমুখর কর্মকাণ্ড এবং পূর্বাপর জাতীয় নেতাদের রণনীতি ও রণকৌশল স্বচক্ষে দেখেছেন, হাতে-কলমে শিখেছেন এবং গড়ে উঠেছেন সেভাবেই।
জাতির পিতার সর্বাধিক কাছে থাকার সুবাদে স্নেহধন্য হয়ে একধরনের “প্রচ্ছন্ন বড়ত্ব” অর্জন করেন। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার পর শেখ হাসিনার মাঝে থাকা সেই “প্রচ্ছন্ন বড়ত্ব” তাঁকে আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সমাসীন করে। যে পর্দার আড়ালে ঢেকে দেয়া হয়েছিল আওয়ামী লীগের সুনাম ও ঐতিহ্যের একেকটি ধারা, সেই পর্দার একেকটি স্তর নিজের তীক্ষ্ণবুদ্ধির ছুরি দিয়ে একটা একটা করে কেটে ফেলে আওয়ামী লীগকে আবার “জনগণের দল” হিসেবে পুনঃপ্রতিষ্ঠার পুরো কৃতিত্ব শেখ হাসিনার।
পৃথিবীর গ্রেট ব্যক্তিদের জীবন বড় বিচিত্র। প্রকারন্তরে তাঁরা একা, ভীষণ একা, অপরাহ্নের খাঁখাঁ রোদেলা আকাশে উড়তে থাকা চিলের মতো একা। ইতিহাসে যেসব ব্যক্তিকে গ্রেট বলা হয়, তার মধ্যে নেপোলিয়ন বোনাপার্টের নাম সর্বাগ্রে। ইতিহাসের জনকও বলা হয় তাঁকে। নেপোলিয়ন বোনাপার্ট বলেছিলেন, “আমি হয়তো পুরো পৃথিবীকে পায়ের তলায় রাখতে পারি, কিন্তু শান্তিময় নিদ্রার তো সাতটি রাতও দু-চোখের পর্দাকে এক করতে পারিনি।
শেখ হাসিনার ৭৫ তম জন্মদিন। তাঁর জন্মদিনে নেপোলিয়ন কথাগুলো মনে পড়ছে।  পৃথিবীর গ্রেটদের  তালিকায় তাঁর পিতা বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান এক অনবদ্য চরিত্র। বঙ্গবন্ধুকে হত্যার মাধ্যমে যেখানটাতে থামিয়ে দেয়া হয়েছে – সেখান থেকেই শেখ হাসিনা শুরু করেছেন। বহুমাত্রিক প্রতিভার স্বাক্ষর রেখেছেন  গত চার দশকের রাজনীতিতে। নিজেকে পৌঁছে দিয়েছেন অনন্য সাধারণ এক উচ্চতায়। ক্ষমতা, যশ ও খ্যাতির চূড়ায় অবতীর্ণ তিনি। কিন্তু তিনিও কী পরম প্রশান্তিতে নিজের দুটি চোখের পাতাকে এক করতে পেরেছেন একটি দিনের জন্য?শেখ হাসিনার জন্য ‘রাত’ বড় বিভীষিকার, বিষাদ-বেদনার, ঘোর অমানিশার। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট ঘাতকেরা ‘রাত’ কেড়ে নেয় তাঁর অবর্তমানে  বাবা-মা, ভাই-ভাবী, ছোট্ট আদুরে শেখ রাসেল ও আত্মীয়-পরিজনদের। শেখ হাসিনা নিজের এক লেখাতে পনেরো আগস্টের রাতকে বলেছেন, ‘কেয়ামতের রাত।
সেই শোকাবহ আগস্টের পরবর্তী মাস সেপ্টেম্বর। যে মাসে তাঁর জন্মদিন। তাঁর জীবন বর্ণাঢ্য। কিন্তু বড় বিচিত্র! জীবনের সব শুভের অন্তরালে প্রচ্ছন্ন পিতার দৃশ্যমান শূন্যতা। ‘অশুভ’ বারবার তাড়া করে। অবশ্য অদৃশ্যবাদী করুণাময়ের কৃপায় ‘অশুভ’ হয় পরাভূত। শেখ হাসিনার জীবনের মাহেন্দ্রক্ষণগুলো  বিস্ময়ের, সুগভীর শূণ্যতার। সেই শূণ্যতা, পিতৃত্বের- পিতৃসন্নিধানের!
একটি মানুষের জন্ম-মৃত্যুর মাঝে ঘটে যাওয়া বিষয়গুলোর সম্মিলনই জীবনকে সাজিয়ে দেয়। জীবন বর্ণাঢ্য হতে পারে, তেমনি হতে পারে সংক্ষিপ্ত। আবার প্রতিভার আমেজে, কিংবা মেধা ও গুণের মিশিলে জীবন হয়ে উঠতে পারে সুখময় সুসমৃদ্ধ। জীবনে  বেদনাবিধুর স্মৃতিও থাকে। কমবেশি উত্থান-পতনের স্রোতধারায় বয়ে চলা ঘটনাপ্রবাহের নামই হলো পরিপাটি বা পরিপূর্ণ জীবন। সুখ-দুঃখের জীবন। ঠিক সুখদুখমাখা  একটি জীবনের নাম শেখ হাসিনা। তিনি সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা। পিতার ন্যায় শেখ হাসিনাও প্রকৃষ্ট- প্রকৃত জাতীয়তাবাদী নেতা। ১৯৬৭ সালের ১৭ নভেম্বর শুভ পরিণয়, ১৯৭১ সালের ২৭ জুলাই  সন্তান প্রসবকাল পিতার  অবর্তমানে।
বেড়ে ওঠা জীবনের বিচিত্র গল্পটার শুরু ১৯৪৭ সালের ২৮ সেপ্টেম্বর সূর্যশোভিত রোদেলা দুপুরে। ইতিহাসের কী অদ্ভুত প্রদর্শন! ভারতবর্ষে চারশত বছরের রাজত্বে পালবংশের স্থপতি বুদ্ধিষ্ট   রাজা গোপালের ‘গোপালগঞ্জ’-এ ১৯২০ সালের ১৭ মার্চ জন্ম নেয়া শেখ মুজিবও এক  রাজা-মহারাজা। যাঁর নামে মুক্তা ঝরে, নীলাদ্রি আকাশে উড়ে লাল-সবুজের পতাকা, স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা। পিতার ন্যায়  নদীবিধৌত মধুমতী কোলআঁধারের ছায়াশান্ত পল্লীমঙ্গলারূপী  টুঙ্গিপাড়াতে ভূমিষ্ঠ শেখ হাসিনা। শেখ মুজিবুর রহমান ও শেখ ফজিলাতুন্নেছা রেণুর শুভ পরিণয় সে যেনো এক রূপকথার গল্প-গাঁথা। তেরো বছরের ছিপছিপে রোগাসোগা  কিশোর মুজিব। অধ্যয়নে সপ্তমী পার হয়নি চোখপীড়া রোগের কারণে। ফজিলাতুন্নেছা  রেণুর বয়স তখন তিন। মুজিব-রেণু চাচাতো ভাইবোন। রেণু বড় অবেলায় হারান পিতাকে। অনাথ শিশুকন্যা। অবুঝ রেণুর বয়োবৃদ্ধ দাদামহ কিশোর মুজিবের পিতা মৌলভি লুৎফর রহমানের কাছে কাছে দাবি করলেন, ‘লুৎফর তোমার বড়পুত্রের সঙ্গে আমার নাতনি রেণুর বিয়ে দাও। কখন চলে যাওয়ার ডাক আসে, আমি এখনই দু’নাতনির নামে সমস্ত বিষয়সম্পত্তি লিখে দিবো। মুরব্বি বলে কথা।  চাচার আবদার ফেলেন কি করে? ৩ বছরের রেণুর সঙ্গে ১৩ বছরের মুজিবের ‘নিকাহনামা’ রেজিস্ট্রি হলো ১৯৩৩ সালে। দু’বছরের মাথায় রেণু  হারালেন মাকে। শাশুড়ি মা তাঁর সান্নিধ্যে নিয়ে নিলেন পুত্রবধূকে। রেণু, মুজিবের মা সায়রা খাতুনের স্নেহ-মমতা পেতে থাকলো সাত বছর বয়স থেকে। বাল্যবিবাহ বলে তাদের ফুলশয্যায় বিলম্ব। পার হতে হয়েছে বেশ ক’টি বছর। ১৯৪২ সালে হয় মুজিব-রেণু দম্পতির মধুরেণ সমাপয়েৎ- ফুলশয্যা। কলকাতায় ছাত্রনেতা হয়ে ওঠা বাড়ন্ত মুজিব নিখিল বঙ্গ মুসলিম ছাত্রলীগের মধ্যমণি। কলকাতা ইসলামিয়া কলেজ ছাত্রসংসদের জিএস। বাংলার প্রধানমন্ত্রী হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ভাবশিষ্য  হিসাবে শেখ মুজিবের পরিচিতি গড়ে উঠেছে রাজধানী কোলকাতা জুড়ে। কোলকাতা তাঁর প্রাণ। মাঝেমধ্যে গোপালগঞ্জে আসা। যাহোক এভাবে এলো মুজিব-রেণুর দাম্পত্যের কন্যা সন্তান জন্মের মহামূহুর্তটি।
মানুষ বেদনা ভিন্ন নয়। আবার বেদনার উর্ধ্বেও থাকে কিছু গৌরব। কিন্তু শেখ হাসিনার জীবনপ্রবাহের স্রোতধারা   বিচ্ছিন্ন এবং বিষাদময়।  মায়ের গর্ভ থেকে পৃথিবীর আলোর মুখ দেখা শিশুটি পিতার  সান্নিধ্য পেলো না। পিতা মুজিব তখন সুদূর কোলকাতায়। দেশবিভাগের তন্দ্রাঘোরে, স্বাধীন বাংলার স্বপ্নদ্রষ্টা সোহরাওয়ার্দীর সাহচর্যে। পুত্র মুজিবকে টেলিগ্রাম করে পিতা লুৎফর রহমান জানান নাতনি হবার খুশীর খবরটি। কিন্তু ছুটে আসেননি মুজিব, মেয়ের মুখ দর্শন করতে। কোলকাতায় সাম্প্রদায়িক দাঙ্গায় পাঁচ লাখ হিন্দু-মুসলমানের জীবন প্রদীপ নিভে গেছে। স্বাধীন অবিভক্ত বাংলার স্বপ্নও তাতে ধূলিস্যাত। বঙ্গভঙ্গের লীলাখেলায় বাংলাও দু’টুকরো।  সোহরাওয়ার্দী-হাশিমদের  শেষ চেষ্টাটি ছিলো, পূর্ববাংলার অংশে কোলকাতাকে ফেলার। শেখ মুজিব তাই সন্তান হওয়ার খবরশুনেও আশায় বুক বেঁধে ছিলেন। তাঁর প্রিয় ‘লিডার’ সোহরাওয়ার্দী  তখন বিধ্বস্ত। মহাত্মা গান্ধীর সঙ্গে সোচ্চার পশ্চিম বাংলার মুসলমানদের বাঁচাতে। অবশেষে স্বপ্নভঙ্গ হলে শেখ মুজিব কলকাতার পাঠ চুকিয়ে ঢাকায় এসে ঘাট বাঁধেন।
মানুষের জীবন নামক যন্ত্রটা অকৃত্রিম। নিবুনিবু করে জ্বলে ওঠা প্রদীপশিখার আয়ুষ্কালের যোগবিয়োগে নেই এক পলকের ভরসা। তারপরও মানুষের ক্ষমতা আর ঐশ্বর্য লাভের বাসনা চির-অতৃপ্ত এবং অসীম। কেবল স্রষ্টার অসীমত্বে সমর্পণের মাধ্যমেই মানুষ তৃপ্তি পেতে পারে। আর এভাবেই ঈশ্বরের কৃপায় মানুষ হতে পারে রাজত্ব, ক্ষমতা, যশ ও  মহিমায় মহিমান্বিত। যেমনটি শেখ হাসিনা হয়েছেন। শেখ হাসিনার জীবন ঘটনাবহুল। ১৯৬৭ সালের ১৭ নভেম্বর বিয়ে  তখন পিতা কারাগারে অন্তরীণ। ১৯৭১ সালের ২৭ জুলাই যখন শেখ হাসিনা বন্দীদশা অবস্থায় পুত্র সন্তানের জন্মদেন তখন পিতা মুজিব  পাকিস্তানী কারাগারে, ফাঁসির হুকুমের আসামী হিসাবে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এম এ ক্লাশের ছাত্রী শেখ হাসিনাকে উপাচার্য ডঃ আব্দুল মতিন চৌধুরী ১৫ আগস্টের পরে জার্মানীতে যেতে বলেন। স্বামী ডঃ এমএ ওয়াজেদ মিয়ার জেদাজেদীতে তাঁকে যেতে হয় ১৯৭৫ সালের ২৯ জুলাই। সুবাদে বেঁচেও যান। বঙ্গবন্ধু স্বাধীন পাকিস্তানের অধীন পূর্ববাংলায় চলে আসেন কোলকাতা থেকে। ততদিনে পূর্ব বাংলা হয়ে গেছে পূর্ব পাকিস্তান।  ভালোদিন পথের বাঁকেই অপেক্ষা করছে, যেন একটু এগিয়ে যেতে হবে। দ্রুত মুজিবীয় কন্ঠ ভাষা সংগ্রামে। গণমুখে, আড্ডায়-আলাপে।  ছাত্রলীগের ময়দানে। সেবক ও সহচরের সংখ্যা দিনে দিনে বেড়ে ক্রমে হয়ে ওঠেন এক অজেয় শক্তি। পারিবারিক অন্তরঙ্গ সম্প্রীতির মায়াজাল তাতে ছিন্ন হলো। একজন ছিপেছিপে, দীর্ঘদেহী, ঘন ওল্টানো চুল মাথায়, খবরের কাগজ হাতে দাঁড়ানো শেখ মুজিব জ্বালাময়ী ভাষণ স্বপ্ন দেখালো স্বাধীনতার।
শেখ হাসিনাও বেড়ে উঠছিলেন। ১৯৫২ সালে শেখ মুজিব পরিবারকে নিয়ে এলেন ঢাকায়। কবি সুফিয়া কামাল শিশু শেখ হাসিনার হাতে তুলে দেন বই-খাতা-কলম। তিনি ভর্তি করে দেন নারী শিক্ষা মন্দিরে (বর্তমান শেরেবাংলা বালিকা বিদ্যালয়)। সেদিনও মেয়ের পাশে ছিলেন না পিতা শেখ মুজিব। শেখ হাসিনার হাসিমাখা শ্যামলীময়া মুখখানা যেনো ‘বাংলার মুখ।’ দেশের অকুতোভয়া  কান্ডারী। আত্নস্বার্থ বিসর্জন দিয়ে তিনি গণমানুষের সেবক। পিতার নিত্য সাহচর্যে ছিলেন না। তবুও তাঁর ঘটনা পরস্পরা ও অশ্রুতপূর্ব বিরল কতগুলো ঘটনা। ১৯৫৩ সালে মুজিব আরমানিটোলাস্থ ৮/৩, রজনীবোস লেনস্থ  আত্মীয়ের বাসায় নিয়ে আসেন পরিবারকে। স্ত্রী শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব সর্বংসহা, ধৈর্যের এক প্রতিমূর্তি। শত দুঃখ-কষ্টের মাঝেও যিনি এক মুহূর্তের জন্য হননি বিচলিত। সংগ্রামী স্বামীকে অহর্নিশ প্রেরণাদানকারী এক মহীয়সী নারী। মরণেও হয়েছেন স্বামীর সঙ্গী। সেই সুরমনী ফজিলাতুন্নেসার পরিবারের গল্প অশ্রসজল করে দেয় চোখ।
১৯৫৪ সালে শেখ মুজিব শিল্প বানিজ্য ও দুর্নীতিদমন মন্ত্রী। রজনীবোস লেন ছেড়ে পরিবার নিয়ে উঠতে হলো মিন্টোরোডের সরকারি বাসভবনে। কিন্তু সুখ বেশীদিন সইলো না। আবার ছাড়তে হলো বাসা। ১৯৫৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকারে এলে দ্বিতীয়দফা মন্ত্রী শেখ মুজিব। পূর্বপাকিস্তানে মুখ্যমন্ত্রী আতাউর রহমান খান। সারা  পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী আওয়ামী লীগ প্রতিষ্ঠাতা শহীদ সোহরাওয়ার্দী। শেখ মুজিবের আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও মন্ত্রীত্ব, দু’পদে থাকা গঠনতন্ত্র পরিপন্থী। সমালোচনার মুখে মুজিব সবাইকে বিস্মিত করে মন্ত্রীত্ব ত্যাগ করে দলীয় পদে দুর্বার হয়ে ওঠেন।মিন্টো রোডের সরকারি বাসা ছেড়ে এবার উঠলেন ৫৮ সেগুনবাগিচার এক ভাড়া-বাসায়। ১৯৫৮ সালের ১০ অক্টোবর জারি হলো জেনারেল আইয়ুব খানের সামরিক শাসন। বঙ্গবন্ধু ১৯৬৬ সালে দিলেন ছয়দফা। ১৯৬৫ সালে শেখ হাসিনা আজিমপুর বালিকা বিদ্যালয় থেকে মাধ্যমিক এবং ১৯৬৭ সালে উচ্চ মাধ্যমিকে উত্তীর্ণ হলেন।তিনি যখন ইডেন কলেজের ভিপি নির্বাচিত হলেন তখনো পিতা মুজিব আগরতলা ষড়যন্ত্র মামলায় কারাগারে।।
১৯৭৩ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ডিগ্রী অর্জনকারী  শেখ হাসিনা ১৯৭৫ সালে ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এমএ ক্লাসের বাংলা বিভাগের ছাত্রী।
শেখ হাসিনাও তাঁর মায়ের ন্যায় সদা হাস্যোচ্ছ্বল এক প্রাণময়ী নারী। পুরুষোত্তম পিতার সংগ্রামী আদর্শ ও সর্বংসহা মায়ের অসীম ধৈর্যই বুঝি তাঁর জীবনযুদ্ধে এগিয়ে যাবার পুঁজি। পিতার সোনারবাংলা গড়ার দৃপ্ত শপথ নেয়া তৃতীয়বারের প্রধানমন্ত্রী। ১৯৬৮ সালের ১৭ নভেম্বর শেখ হাসিনা যখন বিয়ের পিড়িতে, তখনো পিতা ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে। ফজলুল হক হলের ভিপি এমএ ওয়াজেদ মিয়ার সঙ্গে শেখ হাসিনার বিয়ের ঘটকালিটা করেন বঙ্গবন্ধুর ঘনিষ্ঠ সহচর ও মন্ত্রী রংপুরের মতিউর রহমান। তৎকালীন ছাত্রলীগ নেতারাও ছিলেন নেপথ্যে।  আত্মীয়-পরিজনহীন বিয়ের আসরে ছিল নাটকীয় পরিবেশ। যা কোন দিন মুছে যাবে না। বিয়ের উকিল শশুর মতিউর রহমানের স্ত্রী উপহার দেন ৪২০ টাকা মূল্যের বিয়ের শাড়িটা। চট্রগ্রামে হয় বিবাহোত্তর সংবর্ধনা। আয়োজন করেন আওয়ামী লীগ নেতা এম এ আজিজ। ১৯৬৯ সালে আগরতলা ষষড়যন্ত্র মামলাকে কেন্দ্র করে ডাকসু ভিপি তোফায়েল আহমেদের নেতৃত্বে সংঘটিত হয় গণঅভ্যুত্থান। শেখ হাসিনাও ছিলেন সেই  আন্দোলন-সংগ্রামের  সারথি।
গণঅভ্যুত্থানের মহানায়ক ছাত্রসংগ্রাম পরিষদের পক্ষে তোফায়েল আহমেদ ছাত্র জনসমুদ্র থেকে শেখ মুজিবুর রহমানকে দেন ‘বঙ্গবন্ধু’ উপাধি। তারপর ১৯৭০ সালের নির্বাচনে আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক বিজয়। এলো একাত্তর। ধানমন্ডীর ৩২ নম্বর সড়কের বাসভবন থেকে ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চ গ্রেফতার হলেন বঙ্গবন্ধু। পরিবারকে বাসভবন ছেড়ে উঠতে হলো ধানমন্ডির ১৮ নম্বর রোডের একটি বাসাতে। শুরু হয় পাকবাহিনীর প্রহরায় অন্তরীণের দুঃসহ দিনগুলোর। ১৯৭১ সালের ১ এপ্রিল এম এ ওয়াজেদ মিয়া শাশুড়ি, স্ত্রীসহ শেখ রেহানা ও শেখ রাসেলকে নিয়ে ওঠেন খিলগাঁও চৌধুরীপাড়ায় আরেকটি বাসায়। সন্তানসম্ভবা  শেখ হাসিনা এসময় অসুস্থ হয়ে পড়েন প্রসব বেদনায়। ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয় ডাঃ ওয়াদুদের তত্ত্বাবধানে। ১৯৭১ সালের ২৭ জুলাই রাত ৮ টায় পুত্র সন্তানের মা হলেন শেখ হাসিনা।  পাশে ছিলেন লিলি ফুপু। নানী বেগম মুজিব স্বামীর সঙ্গে মিলিয়ে নাতির নাম রাখেন সজিব। মা শেখ হাসিনা যুক্ত করেন জয় বাংলার ‘জয়’। সঙ্গে  জুড়ে দেয়া হয় পিতার নাম ওয়াজেদ। পূর্ণ নামে সজীব ওয়াজেদ জয়।
পশ্চিম জার্মানিতে থাকার সুবাদে বেঁচে যাওয়া দু’সন্তান সজীব ওয়াজেদ জয়, সায়মা ওয়াজেদ পুতুল ও ছোটবোন রেহানাসহ  বেঁচে যান শেখ হাসিনা। ১৯৮১ সালের ১৭ মে দিল্লি থেকে স্বদেশে ফিরেন। চারদশকের সংগ্রামমুখর রাজনীতি। ১৯ বার মৃত্যুর মুখোমুখি হতে হয় তাঁকে। চারবার প্রধানমন্ত্রী। ক্ষমতার দু’দশক পূর্ণতা পাবে মেয়াদপূর্ণে। যুদ্ধাপরাধীদের। বিচার হয়েছে বঙ্গবন্ধু হত্যার।শেখ হাসিনার খাঁটি দেশপ্রেম ও বাঙালি জাতির মহত্ত্ব একই প্রস্রবণ হতে উৎসারিত। দেশের মহামারি, দূর্যোগ আর সংকটে তা বারবার প্রমাণ করলেন জাতির পিতার কন্যা।
মরণঘাতক করোনার নীল দংশন হতে বাঁচাতে তাঁর মানবীয় গুণাবলীর ফল্গুধারা এখন একই স্রোতস্বিনীর শাশ্বত স্রোতধারায় প্রবাহিত।  একই মহামানবের সাগরে যা লীন হয়েছে। নেই কোনো ধর্মবর্ণ গোত্র। এই করোনার করাল গ্রাসে যতটাই প্রাণ কেড়ে নিক না কেন, আর যতই আক্রান্ত হোক না কেনো,  শেখ হাসিনা মোহনীয় ব্যক্তিত্বের আকর্ষণে সবার হৃদয় জয় করেছেন ইতিমধ্যে। সরকার বলতে মন্ত্রী পরিষদ নয়, সংসদও নয় এককভাবে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকই সর্বেসর্বা। নাম মাত্র একটি মন্ত্রিসভা। শেখ হাসিনা দেশকে এমন একটা সুউচ্চ শিখরে অবতীর্ণ করেছেন যে, বিদেশ রাষ্ট্রনায়করাও ভূয়সী প্রশংসায়। মানুষ সংখ্যাগরিষ্ঠ কে আর কে সংখ্যালঘিষ্ঠ তা আর আমলে নিতে চাচ্ছে না। এর কারণ মানুষ চায় শান্তি, শৃঙ্খলা,আর্থ সামাজিক উন্নয়ন ও স্থিতিশীল বাংলাদেশ। হরতাল, রাহাজাহী, সংহিসতায় অগ্নিসংযোগের অতীতে ফিরতেও চায়না। শেখ হাসিনা বিশ্বে  সমাদৃত হয়েছেন নেতৃত্বগুণে। ভবিষ্যতের চিত্র কিভাবে হবে, তা আল্লাহ জানেন। কেননা করোনা এমন মরণঘাতক তা নিস্তার পেতে সারা পৃথিবী নাস্তানাবুদ। এই ভাইরাস নামক করোনার প্রতিশোধ ওষুধ আবিস্কার নিয়ে তারা দিশেহারা। উৎকন্ঠিত। বিশ্বই বিচ্ছিন্ন। পরাশক্তির উপনিবেশিক শাসন এখন ফাঁপা বেলুনের মতো ফেঁটে গেছে। কিংকর্তব্যবিমূঢ় হয়ে পড়েছিল, চিকিৎসা  বিজ্ঞানীরা।
আশার কথা হচ্ছে, সব রাষ্ট্র বা সরকার প্রধান যখন দিকবিদিকশুন্য, আকাশেপানে তাকিয়ে, তখন পবিত্র জায়নামাজে প্রার্থনায় প্রধানমন্ত্রী। দেশের অনেক তারকা ব্যকিত্ব চিরঅচেনা দেশে করোনার চলে গেছে বহু প্রাণ। তারপরও নির্জীব বা নির্বিকার নয় প্রধানমন্ত্রী। রোম যখন পুরছিল, তখন নীরু বাঁশি বাজাচ্ছিলো, আর শেখ হাসিনা দুর্দমনীয় অসীম সাহসে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলার সর্বোত্তম পন্থা উদ্ভাবনের প্রচেষ্টারত। মৃত্যুতে শোক বিহ্বল হলেও  রাষ্ট্রনায়কের মনোবৃত্তিতে জাতির মনোবলকে চাঙ্গা রাখছেন। চিকিৎসক, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী, সাংবাদিক সবার পরিবারের প্রতি মানবাধিকার হাত প্রসারিত করেছেন। সত্যি তিনি গুনীমান্যি  মানবতাৎসর্গী এক প্রাণ।
জননেত্রী থেকে  দেশরত্নের অভিধা তাঁর প্রাপ্য। তাঁর দীর্ঘসময়ের শাসনকর্মে প্রমাণ মিলেছে, কর্তব্য সম্পাদনের হিমাদ্রি সদৃশ্য এক অটল প্রতিজ্ঞা তাঁর চরিত্রের বৈশিষ্ট্য। দৃঢ়তা তাঁর দৃষ্টিতে বিরাজমান। একেকটি সংকটে তিনি উদ্যোমী আত্মবিশ্বাসী আধুনিক বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা শুধু নয়, নির্মাতাও। শতসহস্র বিক্ষোভ, বিদ্রোহের ভ্রূকুটি, ইস্পাত-দৃঢ়  বিরোধিতার হুঙ্কার, তেজস্ক্রিয় আন্দোলন ও অবিরাম অগ্নিস্ফুলিঙ্গের আশঙ্কিত দাবানলে সরকার টলকানোর জঙ্গি হেফাজতের তান্ডবী ধ্বংসযজ্ঞের সম্ভাবনাকে নস্যাৎ করেছেন। অস্থিরতা তাঁকে  কর্তব্যকর্ম থেকে এতটুকু টলাতে পারেনি, এটাই তাঁর দূরদর্শী সুযোগ্য রাষ্ট্রনায়কের পরিচয়। কোনো পরাশক্তি শেখ হাসিনাকে পারছেনা তাঁর স্বীয় আদর্শ ও উদ্দেশ্য থেকে লক্ষ্যভ্রষ্ট করতে।
বিরাট কর্ম-সম্পাদনের জন্যেই  মহান আল্লাহ তাঁকে বাংলাদেশের নেতৃস্থানীয় আসনে আসীন করে সুমহান  দায়িত্ব অর্পণ করেছেন।
ধ্যানগম্ভীর মৌনঋষির মতো নীরবে শুধু কাজ করে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর  জীবন-মৃত্যু নিয়ে যারা নানা গুজব রটিয়ে খুশির জোয়ারে গা ভাসান, তারা বঙ্গবন্ধুর হত্যার সুফলভোগকারী। তাদের সমর্থকরা নিঃশেষিত নয়, তবে তারা ঘুরে দাঁড়াতে পারবেনা ইতিবাচক রাজনীতির ধারায় ফিরতে না পারলে।
সৃষ্টিকর্তা করোনায় কার  কখন প্রাণ সংহার করবে  তা সৃষ্টি কর্তা অবগত।  তবে দেশের এই মূহুর্তে সবচেয়ে বড়বেশি প্রয়োজন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বেঁচে থাকা। কারণ চোখ বুঝে কল্পনা করে দেখছি, বর্তমান নেতৃত্বে শেখ হাসিনার বিকল্প শেখ হাসিনা। আমি অন্যের আয়ুকাল নিয়ে বলার ঔদ্ধত্য প্রদর্শন সমীচীন নয়। আল্লাহ ব্যতীত কারো মৃত্যু সম্পর্কে আগাম বলাও গহির্ত অপরাধ। তবে আমি এতটুকু উদার মনস্ক ভাববোধ হতে স্বেচ্ছায় বলতে দ্বিধা করছি না যে, চোখে বুঝে দেখছি প্রধানমন্ত্রী বিহীন বাংলাদেশ অন্ধকার। আমার সন্তানদেরও মতো লাখো সন্তানের ভবিষ্যত অনিশ্চিত। যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় লালিত। আল্লাহ না করুন, পেশীশক্তির জোরে জঙ্গী উগ্রবাদীরা রাষ্ট্র দখল করলে আমাদের সন্তানেরা ৭১ এর পরিণতি বরণ করবে। সেই চিন্তায় আমি ঘুমেবিভোর থাকলে আচমকা লাফিয়ে চিৎকার করে উঠি। স্বপ্নে দেখি আমার কোমলমতি সন্তানরা স্কুল হতে উধাও হয়ে গেছে। আমার একার নয় প্রতিহিংসার নীল দংশনে বাঙালীরা চিরতরে নিঃশেষ হয়ে যাবো। ভয়ঙ্কর করোনা নিয়ে অশুভ কোনো ভাবনা নয়, শেখ হাসিনার আহবানে আসুন যা সামর্থ্য তাই নিয়ে প্রতিবেশীর পাশে দাঁড়াই। মানুষকে নিরাপদে রাখতে সচেতন করি।
নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামীন শেখ হাসিনাকে রক্ষা করবে দেশমাতৃকার জন্য। শেখ হাসিনা আল্লাহর কৃপায় তাইতো বারবার মৃত্যু দূয়ার থেকে ফিরে আসেন। তার মহান পিতার স্বপ্নের সোনার বাংলাকে ডিজিটাল রূপে সাজাচ্ছেন কি নিরলস শ্রম দিয়ে। বাংলাদেশ আজ বিশ্বের কাছে উন্নয়নের রোল মডেল। সত্যিই হিমাদ্রিসদৃশ্য অটল এক প্রতিজ্ঞার নাম শেখ হাসিনা।
লেখকঃ সিনিয়র সাংবাদিক,  কলামিস্ট ও ইতিহাসবেত্তা।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]