কলাপাড়ায় এবার প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ ১১জনকে আদালতের শোকজ

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত নভেম্বর ১৪ রবিবার, ২০২১, ০৮:৫২ অপরাহ্ণ
কলাপাড়ায় এবার প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ ১১জনকে আদালতের শোকজ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ কলাপাড়া উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো: আবুল বাশার, সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা এস এম বজলুল করিম সহ ১১ জনকে কারন দর্শানোর নির্দেশ দিয়েছেন বিজ্ঞ কলাপাড়া সিনিয়র সহকারী জজ আদালত।

 

আদালতের বিজ্ঞ বিচারক মো: আনোয়ার হোসেন ১৪ নভেম্বর কারন দর্শানোর এ আদেশ জারি করেন। ১০৫ নং বৌলতলি সৈয়দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র অভিভাবক মো: কামাল হোসেন’র দায়েরকৃত মোকদ্দমার আরজি শুনানী শেষে আদালত এ আদেশ দেন।

 

আদালত সূত্র জানায়, বৌলতলি সৈয়দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদের নির্বাচন সংক্রান্ত তফসিল সহ সকল কার্যক্রম বন্ধে কেন স্থগিতের আদেশ প্রদান করা হইবেনা তদমর্মে নোটিশ প্রাপ্তির সাত দিনের মধ্যে উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবুল বাশার, সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা এসএম বজলুল করিম, ধূলাসার সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো: দেলোয়ার হোসেন (প্রিজাইডিং অফিসার), ১০৫ নং বৌলতলি সৈয়দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গাজী হারুন অর রশিদ সহ ১১ জনকে কারন দর্শাতে বলেছেন আদালত।

 

বাদী পক্ষের নিযুক্তীয় কোশলী অ্যাডভোকেট মো: আনোয়ার হোসাইন জানান, ১০৫ নং বৌলতলি সৈয়দপুর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পরিচালনা পর্ষদ নির্বাচনের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রিজাইডিং অফিসার মো: দেলোয়ার হোসেন সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক গাজী হারুন অর রশিদের যোগ-সাজশে এবং প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা দ্বয়ের সহায়তায় বিবাদীরা যাতে বে-আইনী ভাবে স্কুল পরিচালনা কমিটির তফসিল ঘোষনা করে বে-আইনী ভাবে কমিটি গঠন করতে না পারে তার প্রতিকারে বিজ্ঞ আদালতে বাদী এ মোকদ্দমা আনয়ন করেন।

 

এদিকে বাদী তার মোকদ্দমার আরজিতে বলেন, তিনি তফসিল ঘোষিত নির্বাচনে একজন অংশগ্রহনেচ্ছুক প্রার্থী হওয়া সত্ত্বেও বিবাদীরা গোপনে নির্বাচন সংক্রান্ত সকল কার্যক্রম সম্পন্ন করেছেন। এতে ক্ষুব্ধ বাদী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা’র কাছে সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে অপসারন সহ পুন:রায় তফসিল ঘোষনার জন্য লিখিত আবেদন করলেও শিক্ষা কর্মকর্তা বিবাদীদের দ্বারা প্রভাবিত হওয়ায় তিনি কোন প্রতিকার পাননি। এতে বিদ্যালয়ের স্বার্থে বাদী মোকদ্দমা দায়ের করেন। যাতে বিবাদীরা গনপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রাথমিক ও গনশিক্ষা মন্ত্রনালয়ের ৬ নভেম্বর ২০১৯ তারিখের জারিকৃত ৩৮.০০৮.০৩৫.০০.০০৭.২০১২.৬৮৮নং প্রজ্ঞাপন অনুযায়ী তফসিল ঘোষনা না করে তফসিল ঘোষনা গোপন রেখে কমিটি গঠনের পায়তারায় লিপ্ত রয়েছেন।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]