পটুয়াখালীতে বন্দি থাকা ১৮ টি পাখি মুক্ত

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত মে ৮ শনিবার, ২০২১, ০৪:০০ অপরাহ্ণ
পটুয়াখালীতে বন্দি থাকা ১৮ টি পাখি মুক্ত

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ পটুয়াখালী সদর উপজেলার লাউকাটী ইউনিয়নে অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন বাড়ি এবং সংঘবদ্ধ পাখি শিকারিদের কাছ থেকে উদ্ধার করা তিন প্রজাতির ১৮টি ঘুঘু মুক্ত আকাশে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

 

শনিবার (৮ মে) বেলা সাড়ে ১১টায় ডিসি বাংলো সড়কে খাঁচা থেকে পাখি অবমুক্ত করা হয়। পটুয়াখালী এনিমেল লাভার নামে একটি সংগঠনের সদস্যরা বন বিভাগের সহযোগিতায় এসব পাখি উদ্ধার করেছিল।

 

প্রাণি কল্যাণ সংগঠন পটুয়াখালী এনিমেল লাভার চেয়ারম্যান নওশিন আফরোজ বলেন, বৃহস্পতিবার খবর পাই সদর উপজেলার মধ্য ডেউখালী এলাকায় সুলতান ফকির নামে এক ব্যক্তি নিয়মিত ডাহুক ধরে তা বিক্রি করছে। শুক্রবার তাকে সচেতন করতে আমরা সেখানে যাই। তার কাছে থাকা বেশ কিছু ডাহুক পাখি অবমুক্ত করা হয়। ওই বাড়ি থেকে জানতে পারি ওই এলাকার অনেক মানুষ ঘুঘু পাখি শিকার করেন। পারিবারিকভাবে অনেক দিন পর্যন্ত তারা সেখানে ঘুঘু লালন পালন করছেন।

 

jagonews24

তিনি আরও বলেন, ওই এলাকার পাঁচটি বাড়ি থেকে মোট ১৮টি ঘুঘু উদ্ধার করা হয়। এ সময় ১৯টি পাখির খাঁচা জব্দ করা হয়।

 

ঘুঘু ধরার কৌশল সম্পর্কে নওশিন আফরোজ বলেন, ‘ঘুঘু পাখির ডানা কেটে দেয়া হয়। যার ফলে পাখিগুলো ওড়ার শক্তি হারিয়ে ফেলে। এর ফলে খাঁচার মধ্যে ঝাপটা ঝাপটি কমে যায়। ওই সব ডানা কাটা ঘুঘু দিয়ে ফাঁদ পাতেন ওই ব্যক্তিরা।

 

jagonews24

 

পটুয়াখালী বন বিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মো. আমিনুল ইসলাম বলেন, জেলায় পাখি শিকারের প্রবণতা রয়েছে। সম্প্রতি সময়ে গুলি দিয়ে পাখি শিকার করায় বন বিভাগ থেকে মামলা দায়ের করা হয়েছে। পটুয়াখালী বন বিভাগ, পটুয়াখালী এনিমেল লাভার সংগঠনের কর্মীরা বিভিন্ন সময় কাজ করছে এবং তারা পাখি আটক করছে। যারা এ ধরনের অবৈধ কাজ করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। ২০২০ সালের পাখি নীতিমালা অনুযায়ী দেশীয় পাখি লালন পালন করা সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ করা হয়েছে। যারা আইন বহির্ভূত কাজ করবে তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]