বরিশালে অসহায় মানুষের মানবতার বাজার বন্ধে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র: বাসদ

Barisal Crime Trace -HR
প্রকাশিত মে ৮ শনিবার, ২০২১, ০৪:৩৩ অপরাহ্ণ
বরিশালে অসহায় মানুষের মানবতার বাজার বন্ধে রাজনৈতিক ষড়যন্ত্র: বাসদ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বরিশালে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত শ্রমজীবী মানুষের খাদ্যসহায়তায় চালু হওয়া ‘মানবতার বাজার’ বন্ধ করে দেয়ার রাজনৈতিক ষড়যন্ত্রের প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে বাংলাদেশের সমাজতান্ত্রিক দলের (বাসদ)।

শনিবার (৮ মে) বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে নগরীর ফকির বাড়ি রোড বাসদের কার্যালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন থেকে এ অভিযোগ করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে বাসদের বরিশাল জেলার আহবায়ক ইমরান হাবিব রুমন, সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী, সমাজতান্ত্রিক শ্রমিক ফ্রন্ট বরিশাল জেলার সাধারণ সম্পাদক মানিক হাওলাদার, সমাজতান্ত্রিক ছাত্র ফ্রন্ট বরিশাল মহানগর শাখার প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক বিজন শিকদার, দপ্তর সম্পাদক সাইফুল ইসলাম, সমাজতান্ত্রিক মহিলা ফোরাম বরিশাল জেলার সংগঠক রিতা ব্যাপারী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সংবাদ সম্মেলনে বাসদের সদস্য সচিব ডা. মনীষা চক্রবর্তী লিখিত বক্তব্যে বলেন, বাসদের উদ্যোগে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় শ্রমজীবী মানুষকে খাদ্য সহায়তা দেয়ার জন্য গত বছর ১২ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়া ‘মানবতার বাজার’ ব্যাপক সুনাম কুড়িয়েছে। পরবর্তীতে দেশের ভেতরে বিভিন্ন জায়গায়, এমনকি দেশের বাইরেও এই মানবতার বাজারের মডেলে ত্রাণ কার্যক্রম আমাদেরকে উৎসাহিত করেছে। গত বছর এই ‘মানবতার বাজার’ থেকে ১৫ সহস্রাধিক মানুষকে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছিল।

ডা. মনীষা চক্রবর্তী আরও বলেন, মানবতার বাজারের মাধ্যমে বিনামূল্যে খাদ্য সামগ্রী বিতরণসহ আমাদের ফ্রি অক্সিজেন ব্যাংক, ফ্রি করোনা অ্যাম্বুলেন্স সার্ভিস, করোনা রোগীদের ফ্রি চিকিৎসা, মানবতার কৃষি, মানবতার পাঠশালাসহ আমাদের নানান আয়োজন দেশবাসীর মাঝে নিয়ে যাওয়ার জন্য বরিশালের সাংবাদিকদের নিরলস প্রচেষ্টাকে আমরা সবসময়ই শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করি।

তিনি বলেন, লকডাউনে শ্রমজীবী কর্মহীন মানুষের কথা ভেবে গত ৬ মে থেকে আমরা আবারও মানবতার বাজার পরিচালনা করে আসছিলাম। দুইদিনে এই মানবতার বাজার থেকে ৫০০ শতাধিক শ্রমজীবী দুস্থ মানুষকে খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে। আমরা নগরীর অমৃত লাল দে কলেজ মাঠে অস্থায়ীভাবে স্থাপিত মানবতার বাজার থেকে মানুষকে খাদ্য সহায়তা করে আসছিলাম। শুক্রবার সন্ধ্যায় হঠাৎ করে আমাদের মানবতার বাজারটি করতে দেয়ার বিষয়টি অমৃত লাল দে কলেজ কর্তৃপক্ষ অপারগতা প্রকাশ করে অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা বলেছে।

অমৃত লাল দে কলেজ কর্তৃপক্ষ সরাসরি না বললেও বিভিন্ন সূত্র থেকে আমরা জানতে পেরেছি, রাজনৈতিক একটি দলের চাপের মুখে এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হয়েছে। এরপর আমরা আরও কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যোগাযোগ করি এবং মানবতার বাজার পরিচালনা করার জন্য অনুরোধ করি। প্রথমে তারা খুশি হয়ে অনুমতি দিলেও পরবর্তীতে তারাও একই রাজনৈতিক চাপের কাছে নতি স্বীকার করে আমাদের প্রতিষ্ঠান ব্যবহার করতে দেয়ার ব্যাপারে অপারগতা প্রকাশ করেন।

ডা. মনীষা বলেন, বরিশালের রাজনৈতিক দলগুলির মধ্যে বর্তমানে একমাত্র বাসদই ধারাবাহিকভাবে ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালনা করছে। এটা অনেকের কাছেই একটি অস্বস্তির বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে আমরা মনে করি। রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে প্রতিদ্বন্দ্বিতা মানে আমাদের কাছে ভালো কাজের প্রতিযোগিতা কিন্তু ক্ষমতাসীন ও প্রভাবশালী মহল এই প্রতিদ্বন্দ্বিতাতে ভালো কাজ বন্ধ করার ষড়যন্ত্রে পরিণত করেছে। নিজেদের অকর্মণ্যতা ও গণবিছিন্ন চরিত্রকে না পাল্টে বরং তারা আমাদের কর্মকাণ্ডকে ক্ষতিগ্রস্ত করার জন্য ঘৃণ্য পরিকল্পনা গ্রহণ করেছে। কিন্তু আমাদের কর্মকাণ্ড এ ধরনের বাঁধা দিয়ে বন্ধ করা যাবে না।

ইতিপূর্বে আমরা বরিশালে করোনা আক্রান্ত রোগীদের জন্য বিনামূল্যে আইসোলেশন সেন্টার চালু করার উদ্যোগ নিয়েছিলাম। কিন্তু কোনো ভেন্যু না পাওয়ায় আমরা সেটা করতে পারিনি। তাই আমরা ঝুঁকি নিয়ে হলেও করোনা আক্রান্ত রোগীদের বাসায় বাসায় গিয়ে চিকিৎসাসেবা প্রদান করছি। গতবছরও আমাদের ‘মানবতার বাজার’ উচ্ছেদের ঘৃণ্য অপচেষ্টা করা হয়েছিল, কিন্তু জনগণের প্রতিরোধের মুখে সেই সময় সেই ষড়যন্ত্রকারীরা সফল হতে পারেনি। অশুভ শক্তির বিরুদ্ধে আমাদের এই লড়াইয়ে আমরা জনগণকে পাশে চাই। আর ষড়যন্ত্রকারী মহলের প্রতি আহ্বান বাধা না দিয়ে ত্রাণ বিতরণ করুন। অন্যদের ভালো উদ্যোগকে বাধাগ্রস্ত না করে নিজেরা আরও ভালো কিছু করার চেষ্টা করুন।

সংবাদ সম্মেলনে কোনো রাজনৈতিক দল বা কার কারণে মানবতার বাজার বন্ধ হল তা জানতে চাওয়া হলে, বাসদ নেতারা তা সরাসরি প্রকাশ করেন নি। তবে ষড়যন্ত্রকারী গত সিটি করপোরেশন নির্বাচনে বাসদের প্রার্থীর বিরুদ্ধে ছিল বলে তারা তারা ইঙ্গিত দেন ।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]