সংসদে মিথ্যা বলেছেন বরিস জনসন, দাবি সাবেক সহকারীর

Barisal Crime Trace -IS
প্রকাশিত জানুয়ারি ১৯ বুধবার, ২০২২, ০৯:৪২ পূর্বাহ্ণ
সংসদে মিথ্যা বলেছেন বরিস জনসন, দাবি সাবেক সহকারীর

অনলাইন ডেস্ক: ব্রিটেনজুড়ে লকডাউন চলাকালীন কোভিড বিধি ভেঙে পার্টিতে অংশ নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের বিরুদ্ধে।

গত সপ্তাহে ব্রিটিশ পার্লামেন্টে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন অবশ্য বলেছেন পার্টির কথা তিনি জানতেন না। কাজের ফাঁকে মিনিট পঁচিশের জন্য সেদিন ১০ ডাউনিং স্ট্রিটের বাগানে গিয়েছিলেন তিনি। সেখানে উপস্থিত কয়েকজন সরকারি কর্মকর্তাকে মহামারীর মধ্যেও কাজ চালিয়ে যাওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানানোই তার উদ্দেশ্য ছিল।
সেখানে ৩০ জনের মতো লোক জমায়েত হয়েছে, তা তিনি বুঝতে পারেননি। তবে প্রধানমন্ত্রী গোটা দেশের সামনে পুরোটাই মিথ্যা বলেছেন বলে দাবি করলেন তারই প্রাক্তন বিশেষ উপদেষ্টা ডমিনিক কামিংস। যার ফলে বরিস আরও প্যাঁচে পড়বেন বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

বিষয়টি নিয়ে বরিসের ইস্তফা দাবি করে আগেই সরব হয়েছেন বিরোধীরা। এবার খোদ প্রধানমন্ত্রীরই প্রাক্তন উপদেষ্টা তাকে মিথ্যাবাদী বলায় ব্রিটিশ রাজনীতিতে নতুন করে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। নিজের একটি ব্লগে কামিংস দাবি করেছেন, ওই পার্টির আয়োজন করা হলে কোভিডবিধি ভঙ্গ হবে বলে আগেই বরিসকে সতর্ক করেছিলেন তিনি। কিন্তু কামিংসের অভিযোগ, তার কথায় কর্ণপাত করেননি প্রধানমন্ত্রী। এমনকি ১০ ডাউনিং স্ট্রিটের পক্ষ থেকে পার্লামেন্টে যে দাবি করা হয়েছে, এই পার্টি সংক্রান্ত কোনও মেইল বরিস দেখেননি, তা-ও সত্যি নয় বলে দাবি করেছেন কামিংস।

কামিংসের সঙ্গে বরিসের বর্তমান সম্পর্ক একেবারেই ভাল নয়। কিন্তু ২০২০ সালের মে মাসে, যে সময়ে কোভিডবিধি লঙ্ঘন করে খাস প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবনের বাগানে ওই পার্টির আয়োজন করা হয়েছিল, তখন কামিংস ছিলেন বরিসের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ সহযোগী। ১০ ডাউনিং স্ট্রিটের আরও দুই প্রাক্তন কর্মীও সম্প্রতি একটি প্রথম সারির ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমের কাছে দাবি করছেন যে, ওই সময়ে কামিংস তাদের জানিয়েছিলেন যে তিনি পার্টি না করার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে সতর্ক করেছেন।

সেদিনের পার্টির আয়োজন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রীর প্রধান ব্যক্তিগত সচিব মার্টিন রেনল্ডস। পার্টিতে ১০০ জনকে আমন্ত্রণ জানানো হলেও সেদিন এসেছিলেন ৩০ জন। কামিংসের দাবি, আমন্ত্রিতদের সকলেই ছিলেন সরকারি কর্মকর্তা। তবে শুধু বরিসকেই নয়, রেনল্ডসকেও পার্টির আয়োজন করতে বারণ করেছিলেন কামিংস। যার জবাবে রেনল্ডস কামিংসকে জানান, পারস্পরিক দূরত্ব বিধি বজায় রাখলে কোভিড বিধি লঙ্ঘন হবে না বলেই মনে করছেন তিনি। বরিসও এতে আপত্তি করবেন না বলেও তখন জানিয়েছিলেন রেনল্ডস।

তবে শুধু ওই এক দিনের পার্টি নয়। লকডাউন ও বিধির কড়াকড়ি চলাকালীন ১০ ডাউনিং স্ট্রিটে এই ধরনের মোট ১৫টি অবৈধ পার্টির তদন্ত শুরু হয়েছে ব্রিটেনে। সরকারি কর্মকর্তারা মনে করছেন আগামী সপ্তাহেই এ নিয়ে রিপোর্ট জমা দেবে তদন্ত কমিটি। সেই পার্টিগুলোতে কতজন করে অতিথি উপস্থিত ছিলেন এবং তাতে কত মাত্রায় কোভিডবিধি লঙ্ঘন হয়েছিল, তা খতিয়ে দেখবে সেই কমিটি।

তবে পার্লামেন্টে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রীর মিথ্যা বলার শাস্তি কী হতে পারে, তা নিয়ে জল্পনা শুরু হয়ে গিয়েছে ব্রিটেনে। এর মধ্যেই এক ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যমকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে ব্রিটিশ উপপ্রধানমন্ত্রী ডমিনিক রাব দাবি করেছেন, পার্লামেন্টে কোনও রাজনীতিক মিথ্যা বলে গোটা দেশ ও এমপিদের বিভ্রান্ত করলে তার ইস্তফা দেওয়াই উচিত।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]