দীর্ঘ হচ্ছে লাশের সারি, করোনায় ৮৯ পুলিশ সদস্যের মৃত্যু

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত এপ্রিল ৯ শুক্রবার, ২০২১, ০৫:৩৭ অপরাহ্ণ
দীর্ঘ হচ্ছে লাশের সারি, করোনায় ৮৯ পুলিশ সদস্যের মৃত্যু

নিজস্ব প্রতিবেদক ।। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে এ পর্যন্ত বাংলাদেশ পুলিশের ৮৯ সদস্য প্রাণ দিয়েছেন।

 

তাদের অধিকাংশই জনগণের সেবায় মাঠে দায়িত্বপালন করতে গিয়ে প্রাণঘাতী ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন।

 

পুলিশ সদরদফতর থেকে জানানো হয়েছে, এর মধ্যে ৮৩ জন পুলিশের সদস্য।

বাকি ৬ জন বিভিন্ন মন্ত্রণালয় থেকে এসে পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটে দাফতরিককাজে সংযুক্ত ছিলেন।

 

শুক্রবার (৯ এপ্রিল) ভোর পর্যন্ত বাংলাদেশ পুলিশের মোট ২০ হাজার ৭৩ জন সদস্য করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

তাদের মধ্যে পুলিশের ১৭ হাজার ৪৬২ এবং র‍্যাবের ২ হাজার ৬১১ জন রয়েছেন।

 

এর মধ্যে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) ৩ হাজার ৩৯০ জন সদস্য রয়েছেন। সংক্রমণের শুরু থেকে একক পেশা হিসেবে সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত হয়েছেন পুলিশের সদস্যরা।

 

আক্রান্তদের মধ্যে সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১৯ হাজার ২০০ জন যা পুলিশে মোট আক্রান্তের প্রায় ৯৫ শতাংশ।

 

বর্তমানে ৩৬২ পুলিশ সদস্য করোনার উপসর্গ নিয়ে আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি রয়েছেন। কোয়ারেন্টাইনে রয়েছেন ২১৩ জন পুলিশ সদস্য।

 

আক্রান্ত হচ্ছেন ঊর্ধ্বতনরা

পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তার মধ্যে সবশেষ গত ২৫ মার্চ ডিএমপির গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার (প্রধান) এ কে এম হাফিজ আক্তার করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

 

১৫ দিন ধরে তিনি রাজারবাগের কেন্দ্রীয় পুলিশ লাইন্স হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এছাড়াও ঢাকার আলোচিত পুলিশ অফিসার ঢাকা রেঞ্জের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) হাবিবুর রহমানও ভাইরাসটিতে আক্রান্ত হয়েছেন। তিনি ১৬ দিন একই হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

 

বুধবার (৭ এপ্রিল) করোনামুক্ত হয়ে তিনি বাসায় ফেরেন।

 

পুলিশ সদরদফতরের এআইজি (মিডিয়া) সোহেল রানা বলেন, ‘মাঠে নিয়োজিত সদস্যরা যেন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে ও সুরক্ষিত থাকতে পারেন, সেজন্য সচেতনতার পাশাপাশি সরকার নির্দেশিত স্বাস্থ্যবিধি জানানো হচ্ছে।

 

জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারাও বিভিন্ন ইউনিটে গিয়ে তাদের সঙ্গে এসব নিয়ে কথা বলছেন।

সুরক্ষা সামগ্রী ও পর্যাপ্ত জীবাণুনাশক সরবরাহে এবং ব্যবহার নিশ্চিত করা হয়েছে।

 

পুলিশ সদস্যদের মধ্যে করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদের নির্দেশে বিভিন্ন ধরনের প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

একইসঙ্গে আক্রান্ত পুলিশদের জন্য সর্বোত্তম সেবা নিশ্চিত করতে বেসরকারি হাসপাতাল ভাড়া করাসহ সব পুলিশ হাসপাতালগুলোতে চিকিৎসার জন্য পর্যাপ্ত পরিমাণ উন্নত চিকিৎসা সরঞ্জামাদি সংযোজন করা হয়েছে।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃbarishalcrimetrace@gmail.com