মুলাদীতে নানির বিরুদ্ধে নাতনিকে হত্যাচেষ্টা, থানায় অভিযোগ

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত জুন ৩ বৃহস্পতিবার, ২০২১, ০২:০৭ অপরাহ্ণ
মুলাদীতে নানির বিরুদ্ধে নাতনিকে হত্যাচেষ্টা, থানায় অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বরিশালের মুলাদী উপজেলার চরকালেখান গ্রামে আট মাস বয়সী নাতনিকে আছাড় দিয়ে হত্যাচেষ্টার ঘটনায় নানির বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়া হয়েছে। আহত নাতনির নাম নুশরাত। তাকে মুলাদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় বুধবার (২ জুন) বিকেলে শিশু নুশরাতের মা নিশি আক্তার মুলাদী থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। অভিযোগে তার মা রাজিয়া বেগমকে গ্রেফতার করে কঠোর শাস্তির দাবি জানিয়েছেন তিনি।

অভিযুক্ত রাজিয়া বেগম চরকালেখান ইউনিয়নের চরকালেখান গ্রামের শাহজাহান ঘরামীর স্ত্রী। অভিযোগকারী নিশি আক্তার তার আপন মেয়ে।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, ২০১২ সালে একই এলাকার রেজাউল করিম নামের এক যুবকের সঙ্গে নিশি আক্তারের পরিচয় হয়। পরে রেজাউল করিমের সঙ্গে তার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তখন তার মা রাজিয়া বেগম এতে বাধা দেন। ২০১৩ সালে মায়ের ইচ্ছের বিরুদ্ধে গিয়ে তিনি রেজাউল করিমকে বিয়ে করেন। এতে তার মা রাজিয়া বেগম ক্ষিপ্ত হন। বিয়ের দু’বছর পর তার কন্যাসন্তান হয়। তবে তার মা রাজিয়া বেগম তাদের বিয়ে তখনও মেনে নিতে পারেননি। মেয়ে থাকা সত্ত্বেও রাজিয়া বেগম ২০১৯ সালে তাকে (নিশি আক্তার) রেজাউলকে তালাক দিতে বাধ্য করান। পরবর্তীতে নিশি পালিয়ে গিয়ে তালাকনামা প্রত্যাহার করে নেন। এ কারণে ২০২০ সালে রাজিয়া বেগম তাকে ঢাকায় একটি বাসায় আটকে রেখে মারধর করেন।

শনিবার (২৯ মে) রাজিয়া বেগম তার জামাতা রেজাউলের বাড়িতে বেড়াতে আসেন। রাজিয়া বেগম মেয়ে নিশি আক্তারকে বলেন, তার বাবা শাহজাহান ঘরামী অসুস্থ। তাকে বাড়ি গিয়ে দেখে আসতে বলেন। বুধবার সকালে তিনি বড় মেয়েকে স্বামীর কাছে রেখে ছোট মেয়েকে নিয়ে বাবার বাড়িতে যান। ওইসময় রেজাউলকে দ্বিতীয়বার তালাক দেয়ার জন্য তাকে (নিশি আক্তার) চাপ দেন রাজিয়া বেগম। তালাক দিতে অস্বীকার করলে রাজিয়া বেগম তাকে মারধর করেন এবং তার কোল থেকে মেয়ে নুশরাতকে ছিনিয়ে নিয়ে আছড়ে হত্যার চেষ্টা চালান। এসময় নিশির চিৎকারে প্রতিবেশীরা এসে তাদের উদ্ধার করেন। পরে স্থানীয়রা মেয়ে নুশরাতকে উদ্ধার করে দ্রুত উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে ভর্তি করেন।

এ ঘটনায় বুধবার বিকেলে নিশি আক্তার তার মা রাজিয়া বেগমের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ দেন।

রাজিয়া বেগম অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, ‘মেয়েজামাই রেজাউল করিমের ব্যবহার ভালো না। স্বামীর সংসারে তার মেয়ে নিশি আক্তার সুখে নেই। এ কারণে রেজাউল করিমকে তালাক দিতে বলেছেন। কিন্তু মেয়ে নিশি আক্তার রেজাউল করিমকে অন্ধের মতো ভালোবাসেন। তাই রেজাউলকে তালাক দিতে বলায় আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ বলে বেড়াচ্ছে।’

মুলাদী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম মাকসুদুর রহমান জানান, নিশি আক্তার নামের এক নারী তার মায়ের বিরুদ্ধে থানায় লিখিত অভিযোগ করেছেন। অভিযোগ তদন্ত করে যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হবে।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]