বানারীপাড়ায় ইউপি চেয়ারম্যানের অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে তদন্তে কমিটি গঠন

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত এপ্রিল ১৭ শনিবার, ২০২১, ০২:২৯ অপরাহ্ণ
বানারীপাড়ায় ইউপি চেয়ারম্যানের অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগে তদন্তে কমিটি গঠন

রাহাদ সুমন, বিশেষ প্রতিনিধি॥ বরিশালের বানারীপাড়ায় সৈয়দকাঠি ইউপি চেয়ারম্যান ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আ.মন্নান মৃধার বিরুদ্ধে নিজের বোন-ভাগ্নেকে ত্রাণের ঘর দেওয়া ও ১৭টি ব্রিজের পুরাতন মালামাল বিক্রি করে প্রায় দু’কোটি টাকা আত্মসাতসহ নানা অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এসব অভিযোগের সত্যতা খুঁজতে সম্প্রতি পৃথক দুটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।

 

বরিশালের স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জামাল উদ্দিন তার কার্যালয়ের সিনিয়র সহকারি প্রকৌশলী দেওয়ান আব্দুস সবুরকে আহবায়ক ও সহকারি প্রকৌশলী আশরাফ আহম্মদ এবং উপ-সহকারি প্রকৌশলী মো. মিজানুর রহমান মজুমদারকে সদস্য করে তিন সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করেন। তাদের ১০ কার্য দিবসের মধ্যে এ বিষয় তদন্ত করে তার দপ্তরে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেওয়া হয়।

 

এছাড়া ইউপি চেয়ারম্যান আ. মন্নান মৃধার বিরুদ্ধে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে কাবিটা কর্মসূচির দু’টি ত্রাণের ঘর বোন ও ভাগ্নেকে পাইয়ে দেওয়া নিয়ে স্বজনপ্রীতির অভিযোগ তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য বরিশাল জেলা প্রশাসন বানারীপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রিপন কুমার সাহাকে নির্দেশ দিলে তিনি উপজেলা সহকারি কমিশনার ( ভূমি) নিশাত শারমিনকে দায়িত্ব দেন।

 

সম্প্রতি জেলা প্রশাসনের স্থানীয় সরকার বিভাগের সহকারি পরিচালক শরীফ মো. হেলাল উদ্দিন ইউএনওকে এ নির্দেশ দেন। ওই এলাকার বাসিন্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি এইচ এম হাফিজুর রহমান মামুন সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রী,স্থানীয় সরকার মন্ত্রী,সচিব,দুদক, বরিশাল জেলা প্রশাসক,স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী ও বানারীপাড়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা বরাবরে সৈয়দকাঠি ইউপি চেয়ারম্যান আ. মন্নান মৃধার বিরুদ্ধে তার বোন জাহানারা বেগম ও ভাগ্নে আলাউদ্দিনকে ২০১৮-১৯ অর্থ বছরে কাবিটা কর্মসূচির দু’টি ত্রাণের ঘর পাইয়ে দেওয়া ও ১৭টি পুরাতন ব্রিজের মালামাল (রড,পিলার,ভিম ও এঙ্গেল) বিক্রি করে প্রায় দুই কোটি টাকা আত্মসাত করা সহ বিভিন্ন অনিয়ম-দুর্নীতির অভিযোগ করেন। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে এ তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়।

 

এ প্রসঙ্গে ইউপি চেয়ারম্যান আ. মন্নান মৃধা প্রশ্ন তুলে বলেন, আমার বোনের স্বামী নেই, দুটি সন্তানই প্রতিবন্ধী। এক্ষেত্রে অসহায় ও গরীব হিসেবে তাদের কি ঘর দেওয়া যাবেনা ? তিনি দাবি করেন, আসন্ন ইউপি নির্বাচনকে কেন্দ্র করে স্থানীয় একটি স্বার্থান্বেষী মহল আমার জনপ্রিয়তায় ঈর্ষান্বিত হয়ে নানা ষড়যন্ত্রে লিপ্ত রয়েছেন।




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]