বরগুনায় ক্ষমতার দাপটে আ’লীগ নেতার কাণ্ড! ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও)

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত মে ১৯ বুধবার, ২০২১, ০৭:০৬ অপরাহ্ণ
বরগুনায় ক্ষমতার দাপটে আ’লীগ নেতার কাণ্ড! ভিডিও ভাইরাল (ভিডিও)

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ বরগুনার বেতাগীতে ন্যায্যমূল্যের টিসিবির পণ্য সাধারণ মানুষ ক্রয়ের আগেই এক আওয়ামী লীগ নেতা ক্ষমতার দাপটে ডিলারের কাছ থেকে সংগ্রহ করে দোকানে দোকানে পাইকারি দামে বিক্রি করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ইতোমধ্যে সেই ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

ওই নেতা বেতাগী উপজেলার হোসনাবাদ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ত্রাণবিষয়ক সম্পাদক মতিউর রহমান লিটন (লেটোয়ার মৃধা)।

তার বিরুদ্ধে প্রাকৃতিক দুর্যোগ সিডরের সময়ে ত্রাণ আত্মসাৎ, সরকারি পাবলিক টিউবওয়েল নিজের ঘরের মধ্যে বসানো, রেকর্ডীয় খাল দখল করে পুকুর খননসহ দলীয় প্রভাব খাটিয়ে সরকারি নানা বরাদ্দ ব্যক্তিগত কাজে লাগানোর একাধিক অভিযোগ রয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, গত ১০ মে উপজেলার জলিশাবাজের টিসিবির পণ্য ভ্রাম্যমাণভাবে বিক্রি করেন সরদার এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মো. রবিউল ইসলাম ও তার দুই সহযোগী। বিক্রির শুরুতেই ওই আওয়ামী লীগ নেতা মতিউর রহমান গিয়ে তার ক্ষমতার দাপট দেখিয়ে একের পর এক ৫ লিটার ওজনের তেলের বোতল নেয়া শুরু করেন।

বাধা দিলে বলেন, উপজেলার সব নেতা আমার আত্মীয়স্বজন, আর আমি এই ইউনিয়নের বড় নেতা।

এরপর ডিলারের সঙ্গে জোর করে ৭৫ লিটার তৈল ও ৩০ কেজি চিনিসহ ইচ্ছেমতো পণ্য নেওয়ার পর টাকা চাইলে অনেক কথার পর প্রতিটি তেল বাবদ ৫০০ টাকা দেন। একটু পর সেই তেল ৬০০ টাকা ও চিনি স্থানীয় কয়েক ব্যবসায়ীর কাছে বাজার মূল্যে বিক্রি করেন; যা গোপনীয়তা রক্ষা করে স্থানীয় লোক মোবাইল ফোনে ছবি ও ভিডিও ধারণ করেন এবং কিছুদিন পর তা ভাইরাল হলে যুগান্তর প্রতিবেদকের হাতে পড়ে।

এমন ঘটনায় টিসিবির পণ্য নিতে আসা একাধিক লোক পণ্য ক্রয় করতে না পেরে ক্ষোভ প্রকাশ করেন এবং বলেন,ওই নেতা ক্ষমতার দাপটে পণ্য ক্রয় করে আবার বেশি দামে বিক্রি করে লাভও করেছে। আর আমরা পণ্য পেলাম না।

টিসিবির ডিলার সরদার এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী মো. রবিউল ইসলাম বলেন, আমি ওই নেতাকে বাধা দেই এবং বলি আপনি একটার বেশি নিতে পারবেন না। পরে তিনি আমাকে ধমক দিয়ে বলেন, আমার যা যা লাগবে না দিলে তোর লাইসেন্স বাতিল করে দেব। আওয়ামী লীগের বড় বড় নেতা আমার আত্মীয়স্বজন। কথা বাড়ানোর কারণে আমাকে টাকাও দিতে চায়নি, পরে পাশের লোকজন বলে সরকারি জিনিস টাকা দিয়ে দেন। পরে আমাকে টাকা দেয়। তিনি ইচ্ছেমতো পণ্যগুলো নিয়ে যাওয়ায় সাধারণ মানুষের কাছে বিক্রি করার মতো পণ্য না থাকায় খালি গাড়ি নিয়ে চলে আসি।

স্থানীয় বাসিন্দা সাদ্দাম হোসেন বলেন, ওই নেতা টিসিবির পণ্য নিয়ে স্থানীয় ব্যবসায়ী আশরাফ আলী, জাফরসহ বেশ কয়েকজনের দোকানে বিক্রি করেন। অনেকেই পণ্য পায়নি, মাঝখান দিয়ে তিনি লাভ করেন।

অভিযুক্ত মতিউর রহমান লিটন (লেটোয়ার মৃধা) বলেন, কোন সময় এটা হইছে? আমি তো আমার যা প্রয়োজন তা এনেছি। আমি কোনো পণ্য বিক্রি করিনি।

ভিডিওর কথা বললে তিনি বলেন, ওই দিন বাজারে কোনো সাংবাদিক ছিল না, তো ভিডিও করবে কে? এসব মিথ্যা কথা।

বেতাগী উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি এবিএম গোলাম কবির বলেন, লিটন আওয়ামী লীগের ত্রাণবিষয়ক সম্পাদক, তার কাজ মানুষকে ত্রাণ দিয়ে সহায়তা করার ব্যবস্থা করা। যদি কোনো দলীয় লোক দুর্নীতি করে এবং তা প্রমাণিত হয় তবে তাকে কোনো ছাড় দেয়া হবে না। জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সম্পাদকের সঙ্গে আলোচনা করে তার বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ ব্যাপারে বেতাগী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. সুহৃদ সালেহীন বলেন, সে যে দলের নেতাই হোক না কেন,সরকারের  কাজে অনিয়ম ও দুর্নীতি করলে তাকে অবশ্যই আইনের আওতায় আনা হবে। অতি শীঘ্রই ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

ভিডিও লিং সংগৃহিতঃ

 




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]