ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ ঘণ্টায় ১৬৫ কিলোমিটার বেগে!

Barisal Crime Trace
প্রকাশিত মে ২২ শনিবার, ২০২১, ০৯:৪৬ অপরাহ্ণ
ধেয়ে আসছে ঘূর্ণিঝড় ‘ইয়াস’ ঘণ্টায় ১৬৫ কিলোমিটার বেগে!

নিজস্ব প্রতিবেদক>> প্রবল গতিতে ভারতে পশ্চিমবঙ্গের দিকে ধেয়ে আসছে ইয়াস (Yaas)। সর্তকতা জারি করা হয়েছে আগে থেকেই। আজ ২২ তারিখ ইয়াসকে নিয়ে ন্যাশনাল ক্রাইসিস ম্যানেজমেন্ট কমিটি মিটিং রাখে।

 

সেখানে ক্যাবিনেটের সেক্রেটারি রাজীব গওবা গোটা বিষয় খতিয়ে দেখতে রাজ্য এবং দেশের পরিস্থিতি নিয়ে মিটিং করেন। কিভাবে মোকাবিলা করা হবে এই সাইক্লোনের তা নিয়ে সর্তকবার্তা দেওয়া হয়।

 

 

IMD-র ডিরেক্টর জেনারেল জানান, সাইক্লোনের বর্তমান অবস্থান। জানানো হয়েছে ২৬ তারিখ সন্ধ্যা নাগাদ ইয়াস আছড়ে পড়বে পশ্চিমবঙ্গ ও ওড়িশায়।

 

জানানো হয়েছে, এই ঝড়ের গতিবেগ থাকবে ১৫৫ থেকে ১৬৫ কিমি। সঙ্গে ভারি বৃষ্টিপাত। উপকূলবর্তী এলাকায় ক্ষতির সম্ভাবনা বেশি। আজ সকালেই পূর্ব মধ্যে বঙ্গোপসাগরের ওপরে একটি নিম্নচাপ তৈরি হয়েছে৷

 

আগামীকালের মধ্যেই তা গভীর নিম্নচাপে পরিণত হবে৷ এর পর উত্তর এবং উত্তর পশ্চিম দিকে সরে গিয়ে সেটি ২৪ তারিখ ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে৷ পরবর্তী ২৪ ঘণ্টায় অতি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়ে পরিণত হবে৷

 

এর পর থেকেই আরও উত্তর এবং উত্তর পশ্চিম দিকে সরে ধীরে ধীরে শক্তি বাড়িয়ে ২৬ মে সকালে পশ্চিমবঙ্গ, বাংলাদেশ এবং ওড়িশা উপকূলের কাছে পৌঁছবে ইয়াস৷

 

আবহাওয়া দপ্তরের খবর, ২৬ তারিখ বিকেলেই পশ্চিমবঙ্গ এবং উত্তর ওড়িশা ও বাংলাদেশ উপুকূল পেরিয়ে যাবে এই অতি শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড়৷

 

আবহবিদরা জানাচ্ছেন, ক্রমশ ওড়িশা উপকূল থেকে এই ঘূর্ণিঝড়ের অভিমুখ সরে যাচ্ছে৷ ফলে পশ্চিমবঙ্গ উপকূলের দিঘা থেকে সুন্দরবনের মধ্যেই তা আছড়ে পড়ার সম্ভাবনা বেশি৷

 

সমুদ্র থেকে সব মৎস্যজীবিদের যেন সরিয়ে নিয়ে আসা হয়। যদিও সবাইকেই সরিয়ে আনা হয়েছে ইতিমধ্যে। কোনও নৌকা, বোর্ড কিছুই যেন না থাকে সমুদ্রে। উপকূলবর্তী এলাকার মানুষদের অন্য জায়গায় সরিয়ে নিয়ে যেতে বলা হয়েছে। যাতে ক্ষতি কম হয়, সে ভাবনা থেকেই এই ভাবে এগোনো হচ্ছে।

 

পশ্চিমবঙ্গ, ওড়িশা, তামিল নাড়ু, অন্ধ্রপ্রদেশ, আন্দামান নিকোবর ও পুদুচেরির দায়িত্বপ্রাপ্ত অফিসাররা ছিলেন। এই সময় বিদ্যুৎ না থাকা, টেলিকম ব্যবস্থা ভেঙে পড়তে পারে। তাই আগে থেকেই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে রাখতে বলা হয়েছে। রেল বন্ধ রাখতে বলা হয়েছে ওই সময়টায়।

 

যশের মোকাবিলার জন্য সবরকম ভাবে সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। পশ্চিমবঙ্গকে বেশি সতর্ক করা হয়েছে। গত বছর এই সময় নাগাদ আমফান এসে প্রবল ক্ষতি করেছিল মানুষের।

 

আমফানের গতিবেগ ছিল ঘণ্টায় ১৮৫ থেকে ২০০ কিমি। সেই দিক থেকে ইয়াস যদি ১৫৫ থেকে ১৬৫ কিলোমিটার বেগে আসে, তবে বড়সড় ঝড় হতে চলেছে। আমফানের কাছাকাছি যাবে ইয়াস। তাই আগে ভাগেই প্রস্তুতি নিয়ে রাখা।’




আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি বরিশাল ক্রাইম ট্রেস”কে জানাতে।
ই-মেইল করুনঃ[email protected]